এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > সরকারি জমিতে তেলের প্রকল্প চায় কেন্দ্র, ক্ষতিপূরণের দাবিতে আন্দোলনের পথে তৃণমূল নেতারা!

সরকারি জমিতে তেলের প্রকল্প চায় কেন্দ্র, ক্ষতিপূরণের দাবিতে আন্দোলনের পথে তৃণমূল নেতারা!



আপনাদের সুবিধার্থে খবরের শেষে বিধানসভা ২০২১ উপলক্ষে আমাদের করা সর্বশেষ সমীক্ষার প্রতিটির লিঙ্ক দেওয়া আছে।

আপনার মতামত জানান -

প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – কিছুদিন আগেই উত্তর 24 পরগনার অশোকনগরে তেল প্রকল্পকে কেন্দ্র করে ক্ষতিপূরণ এবং কর্মসংস্থানের দাবিতে বেশ কিছু মানুষ বিক্ষোভ দেখিয়েছিলেন। যেখানে তৃণমূল নেতারা সেই বিক্ষোভে সাথ দিয়েছিলেন। তবে এবার সেই বিক্ষোভকারীদের প্রকল্পের গুরুত্ব বোঝাতে পাল্টা পথে নামল সিপিএম। স্বাভাবিক ভাবেই এই গোটা ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

বস্তুত, ওএনজিসির তরফে অশোকনগরে তেল এবং গ্যাসের সন্ধান পাওয়া গেছে। বর্তমানে বাণিজ্যিকভাবে তা উত্তোলনের তৎপরতা শুরু হয়েছে। তবে এর জন্য যে 12 একর জমি প্রয়োজন, সেই জমিতে চাষ হয়। তাই সেই জমি নিতে গেলে সেখানকার বাসিন্দাদের কর্মসংস্থানের দাবি রয়েছে। ইতিমধ্যে এই ঘটনায় বাসিন্দাদের পাশে থেকে সেই একই দাবি জানিয়েছেন তৃণমূলের নেতা এবং প্রাক্তন পুরপ্রধান।

কিন্তু এবার বাসিন্দাদের পাল্টা বোঝাতে এবং সেই তেল প্রকল্প যাতে বাস্তবে রূপায়িত হয়, তার জন্য ময়দানে নেমে পড়ল সিপিএম। প্রসঙ্গত, বিগত দিনের সিঙ্গুরে টাটাদের শিল্প প্রকল্প ঘিরে ব্যাপক শোরগোল তৈরি হয়েছিল। যেখানে জোর করে কৃষকদের কাছ থেকে জমি কেড়ে নিয়ে শিল্প করার অভিযোগ উঠেছিল তৎকালীন বাম সরকারের বিরুদ্ধে।

আর এরপর থেকেই ধীরে ধীরে ক্ষমতাচ্যুত হতে শুরু করে বামফ্রন্ট। যার ফলস্বরুপ সিঙ্গুর আন্দোলনের মধ্য দিয়ে রাজ্যে 2011 সালে ক্ষমতায় আসে তৃণমূল কংগ্রেস। তবে তারা যেমন ক্ষমতা থেকে বিদায় নেওয়ার পরেও শিল্পের পক্ষে ছিলেন, তাই এবার এই তেল প্রকল্পকে কেন্দ্র করে একাংশ নানা দাবি জানালেও, যাতে সেখানে সেই শিল্প গড়ে ওঠে, তার জন্য পথে নামল মার্কসবাদী কমিউনিস্ট পার্টি।

অর্থাৎ সিপিএম নিজেদের এই উদ্যোগের মধ্যে দিয়ে বোঝানোর চেষ্টা করল যে, তারা শিল্পের পক্ষে। আর তাই এই অঞ্চলের শিল্প করার উদ্যোগ তৈরি হয়েছে, তাতে তারা সহমত পোষণ করছেন। স্বাভাবিক ভাবেই সিপিএম এই অবস্থান নিয়ে বাংলার মানুষের মনে নিজেদের গঠনগত উপস্থিতি প্রতিষ্ঠা করার চেষ্টা করলেন বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।


দেশে যে কোনো দিন ব্যান হয়ে যেতে পারে হোয়াটস্যাপ। তাই এখন থেকে আমরা শুধুমাত্র টেলিগ্রাম ও সিগন্যাল অ্যাপে। প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার নিউজ নিয়মিতভাবে পেতে যোগ দিন –

টেলিগ্রাম গ্রূপটাচ করুন এখানে

সিগন্যাল গ্রূপটাচ করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

সূত্রের খবর, বুধবার বিকেলে সিপিএমের অশোকনগর এরিয়া কমিটির সম্পাদক সত্যসেবী করের নেতৃত্বে সিপিএমের বেশকিছু কর্মী-সমর্থক এই প্রকল্প সংলগ্ন এলাকায় পৌঁছন। যেখানে সাধারন মানুষের সঙ্গে কথা বলেন তারা। সিপিএমের পক্ষ থেকে বাসিন্দাদের বোঝানো হয়, আলোচনার মাধ্যমে গোটা সমস্যার সমাধান করা হবে। আর সিপিএম যখন সাধারন মানুষকে শিল্পের গুরুত্ব বুঝিয়েছে, তখন অনেকেই সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। এলাকার বাসিন্দারা বলেন, “আর অবরোধ করবো না। আমরা চাই এখানে প্রকল্প হোক আলোচনার মাধ্যমে ক্ষতিপূরণের দাবি করব।”

অর্থাৎ কেন্দ্রের পক্ষ থেকে বড় প্রকল্প করার উদ্যোগ নেওয়া হলেও, যেভাবে ক্ষতিপূরণের দাবি তুলে তৃণমূল বাসিন্দাদের একাংশকে নিয়ে বিক্ষোভ নেমে পড়েছিল, তাতে শোরগোল পড়ে গিয়েছিল। কিন্তু এবার সিপিএম নেতৃত্ব শিল্পের গুরুত্ব বুঝে এলাকার মানুষদের ক্ষোভ নিরসনের চেষ্টা করল।  যার ফলে সাধারণ মানুষের ক্ষোভ যেমন দূরীভূত হল, ঠিক তেমনই শিল্পের গুরুত্ব সিপিএমের পক্ষ থেকে তুলে ধরে বাংলার মানুষের কাছে নিজেদের শিল্পদরদী ভাবমূর্তি প্রতিষ্ঠা করার চেষ্টা করল মার্কসবাদী কমিউনিস্ট পার্টি বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। সব মিলিয়ে গোটা পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

 

একনজরে দেখে নিন আমাদের সর্বশেষ বিধানসভা ২০২১ ওপিনিয়ন পোল –

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – দ্বিতীয় পর্ব – 

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – প্রথম পর্ব – 

# মালদহ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# উত্তর দিনাজপুরে জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# জলপাইগুড়ি ও কালিম্পঙ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# আলিপুরদুয়ার ও দার্জিলিং জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# কুচবিহার জেলার ওপিনিয়ন পোল –

আপনার মতামত জানান -
আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!