এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > সুস্থ হয়েই খেলা শুরু করে দিলেন অনুব্রত, ব্যাপক চাপে বিজেপি!

সুস্থ হয়েই খেলা শুরু করে দিলেন অনুব্রত, ব্যাপক চাপে বিজেপি!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট –  2021 এর বিধানসভা নির্বাচনে তার স্লোগান ছিল, খেলা হবে। পরবর্তীতে বীরভূমের অনুব্রত মণ্ডলের মুখ থেকে বেরোনো স্লোগান রাজ্য রাজনীতির অন্যতম স্লোগান হয়ে দাঁড়িয়েছিল। এমনকি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের গলাতেও এবারের বিধানসভা নির্বাচনের সেরা স্লোগান “খেলা হবে” বলে শোনা গিয়েছিল। শুধু তাই নয়, নির্বাচনের আগে কমিশনের পক্ষ থেকে অনুব্রত মণ্ডলকে নজরবন্দী করা হলেও, বেশ সুন্দর খেলা হয়েছে বলে দাবি করেছিলেন তিনি। আর ফলাফল প্রকাশের দিন নিজের কথা রাখতে দেখা গিয়েছে অনুব্রত মণ্ডলকে।

বীরভূম জেলায় অভাবনীয় ফলাফল করার পাশাপাশি গোটা রাজ্যে তৃণমূল 200 আসন পার করবে বলে দাবি করেছিলেন এই হেভিওয়েট তৃণমূল নেতা। আর ফলাফল প্রকাশের পর তার সেই ভবিষ্যৎবাণী হুবহু মিলে গিয়েছে। আর দল তৃতীয় বার ক্ষমতায় আসার পরেই অনুব্রত মণ্ডল যে আবার নতুন করে বীরভূম জেলায় দাপট দেখাতে শুরু করবেন, তা কার্যত নিশ্চিত হয়ে গিয়েছিল। এবার সেই বীরভূম জেলাতে খেলা শুরু করে দিলেন অনুব্রত মণ্ডল।

যেখানে ভোটের আগে বিজেপি করার জন্য রীতিমতো প্রকাশ্যে টোটোতে মাইক টাঙিয়ে ক্ষমা চাইতে দেখা গেল গেরুয়া শিবিরের কর্মী সমর্থকদের। পাশাপাশি তৃণমূলে যোগ দেওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করলেন তারা। যার জেরে বীরভূম জেলায় অনুব্রত মণ্ডলের “খেলা হবে” শ্লোগান এবার কাজে দিতে শুরু করল বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

সূত্রের খবর, এদিন বীরভূমের লাভপুরের বিপ্রুটিকুরি এলাকায় 30-35 জন বিজেপি কর্মী সমর্থক টোটোতে মাইক লাগিয়ে তৃণমূলের পতাকা নিয়ে গোটা গ্রাম পরিদর্শন করেন। যেখানে বিজেপি করবার জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করেন তারা। পাশাপাশি তৃণমূলে যোগ দেওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করতে শোনা যায় তাদের। স্বাভাবিক ভাবেই এই গোটা ঘটনায় যথেষ্ট চাপে পড়ে গিয়েছে ভারতীয় জনতা পার্টি। এমনিতেই বিজেপি রাজ্যে ক্ষমতা দখল করার পর থেকেই তাদের দলের বিভিন্ন স্তরের নেতা নেত্রীরা বেসুরো গাইতে শুরু করেছেন।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

যারা ভোটের আগে তৃণমূল থেকে বিজেপিতে এসেছিলেন, তারা আবার তৃণমূলে ফিরে যেতে পারেন বলে জল্পনা তৈরি হয়েছে। আর তার মাঝেই বীরভূমের লাভপুরে প্রকাশ্যে বিজেপি কর্মী সমর্থকদের এভাবে ক্ষমা প্রার্থনা এবং তৃণমূলে যোগ দেওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ অনুব্রত মণ্ডলের “খেলা শুরু” করে দেওয়ার একটি নমুনা বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ভোটের ফলাফলে অনুব্রত মণ্ডল ব্যাপকভাবে উত্তীর্ণ হওয়ার পরেই তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন। যার জেরে ব্যাপক চিন্তা তৈরি হয়েছিল তার অনুগামীদের মধ্যে। পরবর্তীতে কলকাতা থেকে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফেরার পরেই আবার নতুন উদ্যমে কাজ শুরু করে দিয়েছেন তিনি। কিছুদিন আগে অনুব্রত মণ্ডল সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে জানিয়ে দিয়েছিলেন, তিনি যেমন ঘোড়া ছিলেন, তেমনভাবেই রয়েছেন।

আর এবার সেই অনুব্রত মণ্ডলের জেলা বীরভূমের লাভপুরে ভোটের আগে বিজেপি করা কর্মী-সমর্থকদের ক্ষমা প্রার্থনা এবং তৃণমূলে ফেরার ইচ্ছা প্রকাশ যথেষ্ট চাপে ফেলে দিল ভারতীয় জনতা পার্টিকে। যত সময় যাবে, ততই বিজেপির আরও নেতা-কর্মীরা তৃণমূলে যোগ দেওয়ার জন্য উদগ্রীব হয়ে পড়বেন বলেই দাবি করছে ঘাসফুল শিবির।

সব মিলিয়ে বীরভূম জেলা নিয়ে ভোটের আগে এবং পরে বিরোধী দল বিজেপির নানা অভিযোগ থাকলেও, নিজেদের ঘর সামলাতে না পেরে এখন রীতিমত ব্যাকফুটে ভারতীয় জনতা পার্টি। সব মিলিয়ে গোটা পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!