এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > এক ‘বিশেষ’ নেতাকে ‘বিশেষ বার্তা’ দিতেই কি ‘গুছিয়ে’ তৈরী হচ্ছে নারদ কাণ্ডের চার্জশীট? বাড়ছে জল্পনা

এক ‘বিশেষ’ নেতাকে ‘বিশেষ বার্তা’ দিতেই কি ‘গুছিয়ে’ তৈরী হচ্ছে নারদ কাণ্ডের চার্জশীট? বাড়ছে জল্পনা



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া এক্সক্লুসিভ – গত ২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনের আগে বিজেপির রাজ্য অফিসে থেকে নারদ নিউজের একটি স্টিং অপারেশন সাংবাদিক বৈঠক করে রাজ্যবাসীর সামনে আনা হয়। সেখানে দেখা গিয়েছিল ছদ্মবেশী সাংবাদিক ম্যাথু স্যামুয়েলের কাছ থেকে মোটা টাকা নিচ্ছেন রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের একাধিক হেভিওয়েট মন্ত্রী, বিষয়ক ও সাংসদ।

আর সেই ভিডিও সামনে আসার পরেই ঝড় উঠে গিয়েছিল রাজ্য রাজনীতিতে। প্রাথমিকভাবে তৃণমূলের তরফে এই ভিডিওকে ‘মিথ্যা’ বলে দাবি করা হলেও, পরবর্তীকালে জানানো হয়েছিল যে নির্বাচনের কাজে ব্যবহারের জন্য দলীয় চাঁদা হিসাবে ওই টাকা নেওয়া হয়েছিল। ওই ঘটনার পর গঙ্গা দিয়ে অনেক জল গড়িয়ে গেছে – সিবিআই তদন্তের পরিপ্রেক্ষিতে উঠে এসেছে এই ঘটনার নানাদিক।

আর এবার, নারদ তদন্তের চার্জশীট জমা পড়তে চলেছে সিবিআইয়ের তরফে। নারদের স্টিং অপারেশনের ভিডিওতে অনেক তৃণমূল নেতাকে দেখা গেলেও – সূত্রের খবর, সিবিআইয়ের প্রাথমিক চার্জশীটে নাম থাকতে চলেছে মাত্র চারজন তৃণমূল নেতার। ওই চারজনের মধ্যে তিনজনে এবারের লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেসের টিকিটে পুনরায় প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। কিন্তু, চার্জশীটের সেই চারজনের মধ্যে এই তিনজন তৃণমূল সাংসদ নন – রাজনৈতিক মহলে তুমুল জল্পনা শুরু হয়েছে চতুর্থ নামটি নিয়ে।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

কেননা, এই চতুর্থ ব্যক্তিটি ২০১৪ সালে তৃণমূলের টিকিটে সাংসদ হলেও, পরবর্তীকালে রাজ্যে শাসকদলের হয়ে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পান। এইবারের লোকসভা নির্বাচনে তিনি স্বাভাবিকভাবেই প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন না, কিন্তু তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁকে একাধিক জেলার দায়িত্ব দিয়েছেন। কংগ্রেস-বামফ্রন্ট ভেঙে বিভিন্ন পুরসভা-পঞ্চায়েত দখল করার পাশাপাশি ওই দুই দলের বিধায়কদের তৃণমূলের ঘরে নিয়ে আসার দায়িত্বও আপাতত তাঁর কাঁধে।

সবথেকে বড় কথা, বর্তমান শাসকদলে ‘ব্যানার্জি পরিবারের’ সদস্যদের বাইরে তিনিই সবথেকে বেশি ক্ষমতাশালী বলে পরিগণিত হন। আর রাজ্য রাজনীতির এহেন প্রভাবশালী ব্যক্তিটিকেই ‘বিশেষ বার্তা’ দিতে কি এই চার্জশীটে তাঁর নাম? ক্রমশ বাড়ছে জল্পনা। এই নিয়ে প্রকাশ্যে কেউ মুখ খুলতে না চাইলেও – তদন্তকারী সংস্থার একাধিক সূত্র থেকে যে খবর পাওয়া যাচ্ছে, তাতে স্পষ্ট – নারদ কাণ্ডের যে ভিডিও প্রকাশ্যে এসেছে তা হিমশৈলের চূড়া মাত্র। এই সূত্র ধরে এগোতে গিয়ে নাকি এমন সব প্রভাবশালীর নাম সামনে এসেছে – যে চমকে গিয়েছেন খোদ তদন্তকারী অফিসাররাই।

সবথেকে বড় কথা, এই মুহূর্তে রাজ্য রাজনীতির দুই চূড়ান্ত প্রভাবশালীর মধ্যে একজনের সঙ্গে নাকি সরাসরি যোগাযোগও পাওয়া গিয়েছে। অথচ, ওই প্রভাবশালী ‘চতুর্থ ব্যক্তিটি’ এখনও রাজ্যজুড়ে রাজনৈতিক প্রভাব বিস্তার করে চলায় – এইসব প্রভাবশালীদের নিজেদের জেরার মুখে নিয়ে আসা যাচ্ছে না। আর তাই ওই বিশেষ ব্যক্তিকে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব যদি ‘আটকানো’ যায়, তাহলেই নাকি অনেক ‘রাঘববোয়ালকে’ শুধুমাত্র নারদ কাণ্ডের যোগসাজশের পরিপ্রেক্ষিতেই নিজেদের হেফাজতে নিতে পারবে সিবিআই।

সবমিলিয়ে, নারদ কাণ্ডের চার্জশীটে ওই ‘বিশেষ ব্যক্তির’ নাম নিয়ে ক্রমশ বাড়ছে জল্পনা! চার্জশীট নাকি এমনভাবে তৈরী হচ্ছে – একবার সিবিআই হেফাজতে নিলে, আর সহজে বাইরে বেরোনো যাবে না! আর তাই, ওই বিশেষ ব্যক্তির নাম নিয়ে জল্পনা – রাজ্য-রাজনীতি কি এক নতুন মোড়ে দাঁড়িয়ে? কেননা, তিনি যে মাপের নেতা এর আগে বঙ্গ রাজনীতিতে সেই মাপের বড় কোনো নেতার গ্রেপ্তারি হন নি! ফলে, নারদ কাণ্ডের পরিপ্রেক্ষিতে বঙ্গ রাজনীতিতে এক নতুন সন্ধিক্ষণের সৃষ্টি হতে চলেছে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!