এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > জোর করে ভয় দেখিয়ে মাস্টারমশাইদের প্রচারের কাজে নামাচ্ছে তৃণমূল, বিস্ফোরক বিরোধীরা

জোর করে ভয় দেখিয়ে মাস্টারমশাইদের প্রচারের কাজে নামাচ্ছে তৃণমূল, বিস্ফোরক বিরোধীরা



আপনাদের সুবিধার্থে খবরের শেষে বিধানসভা ২০২১ উপলক্ষে আমাদের করা সর্বশেষ সমীক্ষার প্রতিটির লিঙ্ক দেওয়া আছে।

আপনার মতামত জানান -

প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – একদিকে যেখানে তৃণমূলের অন্দরে প্রশান্ত কিশোরকে নিয়ে গোষ্ঠী দ্বন্দ্বের আভাস পাওয়া গেছে, সেখানে তাঁরই নতুন পরিকল্পনায় সায় দিয়ে তৃণমূল দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে নতুন পরিকল্পনা নিয়ে দেখা গেছে। যা নিয়ে ইতিমধ্যেই রাজনৈতিক মহলে জল্পনা শুরু হয়েছে। জানা গেছে একুশের বিধানসভা ভোটে নিজেদের ক্ষমতা কায়েম রাখতে ভোট প্রচারে ৬০ হাজার শিক্ষকদের কাজে লাগাতে চাইছে তৃণমূল।

আর এই গোটা অভিযানের নেতৃত্বে তৃণমূল প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি থাকবে বলেই জানা গেছে। অন্যদিকে, এই বিষয়ে নাকি অনেক শিক্ষকই অভিযোগ করেছেন ইচ্ছা না থাকলেও বদলীর ভয় দেখিয়েই নাকি, ভোট প্রচারে যাবার জন্য তাঁদের বাধ্য করা হচ্ছে তাঁদের। আর এই নিয়েই তৃণমূলের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলেছে বাম বিরোধীরা।

বিশ্লেষকদের মতে, কর্পোরেট মার্কেটিংয়ের কায়দাতেই রাজ্যের শাসক দল প্রচার করতে চাইছে। আর তাই বিধানসভা ভোটের প্রচারে ৬০ হাজার শিক্ষককে নিয়ে ১২ হাজার দল তৈরি করা হয়েছে বলে জানা গেছে। সেইসঙ্গে প্রতি দলে পাঁচজন করে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ করা হয়েছে বলে জানা গেছে।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

আর এই নতুন অভিযানেরই নাম দেওয়া হয়েছে, ‘চলুন মাস্টারমশাই ঘুরি বাড়ি বাড়ি’। জানা গেছে, তৃণমূল ভবনে দলের মহাসচিব তথা রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় এই অভিযানের সূচনা করবেন। সেইসঙ্গে এই গোটা অভিযানের নেতৃত্ব দেবে তৃণমূল প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি। রাজ্যের প্রত্যেক জেলার প্রত্যেক পঞ্চায়েতে প্রাথমিক শিক্ষকদের নিয়ে এই দল গঠন করা হচ্ছে বলে জানা গেছে।

এই অভিযানে রাজ্য সরকারের ৬৪টি মানবিক প্রকল্প সম্বলিত একটি পুস্তিকা মানুষের বাড়ি-বাড়ি বিনামূল্যে বিতরণ করতেই শিক্ষকদের কাজে লাগানো হবে বলেই জানান হয়েছে। সেইসঙ্গে তাঁদেরকে সাধারণ মানুষকে মমতা সরকারের কাজ বোঝানোর দায়িত্ব দেওয়া হবে বলেও জানা গেছে। এই বিষয়ে তৃণমূলের তরফে জানানো হয়েছে, ২০১১ সালের পর থেকে, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যত মানবিক প্রকল্প ঘোষণা করেছেন; তা নিয়ে বাড়ি বাড়ি গিয়ে আলোচনা করা হবে।

সেইসঙ্গে গ্রামে গ্রামে ঘুরে সাধারণ মানুষের মনের কথা জানা হবে। সেইসঙ্গে অভাব অনটনের কথা তৃণমূল ভবনে রিপোর্ট আকারে দিতে হবে বলেও জানা গেছে। যা দেখে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন বলেও জানান হয়েছে। আর এক্ষেত্রে সরকারি স্কুলের শিক্ষকরা, কেন তৃণমূলের হয়ে প্রচার করবেন, সেই নিয়ে প্রশ্ন উঠতে দেখা গেছে।

আর এই বিষয়ে বিজেপি জানিয়েছে, বস্তুত, বদলীর ভয় দেখিয়ে জোর করে শিক্ষকদের ভোট প্রচারে কাজে লাগানো হচ্ছে। অন্যদিকে, এক সিপিএম নেতারা কথায়, জোর করে চাকরির ভয় দেখিয়ে, শিক্ষকদের প্রচারে নামানো গেলেও ভোট পাওয়া যাবে না বলেই মনে করেছেন তিনি। তবে, বিরোধীদের এই অভিযোগের জবাবে তৃণমূল জানিয়েছে যে, তৃণমূল প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সদস্যরা নিজের ইচ্ছাতেই দলের হয়ে প্রচার করতে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

একনজরে দেখে নিন আমাদের সর্বশেষ বিধানসভা ২০২১ ওপিনিয়ন পোল –

# মালদহ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# উত্তর দিনাজপুরে জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# জলপাইগুড়ি ও কালিম্পঙ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# আলিপুরদুয়ার ও দার্জিলিং জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# কুচবিহার জেলার ওপিনিয়ন পোল –

আপনার মতামত জানান -
আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!