এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > কংগ্রেস > শুভেন্দু প্রকাশ্যে মুখ না খুললে স্পষ্ট হচ্ছে না কিছুই! অধীর অপেক্ষায় অনুগামী থেকে সমর্থকরা

শুভেন্দু প্রকাশ্যে মুখ না খুললে স্পষ্ট হচ্ছে না কিছুই! অধীর অপেক্ষায় অনুগামী থেকে সমর্থকরা



আপনাদের সুবিধার্থে খবরের শেষে বিধানসভা ২০২১ উপলক্ষে আমাদের করা সর্বশেষ সমীক্ষার প্রতিটির লিঙ্ক দেওয়া আছে।

আপনার মতামত জানান -

প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট –

শুভেন্দু অধিকারীকে নিয়ে দীর্ঘদিন জল্পনার পর অবশেষে মঙ্গলবার তার সঙ্গে বৈঠকে বসতে দেখা যায় তৃণমূল শীর্ষ নেতৃত্বকে। যেখানে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় থেকে শুরু করে প্রশান্ত কিশোর, সৌগত রায় এবং সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়ের মত নেতারা উপস্থিত ছিলেন বলে খবর। আর তারপর থেকেই তৃণমূলের পক্ষ থেকে সৌগত রায় দাবি করে আসছেন, যা সমস্যা ছিল, তা মিটে গেছে।

কিন্তু এখনও পর্যন্ত নীরব রয়েছেন শুভেন্দু অধিকারী। স্বাভাবিকভাবেই তার নীরবতা নিয়ে তৈরি হয়েছে প্রশ্ন। তাই শুভেন্দু অধিকারী মুখ খুললেই তাঁরা বাস্তব পরিস্থিতি সম্পর্কে অবগত হবেন বলে দাবি করছেন তার অনুগামী থেকে শুরু করে সর্মথকরা। পূর্ব মেদিনীপুর জেলা তৃণমূলের অনেক নেতৃত্বরাই অবশ্য মনে করছেন, এখনও সন্দেহের আবহ কাটেনি। শুভেন্দু অধিকারী নিজের মুখ থেকে কিছু না বলা পর্যন্ত তাই সকলেই এখন জল মাপতে শুরু করেছেন।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, এই শুভেন্দু অধিকারীকে নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই জল্পনা তৈরি হয়েছিল। সাম্প্রতিক কালে তিনি মন্ত্রীপদ থেকে ইস্তফা দেওয়ার পর তৃণমূলের আশঙ্কা দ্বিগুণ হতে শুরু করে। যদি শুভেন্দু অধিকারি দলত্যাগ করেন, তাহলে বিধানসভা নির্বাচনের আগে ব্যাপক অস্বস্তিতে পড়বে শাসকদল বলে দাবি করতে শুরু করে বিশেষজ্ঞরা। আর এই পরিস্থিতিতে শুভেন্দু অধিকারী কি করবেন, তা নিয়ে যখন জল্পনা তীব্র থেকে তীব্রতর হয়, তখন বারবার মধ্যস্থতা করে গোটা পরিস্থিতি সমাধানের চেষ্টা করেন তৃণমূলের প্রবীণ সাংসদ সৌগত রায়।

অবশেষে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে সরাসরি বৈঠকে বসতে দেখা যায় শুভেন্দু অধিকারীকে। আর তারপর থেকেই সৌগতবাবু দাবি করে আসছেন যে, যা সমস্যা ছিল, তা সম্পূর্ণরূপে মিটে গেছে! কিন্তু বাস্তব কি তাই? সত্যিই কি সমস্ত সমস্যা মিটে গেছে? একাংশ বলছেন, যতক্ষণ না শুভেন্দু অধিকারী কিছু বলছেন, ততক্ষণ এই ব্যাপারে কোনো কিছু বলা উচিত হবে না। কেননা এই শুভেন্দু অধিকারীকে নিয়ে যখন জল্পনা তৈরি হয়েছিল, তখন তার বিরুদ্ধ গোষ্ঠীর নেতা তথা পূর্ব মেদিনীপুর জেলার রামনগরের বিধায়ক অখিল গিরি তার সম্পর্কে নানা মন্তব্য করেছেন।

একইভাবে কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের মত হেভিওয়েট তৃণমূল সাংসদ শুভেন্দু অধিকারীর বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে নাম না করে সরব হয়েছেন। তাই দলের পক্ষ থেকে একাধিক নেতা তাকে একের পর এক আক্রমণ করে গেলেও, তিনি সহজেই দলে সক্রিয় হয়ে যাবেন, এমনটা মানতে নারাজ তার অনুগামীরা। তাই এই পরিস্থিতিতে সৌগত রায় সমস্ত সমস্যা মিটে গেছে বললেও, শুভেন্দু অধিকারী কি বলছেন, তার দিকে তাকিয়ে রয়েছেন তার অনুগামী থেকে সমর্থক সকলেই।


দেশে যে কোনো দিন ব্যান হয়ে যেতে পারে হোয়াটস্যাপ। তাই এখন থেকে আমরা শুধুমাত্র টেলিগ্রাম ও সিগন্যাল অ্যাপে। প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার নিউজ নিয়মিতভাবে পেতে যোগ দিন –

টেলিগ্রাম গ্রূপটাচ করুন এখানে

সিগন্যাল গ্রূপটাচ করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

এদিন এই প্রসঙ্গে শুভেন্দু অধিকারীর ঘনিষ্ঠ নেতা বলে পরিচিত নন্দীগ্রাম পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি বলেন, “সমস্যা মিটে গেলে জেলার নেতৃত্বকে একজোট করতে সময় লাগবে না শুভেন্দুর। সব কিছুতো গোছানো আছেই। হাতে সময় রয়েছে। দাদা একদিন মাঠে নামলেই সব স্বাভাবিক হয়ে যাবে।” অন্যদিকে এই ব্যাপারে তৃণমূল কংগ্রেসের পূর্ব মেদিনীপুর জেলার সাধারণ সম্পাদক কনিষ্ক পন্ডা বলেন, “শুভেন্দুর তরফ থেকে কোনো বার্তা না আসা পর্যন্ত পরবর্তী পদক্ষেপ নিয়ে কিছু বলা যাবে না।”

একইভাবে শুভেন্দু অধিকারীর বিরুদ্ধ গোষ্ঠীর নেতা অখিল গিরিও এখন তেমন ভাবে কোনো মন্তব্য করতে চাইছেন না। এদিন এই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “দলের কাজ যেমন চলছিল, তেমনই চলছে। দিদিকে দেখে আমরা দল করি। নিজেদের প্রয়োজনে কখনও দর কষাকষি করিনি। দলের ওপর তলার নির্দেশ যেমন আসবে, তেমন ভাবেই কাজ চালিয়ে যাব।”

অর্থাৎ শুভেন্দু অধিকারীর অনুগামী হোক বা বিরোধী গোষ্ঠীর নেতা, সকলেই এখন শুভেন্দুবাবুর বক্তব্যের দিকে নজর রেখেছেন। কেননা তৃণমূলের পক্ষ থেকে সমস্যার সমাধান হয়ে গেছে বলে দাবি করা হলেও, এই ব্যাপারে শুভেন্দু অধিকারীর প্রতিক্রিয়া কি, তার দিকেই তাকিয়ে রয়েছেন সকলের। সব মিলিয়ে গোটা পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, বৈঠক প্রসঙ্গে কি বলেন তৃণমূল কংগ্রেসের শীর্ষ নেতা, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

 

একনজরে দেখে নিন আমাদের সর্বশেষ বিধানসভা ২০২১ ওপিনিয়ন পোল –

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – দ্বিতীয় পর্ব – 

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – প্রথম পর্ব – 

# মালদহ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# উত্তর দিনাজপুরে জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# জলপাইগুড়ি ও কালিম্পঙ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# আলিপুরদুয়ার ও দার্জিলিং জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# কুচবিহার জেলার ওপিনিয়ন পোল –

আপনার মতামত জানান -
আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!