এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > ‘শিলিগুড়ি-মডেলে’ রাজ্য-রাজনীতির মোড় ঘুরিয়েও ব্রাত্য অশোক ভট্টাচার্য, বাড়ছে জল্পনা

‘শিলিগুড়ি-মডেলে’ রাজ্য-রাজনীতির মোড় ঘুরিয়েও ব্রাত্য অশোক ভট্টাচার্য, বাড়ছে জল্পনা



হায়দ্রাবাদে পার্টি কংগ্রেসে এবারের স্বস্তির আবহে বঙ্গ বিগ্রেডের জন্য অস্বস্তি শিলিগুড়ির বিধায়ক তথা মেয়র অশোক ভট্টাচার্যের প্রতি ‘অবিচারের কাঁটা’।বাংলা সিপিএমের পুরানো রাজ্য সম্পাদকমন্ডলীর তিনজন যেমন সুজন চক্রবর্তী রবীন দেব ও অমিয় পাত্র হায়দ্রাবাদেরর নতুন কমিটিতে ছিলেন।নাম ছিল না অশোকবাবুর শুধু।তার স্থানে চতুর্থ সদস্য হিসাবে দলে অন্তর্ভূক্ত করা হয় বর্ধমানের আভাস রায়চৌধুরীকে।এটি কেন্দ্রীয় ও রাজ্য স্তরের অন্যতম বড় চমক এনে দেয়।
রাজনৈতিক সূত্রের খবর,পার্টি কংগ্রেসে গৃহীত বাংলার লাইন উঠে এসেছিলো শিলিগুড়ি থেকে।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

অথচ ‘শিলিগুড়ি মডেল’ এর নেপথ্যে থাকা অশোকবাবুরই যায়গা মেলেনি সিপিএম এর নতুন কেন্দ্রীয় কমিটিতে।পার্টি কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক স্বয়ং সীতারাম ইয়েচুরি পর্যন্ত মেনে নিয়েছেন যে নতুন কমিটি তৈরির সময় সকলের প্রতি ‘ সুবিচার’ হয়নি।বিশেষত, নতুন পলিটব্যুরোয় সাওয়ালে যোগ্য দাবিদার ছিলেন বলেই ইয়েচুরি মনে করেন। তবে রাজনৈতিক লাইন ঘিরে দলের মধ্যে তীব্র সংঘাত পেরিয়ে শেষ পর্যন্ত সহমতে পৌঁছনোর পার্টি কংগ্রেসে নতুন কমিটি নিয়ে আর বেশি যুদ্ধে জড়াতে চাননি তিনি।
সিপিএমের রাজ্য কমিটির এক সদস্য জানিয়েছেন, ”তৃণমূলকে যে হারানো যায়, কংগ্রেস-সহ সব গণতান্ত্রিক শক্তিকে পাশে নিয়ে শিলিগুড়িই সেটা প্রথম দেখিয়েছিল। বিরোধীদের হাতে থাকা একের পর এক পঞ্চায়েত ও পুরসভা যখন শাসকের কাছে আত্মসমর্পণ করছে, সেই সময়ে শিলিগুড়ি পুরসভা ও মহকুমা পরিষদ লাল ঝান্ডা শক্ত করে ধরে রেখেছে! এর পরে অশোকদা কেন্দ্রীয় কমিটিতে গেলে এই লড়াই মর্যাদা পেত, উত্তরবঙ্গের মানুষের কাছেও ভাল বার্তা যেত।” টানা ১২ বছর যুব সংগঠনের সর্বভারতীয় সম্পাদক থাকা তাপস সিংহ এ বারও কেন কেন্দ্রীয় কমিটিতে নেই,তাই প্রশ্ন উঠেছে ভিন্ রাজ্যের কিছু নেতাদের তরফ থেকে, পার্টি কংগ্রেসের সীমানার বাইরেই।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!