এখন পড়ছেন
হোম > অন্যান্য > সামান্য এক কাপ চাই আপনাকে করোনা যুদ্ধে জয়ী করতে পারে? সামনে এল চমকে দেওয়া তথ্য

সামান্য এক কাপ চাই আপনাকে করোনা যুদ্ধে জয়ী করতে পারে? সামনে এল চমকে দেওয়া তথ্য



ভারতে যেভাবে করোনা ছড়িয়ে পড়ছে প্রতিদিন, তা রীতিমতো চিন্তিত করে তুলছে কেন্দ্রীয় সরকারকে। দেশের করোনা আক্রান্তদের সামাল দিতে ইতিমধ্যেই বিভিন্ন ভাবে চেষ্টা চালানো হচ্ছে। বিভিন্ন ওষুধ, বিভিন্ন ইনজেকশন, এমনকি প্লাজমা থেরাপিও চলছে সমানতালে। কিন্তু তা সত্বেও নির্দিষ্ট কোনো ওষুধ বা ভ্যাকসিন না থাকার জন্য সারাদেশ শুধু না, সারাবিশ্ব আজ মারাত্মক সংকটের মুখোমুখি। এই পরিস্থিতি থেকে দেশের মানুষকে কিছুটা রেহাই দেওয়ার জন্য কেন্দ্রীয় আয়ুষ মন্ত্রক এবার অব্যর্থ দাওয়াই নিয়ে এসেছে বলে দাবি করছে।

এ প্রসঙ্গে কেন্দ্রীয় আয়ুশমন্ত্রক সম্প্রতি জানাচ্ছে, নির্দিষ্ট ভেষজ উপকরণ নির্দিষ্ট হারে মিশিয়ে একটি ভেষজ চা বানিয়ে পান করলে শরীরের ইমিউনিটি পাওয়ার নিজের থেকেই বেড়ে উঠবে। আর তার ফলেই করোনা থেকে মিলবে মুক্তি। এই ভেষজ চা করতে কি কি লাগবে, তা এবার দেখে নেওয়া যাক। এই ভেষজ চা তৈরি করতে যা লাগবে, তা আমাদের হাতের কাছেই থাকে বলে দাবি করেছে কেন্দ্রীয় আয়ুষ মন্ত্রক। এটা তৈরি করতে লাগবে তুলসী, দারচিনি, শুকনো আদা এবং গোলমরিচ। এই ভেষজ উপকরণগুলিকে 4:2:2:1 হারে মিশিয়ে এই চা বানানো যাবে।

তবে এই চায়ে চিনি মিশালে কিন্তু এর উপকার হবে না বলেই মনে করা হচ্ছে। আয়ুশ মন্ত্রকের পক্ষ থেকে বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, এই চা খেতে যদি খুব খারাপ লাগে তাহলে সামান্য গুড় বা লেবুর রস মিশিয়ে খেলেও স্বাদ পাওয়া যাবে এবং উপকার হবে। ইতিমধ্যে এই চা বাজারজাত করার জন্য দেশের আয়ুর্বেদিক ঔষধ প্রস্তুতকারক সংস্থাগুলিকে কেন্দ্রীয় আয়ুষ মন্ত্রক নির্দেশ দিয়েছে বলে জানা গেছে। তবে সূত্রের খবর, কেন্দ্রীয় আয়ুষ মন্ত্রক এই ভেষজ টি ব্যাগ বানানোর পাশাপাশি উপরিউক্ত ভেষজ উপকরণগুলি দিয়ে ট্যাবলেট বানানোর পরামর্শও দিয়েছেন।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

তাহলে তা সাধারণ মানুষের পক্ষে অনেক বেশি গ্রহণযোগ্য হবে বলে মনে করা হচ্ছে। জানা গেছে, এই ভেষজ টোটকা প্রথম একটি চীনা গবেষণা পত্রে উল্লেখ করা হয়েছিল। সেই খবর কেন্দ্রীয় সরকারের চোখে পড়ায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী কেন্দ্রীয় আয়ুশ মন্ত্রকের সাথে তা নিয়ে আলোচনা চালাতে শুরু করেন। তবে বিশেষজ্ঞদের মতে, কেন্দ্রীয় আয়ুশমন্ত্রকের রোগের পরামর্শ অনুযায়ী যদি আয়ুর্বেদিক ঔষধ প্রস্তুতকারক সংস্থাগুলি ভেষজ উপকরণগুলি কাজে লাগায় তাহলে তা সাম্প্রতিক পরিস্থিতিতে যথেষ্টই জনগণের দৃষ্টি আকর্ষণ করবে তা নিঃসন্দেহে বলা যায়।

বিশেষজ্ঞরা প্রথম থেকেই দাবি জানিয়েছিলেন, 130 কোটির দেশ শুধুমাত্র লকডাউন এর মাধ্যমে করোনা সংক্রমণকে আটকানো যাবেনা এবং বিশেষজ্ঞদের এই কথাকে সত্য প্রমাণ করে দেখা গেছে, লকডাউনের মধ্যেও করোনা সংক্রমণ ছড়িয়েছে প্রবলভাবে। এই পরিস্থিতিতে সাধারণ মানুষ আতঙ্কে দিশাহারা যেকোনো ভাবে তাঁরা করোনা থেকে পরিত্রাণ পাওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে। সে জায়গায় বিশেষজ্ঞদের মতে, যদি কেন্দ্রীয় আয়ুশ মন্ত্রকের নির্ধারিত ভেষজ ওষুধ হিসেবে বাজারে আসে, তাহলে তা দেশের মানুষের দৃষ্টি আকর্ষণ করবে খুব স্বাভাবিকভাবেই তা বলতে বোধহয় দ্বিতীয় বার ভাবতে হবে না।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!