এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > পুরুলিয়া-ঝাড়গ্রাম-বাঁকুড়া > শিক্ষকদের হাজিরা এবার টেকনোলজির কড়া অনুশাসনে বাঁধতে বিশেষ উদ্যোগ রাজ্য সরকারের

শিক্ষকদের হাজিরা এবার টেকনোলজির কড়া অনুশাসনে বাঁধতে বিশেষ উদ্যোগ রাজ্য সরকারের



দীর্ঘদিন ধরেই এরাজ্যে শিক্ষকদের দেরি করে স্কুল, কলেজে আসার অভিযোগে জেরবার হয়ে উঠেছিল সরকার। এবার সেই শিক্ষকদের হাজিরা নিয়ে কড়াকড়ি শুরু করল রাজ্য। জানা গেছে, এবার থেকে শিক্ষকদের হাজিরার হিসেব রাখতে এসএমএসে সমস্ত খোঁজ রাখবেন  জেলাশাসকরা।

সূত্রের খবর, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মস্তিস্কপ্রসূত এই পরিকল্পনাকে বাস্তবায়িত করতে বাঁকুড়ার খাতরা এবং রানিবাঁধ ব্লককে বেছে নেওয়া হয়েছিল। আর এতে সাফল্যও এসেছিল। সম্প্রতি খাতরার মহকুমা শাসক এক বিজ্ঞপ্তিতে এই প্রকল্পটিকে সফল করার জন্য ডিআই, এআই এবং এসআইদের ধন্যবাদ জানানোর পাশিপাশি গোটা জেলাতেই এই প্রকল্প চালুর কথা বলেছেন। তবে প্রথমে বাঁকুড়ার দুটি ব্লকে চালু হলে তাতে সাফল্য পাওয়ার পর যেমন তা গোটা জেলায় চালু করা হচ্ছে ঠিক তেমনি এবার তা এই জেলা থেকে রাজ্যেই চালু হতে পারে বলে মনে করছেন অনেকে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য,  এ রাজ্যের টিচিং-লার্নিং’এর মান বারবার প্রশ্নের মুখে পড়ার পাশাপাশি প্রাথমিক এবং উচ্চপ্রাথমিক স্তরে স্কুলছুটের সংখ্যাও বৃদ্ধি পেয়েছে চরম পরিমানে। দেখা গেছে, শিক্ষকদের সঠিক সময়ে স্কুলে উপস্থিতি নিয়েও ভুড়িভুড়ি অভিযোগ এসেছে। তাই এবার সব স্কুলকে সকাল ১০.৪৫ মিনিট থেকে ১১টার মধ্যে প্রথম মেসেজ করার নিয়ম জারি করছে জেলা প্রশাসন। শিশু শিক্ষাকেন্দ্র এবং প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলি শেষ এসএমএস করবে দুপুর ৩টে ২০ মিনিট থেকে সাড়ে ৩টের মধ্যে। এবং মাধ্যমিক বা উচ্চ মাধ্যমিক স্কুলগুলির শেষ এসএমএস পাঠানোর সময় বিকেল ৪টে ২০ মিনিট থেকে সাড়ে ৪টের মধ্যে। সব মিলিয়ে বিগত দিনে শিক্ষকদের হাজিরার নিয়ম বদলের জন্য বিজ্ঞপ্তি জারি হলেও তা কোনো কাজে না দেওয়ায় ফের এই বিজ্ঞপ্তি জারি করায় এখন তা কতটা কার্যকর হয় সেদিকেই তাকিয়ে সকলে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!