এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > বাংলা ভাগের দাবি তুলতেই অস্বস্তিতে সৌমিত্র, বড় পদক্ষেপ শাসকদলের! চাঞ্চল্য রাজ্যে!

বাংলা ভাগের দাবি তুলতেই অস্বস্তিতে সৌমিত্র, বড় পদক্ষেপ শাসকদলের! চাঞ্চল্য রাজ্যে!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – সম্প্রতি বিজেপির একের পর এক সাংসদ বাংলা ভাগের দাবি তুলতে শুরু করেছেন। প্রথমে উত্তরবঙ্গের প্রতিটি জেলাকে নিয়ে পৃথক রাজ্য অথবা কেন্দ্রীয় শাসিত অঞ্চলের দাবি তুলে শোরগোল ফেলে দিয়েছিলেন আলিপুরদুয়ারের বিজেপি সাংসদ জন বারলা। যাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক চাঞ্চল্য তৈরি হয়। আর তারপরেই সম্প্রতি জঙ্গলমহলের জেলাগুলোকে নিয়ে পৃথক রাজ্য তৈরি করার দাবি জানান বিজেপি যুব মোর্চার রাজ্য সভাপতি তথা সাংসদ সৌমিত্র খাঁ।

তবে বিজেপির রাজ্য নেতৃত্বের পক্ষ থেকে প্রথম থেকেই জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, তারা বাংলা ভাগের পক্ষে নয়। কিন্তু একের পর এক সাংসদ বাংলা ভাগের দাবিতে নিজেদের মত করে বক্তব্য রাখার কারণে যথেষ্ট অস্বস্তিতে পড়ে ভারতীয় জনতা পার্টি। এমনকি বিজেপি বাংলা ভাগ করে অশান্তি সৃষ্টি করছে বলেও অভিযোগ তুলে বিজেপিকে চাপে রাখতে শুরু করে তৃণমূল কংগ্রেস। আর এই পরিস্থিতিতে আলিপুরদুয়ারের বিজেপি সাংসদ জন বারলার পর রাজ্য ভাগের দাবি তোলা সৌমিত্র খাঁ-এর বিরুদ্ধে পদক্ষেপ গ্রহণ করল তৃণমূল যুব কংগ্রেস। যেখানে বিজেপি যুব মোর্চার রাজ্য সভাপতির বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করলেন আলিপুরদুয়ার তৃণমূল যুব কংগ্রেসের সভাপতি প্রসেনজিৎ কর।

 

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

সূত্রের খবর, আলিপুর- দুয়ারের বিজেপি সংসদের পর সম্প্রতি জঙ্গলমহলের জেলাগুলোকে নিয়ে পৃথক রাজ্য গঠনের দাবি জানান বিষ্ণুপুরের বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁ। তিনি বলেন, “নিজেদের বাঁচাতে এবং বাংলার মানুষের চাকরির জন্য উন্নয়নের জন্য আমরা জঙ্গলমহল রাজ্যের দাবি তুলতেই পারি। এটা কোনো রাজ্যের বিরুদ্ধে নয়। মনিপুর, মিজোরাম আছে। তারা ডেভেলপমেন্ট করছে।” আর এই পরিস্থিতিতে একের পর এক জেলা নিয়ে বিজেপি সাংসদরা যেভাবে রাজ্য ভাগের দাবি তুলছেন, তার পেছনে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের প্ররোচনা রয়েছে বলে অভিযোগ তুলতে শুরু করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। আর সেই কারণেই এবার বাংলা ভাগ আটকাতে এবং বিজেপিকে চাপে রাখতে বিষ্ণুপুরের বিজেপি সাংসদের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করলেন আলিপুরদুয়ার তৃণমূল যুব কংগ্রেসের সভাপতি।

এদিন এই প্রসঙ্গে প্রসেনজিৎবাবু বলেন, “দিল্লির নেতাদের উস্কানিতে বাংলা নেতারা বাংলা ভাগের চক্রান্ত করছে। জন বারলার পাশাপাশি সৌমিত্র খাঁ-এর বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। তবে শুধু থানায় অভিযোগ দায়ের করেই থেমে থাকা নয়, আগামীতে বাংলা ভাগের চক্রান্ত যারা করছে, তাদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ দেখানো হবে।” অর্থাৎ এই গোটা ঘটনার প্রতিবাদে এবার তৃণমূল কংগ্রেস যে বিজেপির বিরুদ্ধে রাস্তায় নামার বড় হাতিয়ার পেয়ে গেল, তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

 

পর্যবেক্ষকদের মতে, আলিপুরদুয়ারের বিজেপি সাংসদ উত্তরবঙ্গের জেলাগুলোকে নিয়ে পৃথক রাজ্য গঠনের দাবি তুলতেই কড়া প্রতিক্রিয়া দিতে শুরু করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। নবান্ন থেকে সাংবাদিক বৈঠকে কোনোভাবেই রাজ্যভাগ তিনি মেনে নেবেন না বলে জানিয়ে দিয়েছিলেন তৃণমূল নেত্রী তথা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পাশাপাশি আলিপুরদুয়ারের বিজেপি সাংসদের এই ধরনের মন্তব্যের কড়া প্রতিক্রিয়া দিয়ে উত্তরবঙ্গের প্রতিটি জেলার তৃণমূল নেতৃত্ব রীতিমত সাংবাদিক বৈঠক করে এর তীব্র বিরোধিতা জানাতে শুরু করেন।

তবে তার পরেই বিষ্ণুপুরের বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁ বিজেপি নেতৃত্বের অস্বস্তি বাড়িয়ে জঙ্গলমহলের জেলাগুলোকে নিয়ে পৃথক রাজ্য গঠনের দাবি জানান। যার ফলে বিজেপির অস্বস্তি বাড়িয়ে দেওয়ার মত ইস্যু পেয়ে যায় তৃণমূল কংগ্রেস। আর এবার সেই ইস্যুকে কাজে লাগিয়ে এই দুই হেভিওয়েট বিজেপি সাংসদের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করে গেরুয়া শিবিরকে কার্যত কোণঠাসা করার কৌশল নিল আলিপুরদুয়ার জেলা যুব তৃণমূল নেতৃত্ব।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!