এখন পড়ছেন
হোম > অন্যান্য > সোনু সুদের মুকুটে যুক্ত হল আরো একটি কৃতিত্বের পালক।

সোনু সুদের মুকুটে যুক্ত হল আরো একটি কৃতিত্বের পালক।



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – লকডাউনের সময় আপামোর দুঃখী মানুষদের মসীহ হয়ে উঠেছিলেন জনপ্রিয় বলিউড অভিনেতা সোনু সুদ। গরীব মানুষের উপকার করেই সকলের মন জয় করে নিয়েছিলেন তিনি। রিল লাইফে ভিলেন হলেও রিয়াল লাইফে যে তিনি একজন সমাজসেবক থেকে শুরু করে অসাধারণ মনের পরিচায়ক, গোটা লকডাউনের সময়টায় তাঁর নানা কাজে সেটা প্রমাণ পেয়েছে দেশবাসী।

নিজের এই মসিহ হয়ে ওঠা নিয়ে সম্প্রতি ‘আমি কোনও মশীহ নই’ শীর্ষক একটি বইও প্রকাশ করেছেন তিনি। একটি আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে সাক্ষাৎকারে সোনু সুদ জানিয়েছিলেন যে পুরষ্কার পাবেন এই কথা ভেবে তিনি কখনই মানুষকে সাহায্য করা শুরু করেননি। তাঁর কথায়, তাঁর বাবা-মা তাঁকে সবসময় দরিদ্রদের সাহায্য করার জন্য শিখিয়েছিলেন এবং তিনি কেবল সেটাই করেছেন।

সেইসঙ্গে অন্যকেও একই কাজ করার জন্য তিনি অনুরোধ করেছিলেন। সেইসঙ্গে লকডাউন চলাকালীন মানুষকে সাহায্য করার জন্য তিনি সম্প্রতি ‘পার্সোনালিটি অফ দ্য ইয়ার’ পুরষ্কারও পেয়েছেন। সর্বোপরি নিজের কাজের মধ্যে দিয়েই সকলের সামনে তিনি আইডল হয়ে উঠেছিলেন। যদিও এরই মধ্যে তেলেঙ্গানার দুব্বা টান্ডা গ্রামে অভিনেতার জন্য একটি মন্দির তৈরি করা হয়েছে বলে জানা গিয়েছিল। আর সেই মন্দিরে নাকি সোনু সুদের একটি প্রতিমা রয়েছে বলেও জানা যায়। তবে এবার তার সেই মুকুটে আরেকটি পালক যুক্ত হয়েছে।


ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

জানা গেছে, সম্প্রতি তাঁর নামে অন্ধ্রপ্রদেশ এবং তেলেঙ্গানায় অ্যাম্বুলেন্স পরিষেবা চালু করা হয়েছে। সোনু সুদ অ্যাম্বুলেন্স পরিষেবা নামের এই কাজের মাধ্যমে অভাবী রোগীদের সহায়তা করা হবে বলে জানানো হয়েছে। যেখানে পয়সার অভাবের কারণে মানুষেরা চিকিৎসার খরচ বহন করতে পারেন না, সেখানে তাদের জন্য অ্যাম্বুলেন্স পরিষেবা কার্যকর হবে বলে জানানো হয়েছে। বস্তুত, এই অ্যাম্বুলেন্স পরিষেবা চালু করেছেন একজন সাঁতারু। যিনি এখনো পর্যন্ত ১০০ জনেরও বেশি মানুষকে আত্মহত্যা করতে চেয়ে ডুবে যাওয়া থেকে রক্ষা করেছেন।

তাঁরই শুরু করা এই পরিষেবার নাম হয়েছে সোনু সুদ অ্যাম্বুলেন্স পরিষেবা। এই বিষয়ে কথা বলতে গিয়ে অভিনেতা জানিয়েছেন, তিনি যখন হায়দ্রাবাদে সিনেমার জন্য শুটিং করছিলেন, সেইসময় এমন অনেক মানুষের সঙ্গেই তাঁর দেখা হয়েছিল, যাদের চিকিৎসা করা প্রয়োজন থাকলেও পয়সার অভাবে তারা সেই চিকিৎসার ভার বহন করতে পারছিলেন না। তাই এই ব্যবস্থাপনায় তিনি যথেষ্ট খুশি হয়েছেন বলেই জানিয়েছেন। তাঁর কথায় এই পরিষেবা অভাবী মানুষদের যথেষ্ট সাহায্য করবে বলেই মনে করেছেন তিনি। সেই সঙ্গে এই ভাবেই নিজের কর্মের মাধ্যমে মানুষ যে অমর হয়ে থাকে, সেই কথাই বলতে শোনা গেছে তাঁকে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!