এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মেদিনীপুর > আমাকে মারা তো দূর অস্ত,তোমরা আমার টিকিও ধরতে পারবে না – দাবি শুভেন্দুর

আমাকে মারা তো দূর অস্ত,তোমরা আমার টিকিও ধরতে পারবে না – দাবি শুভেন্দুর



নন্দীগ্রাম আন্দোলনের সময় যার সঙ্গে সেয়ানে সেয়ানে লড়াই ছিল তমলুকের সাংসদ তথা তৃণমূলের হেভিওয়েট নেতা শুভেন্দু অধিকারীর,সেই লক্ষণ শেঠের বিরুদ্ধে ফের একবার গর্জে উঠতে দেখা গেল শুভেন্দু বাবুকে। এদিন বিজেপির ডাকা ১২ ঘন্টার বাংলা বনধে রীতিমতো উত্তপ্ত অবস্থা ছিল উত্তর দিনাজপুরের ইসলামপুরে। সেখানেই তৃণমূল কংগ্রেসের আয়োজিত জনসভায় হাজির ছিলেন তিনি। আর মঞ্চে ভাষণ দিতে উঠেই বিজেপির বিরুদ্ধে আক্রমণাত্মক ভূমিকায় দেখা গেল তৃণমূলের এই প্রভাবশালী নেতাকে।

নিজেকে ‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সৈনিক’ সম্বোধণ করে শুভেন্দু বাবু বিজেপির উদ্দেশ্যে বললেন তাকে ভয় দেখিয়ে লাভ নেই। বিজেপি তাঁর যৎসামান্য ক্ষতিও করতে পারবে না,মারা তো অনেক দূরের কথা। তাছাড়া তিনি অকৃতদার। তাঁর বউ ছেলেমেয়ে নেই। পরিবার রক্ষার ভয়টাও তাঁর নেই। কাজেই নির্ভয়ে তিনি কেবল নিজেকে তৃণমূলের উন্নয়নের কাজেই নিয়োজিত করে এসেছেন। এই প্রসঙ্গে টানলেন লক্ষণ শেঠের কথা। বললেন,নন্দীগ্রাম আন্দোলনের সময় বিজেপি নেতা লক্ষণ শেঠ তাকে ১১ বার মারতে চেয়েছিলেন কিন্তু পারেননি। কিষেনজিও মাইন সেট করে তাকে মারতে চেয়েছিলেন,কিন্তু ব্যর্থ হয়েছেন। সঙ্গে কংগ্রেসকেও এক হাত দিয়ে দিলেন তিনি। অধীর চৌধুরীকে কটাক্ষ করে বললেন,অধীর বাবু তো লড়াই করার আগেই নিজের শক্তি হারিয়ে ফেলেছেন! বিজেপি যে তাঁর কোনো ক্ষতিই করতে পারবে না,সেটাই বক্তব্যে বারাবার গর্জে উঠে বললেন শুভেন্দু অধিকারী। এছাড়া বিজেপিকে মিথ্যাবাদী রাজনৈতিক দল বলেও কটাক্ষ করলেন তিনি। মন্তব্যে জানালেন,’মিথ্যার বেসাতি করে কখনো বড় কিছু পাওয়া যায় না।’

ইসলামপুরের স্কুলে ছাত্র-পুলিশ সংঘর্ষের জেরে ছাত্রমৃত্যু ঘটনায় রাজ্যসরকারকে দায়ী করে আইন শৃঙ্খলার অবনতির প্রতিবাদ করতেই রাজ্য জুড়ে ১২ ঘন্টার বনধ ডেকেছিল এদিন বিজেপি। শুভেন্দু বাবুর দাবী,বনধের নাম করে ইসলামপুর সহ রাজ্যের বিভিন্ন জায়গাকে উত্তপ্ত করে তুলেছে বিজেপি। সরকারি বাসে আগুন লাগিয়েছে ইচ্ছে করে। সিসিটিভি ফুটেজে সব ধরা পড়েছে। প্রমান আছে রাজ্যসরকারের কাছে। বিজেপির এভাবে সরকারি সম্পত্তি ধ্বংস করার কড়া সমালোচনা করলেন তিনি। সঙ্গে এটাও হুঁসায়ারীতে জানালেন,যারা যারা বনধের নামে সরকারি সম্পত্তি নষ্ট করেছে তাদের কাউকেই ছাড়বে না তৃণমূল। সকলের জন্য আইনের পথে হেঁটে শাস্তিব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

উল্লেখ করার মতো বিষয় হল,শুভেন্দু বাবু যেভাবে এদিনে বক্তব্য বিজেপিকে তোপ দাগতে গিয়ে ১০ বছরেরও বেশি পুরানো নন্দীগ্রাম আন্দোলনের প্রসঙ্গে তুলে লক্ষণ শেঠের বিরুদ্ধে আক্রমণ শানালেন তা বেশ তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছেন ওয়াকিবহাল মহল। লক্ষণ শেঠ কিছুদিন আগেই বিজেপি ছেড়েছেন। এ রাজ্যরাজনীতির বেশ চর্চিত বিষয়। তবে তিনি তৃণমূলে যোগ দেবেন কিনা তা নিয়ে বেশ ধোঁয়াশা রয়েছে। কারণ তৃণমূলে যোগ দেওয়ার জন্য তিনি নাকি শুভেন্দু বাবুকে ফোন করার চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু শুভেন্দু বাবু তাকে বিশেষ গুরুত্ব দেননি। আর এদিন লক্ষণ শেঠকে ব্যক্তিগতভাবে আক্রমণ করে নিজের অবস্থানটি জনসমক্ষে স্পষ্ট করে দিলেন তৃণমূলের এই প্রথম সারির নেতা।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!