এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > শুভেন্দু অধিকারীর নিরাপত্তারক্ষীর মৃত্যুর তদন্তে নয়া মোড়, একসাথে তলব ও জেরা তিন পুলিশকে

শুভেন্দু অধিকারীর নিরাপত্তারক্ষীর মৃত্যুর তদন্তে নয়া মোড়, একসাথে তলব ও জেরা তিন পুলিশকে



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – যত দিন যাচ্ছে ততই ক্রমশ নতুন দিক উন্মোচিত হচ্ছে শুভেন্দু অধিকারীর প্রাক্তন নিরাপত্তারক্ষী শুভব্রত চক্রবর্তীর মৃত্যুর ঘটনার তদন্তে। গতকাল তিনজন পুলিশকে একসঙ্গে ভবনী ভবনে তলব করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। যাদের মধ্যে ছিলেন কাঁথি থানার সেসময়কার আইসি সুনয়ন বসু, এছাড়া, শুভেন্দু অধিকারীর সেসময়কার দুজন নিরাপত্তারক্ষী যারা হলেন সুশান্ত যশ ও পিনাকী ঘোষ। ভবনী ভবনে তলব করে দীর্ঘ সময় ধরে তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদ করে সিআইডি। মুখোমুখি বসিয়েও তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদ চলে, তাঁদের বয়ান রেকর্ড করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত ২০১৮ সালের ১৩ ই অক্টোবর হঠাৎ করেই মৃত্যু হয় শুভেন্দু অধিকারীর তৎকালীন দেহরক্ষী শুভব্রত চক্রবর্তীর। মাথায় গুলি লেগেছিল তাঁর। জানা যায়, গুলি লাগার পরেও কয়েক ঘন্টা বিনা চিকিৎসায় তাঁকে ফেলে রাখা হয়েছিল। পরে কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য তাঁকে আনা হয়েছিল। যদিও তাকে বাঁচানো সম্ভব হয়নি। এই ঘটনা নিয়ে সম্প্রতি অভিযোগ করেছেন তাঁর স্ত্রী সুপর্ণা কাঞ্জিলাল চক্রবর্তী। এরপর এই ঘটনার তদন্তে নেমেছে সিআইডি। এই ঘটনার তদন্তে তিন পুলিশকে তলব করা হয়েছিল।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

গতকাল, সাড়ে ৮ ঘণ্টা ধরে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলো কাঁথি থানার তৎকালীন আইসি সুনয়ন বসু, সুশান্ত যশ, যিনি সেসময় শুভেন্দু অধিকারীর নিরাপত্তারক্ষী ছিলেন, সম্প্রতি তিনি তমলুক পুলিশ লাইনের এএসআই, এছাড়া শুভেন্দু অধিকারীর প্রাক্তন নিরাপত্তারক্ষী এখন তিনি তমলুক পুলিশ লাইনের কনস্টেবল পিনাকী ঘোষকে। গতকাল তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদ করেছে সিআইডি। একাধিক বিষয়ে তাঁদের কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল বলে, জানা যাচ্ছে সিআইডি সূত্রে।

যেমন কাঁথি থানার তৎকালীন আইসি সুনয়ন বসুর কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল যে, যখন গুলি লেগেছিল শুভব্রত চক্রবর্তীর, তখন পরিস্থিতি কেমন ছিল? তিনি সেখানে গিয়েছিলেন কিনা? কোন লিখিত নথি পাওয়া গিয়েছিল কিনা ঘটনাস্থল থেকে? তিনি কিছু পেয়েছিলেন কিনা? এ সময় কারা পুলিশকে বিষয়টি জানিয়েছেন? কে কে ঘটনাস্থলে ছিলেন? তাঁর পরিবারকে কখন জানানো হয়েছিল? কেন দ্রুত তাঁর চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়নি? এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হয়। আবার, যারা তাঁকে চিকিৎসার জন্য কলকাতায় নিয়ে গিয়েছিলেন, তাঁদেরকেও জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে।

এছাড়া পিনাকী ঘোষ ও সুশান্ত যশের কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল যে, হাসপাতালে কখন নিয়ে যাওয়া হয়েছিল শুভব্রত চক্রবর্তীকে? কেউ তাঁর চিৎকার শুনতে পেয়েছেন কিনা? কিংবা গুলির শব্দ শুনতে পেয়েছেন কিনা? হাসপাতালে নিয়ে যেতে কতক্ষণ সময় লেগেছিল? জেলার হাসপাতাল থেকে কখন কলকাতার বেসরকারি হাসপাতালে আনার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছিল? এই বিষয়গুলি জানতে চাওয়া হয়। এভাবেই শুভেন্দু অধিকারীর প্রাক্তন নিরাপত্তারক্ষী শুভব্রত চক্রবর্তীর মৃত্যুর তদন্তে ক্রমশ জাল বিস্তার করছে সিআইডি।

 

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!