এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > শুভেন্দুর ‘একলা চলো’ নীতিতে তীব্র অস্বস্তি তৃণমূলে? কড়া নির্দেশ খোদ মমতার? শুরু তীব্র জল্পনা

শুভেন্দুর ‘একলা চলো’ নীতিতে তীব্র অস্বস্তি তৃণমূলে? কড়া নির্দেশ খোদ মমতার? শুরু তীব্র জল্পনা



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – তৃণমূল দলের সাংগঠনিক রদবদলের ফলে দলের পর্যবেক্ষক পথটি বিলুপ্ত করে দেয়া হয়েছে, এরফলে কিছুটা ডানা ছাটা হয়েছে রাজ্যের পরিবহনমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীর। এমনটাই রাজনৈতিক মহলের ধারণা। এরসঙ্গেই বেশকিছু কারণে তৃণমূল দলে তিনি কিছুটা কোণঠাসা হয়ে পড়েছেন। দলের একসময়ের দোর্দণ্ডপ্রতাপ নেতা শুভেন্দু অধিকারী সম্প্রতি যেমন তিনি কিছুটা বিরাগভাজন হয়েছেন দলের কাছে, সেইসঙ্গে তিনি নিজেও কিছুটা দূরত্ব রেখে চলছেন দলের সঙ্গে।

তবে, তিনি এখনো দল পরিবর্তন করেননি বা করবেন এরকমও কিছু বলেননি। তবুও শুভেন্দু অধিকারীর বর্তমান কার্যকলাপকে কিছুটা যেন সন্দেহের চোখে দেখছে তার দল। প্রসঙ্গত নন্দীগ্রামের ‘মেজদা’ বলে পরিচিত শুভেন্দু অধিকারী সম্প্রতি যেন একলা চলার নীতি গ্রহণ করেছেন।

কিন্তু আগামী বিধানসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে তখন তাঁর দল গোছাতে ব্যস্ত, সে সময় দলকে সঠিক ভাবে না জানিয়েই চুপিসারে শুভেন্দু অধিকারীর স্বতন্ত্র থাকার নীতি দল যে সন্দেহের চোখে দেখছে তারই প্রমান পাওয়া গেল তাঁর প্রতি দলের সাম্প্রতিক করা একটি বার্তায়।

প্রসঙ্গত বিশ্ব আদিবাসী দিবস সেইসঙ্গে ভারতছাড়ো আন্দোলনের বর্ষপূর্তির বেশকিছু অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত হয়েছিলেন পরিবহনমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী।আর  এই কারণেই ঝাড়গ্রামে একটি সরকারি অনুষ্ঠানের আমন্ত্রণ তাকে ফিরিয়ে দিতে হয়েছিল। ঝাড়গ্রামের পিয়ালগেড়িয়া ফুটবল ময়দানে বিশ্ব আদিবাসী দিবসের অনুষ্ঠানে অনুষ্ঠান মঞ্চ থেকে সরকারি অনুষ্ঠানে নিজের অনুপস্থিতির কারণে ক্ষমাপ্রার্থীও হয়েছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। কিন্তু এরপর থেকেই নিজের দলকে তিনি কেমন যেন একটা ধোঁয়াশায় রেখে চলেছেন।


ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

প্রসঙ্গত হুল দিবস এবং আদিবাসী দিবসের পরপর দুটি অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন তৃণমূল দলের মহাসচিব তথা রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। অভিযোগ উঠেছে, বেছে বেছে এই দুটি অনুষ্ঠান মঞ্চেই অনুপস্থিত ছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। অন্যদিকে গত রবিবার মহিষাদল স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্বকে অজ্ঞাত রেখেই শুভেন্দু অধিকারী মহিষাদল শহিদ বেদিতে শ্রদ্ধার্ঘ্য নিবেদন করতে গিয়েছিলেন।

সূত্র থেকে জানা গেছে তৃণমূল দলের নেতা থেকে শুরু করে পঞ্চায়েত প্রতিনিধি এমনকি তৃণমূল দলের জনপ্রতিনিধি কাউকে না জানিয়েই পরিবহন মন্ত্রীকে গেলেন তাঁর শ্রদ্ধার্ঘ্য নিবেদন কার্যে। সঙ্গে নিলেন না কোন তৃণমূল নেতাকে। শুভেন্দু অধিকারীর এরকম কাজ তার দলের কাছে অত্যন্ত বিরল এ কারণেই শুভেন্দু অধিকারী কে নিয়ে যথেষ্ট অস্বস্তি ও দুশ্চিন্তায় পড়েছে তৃণমূল দল

এ কারণে শুভেন্দু অধিকারীকে বড়োসড়ো সতর্কবার্তা দেওয়া হলো তৃণমূলের তরফ থেকে। তৃণমূলের তরফ থেকে শুভেন্দু অধিকারী স্পষ্টভাবে জানিয়ে দেয়া হয়েছে যে, এখন থেকে দল ও সরকারের সমস্ত অনুষ্ঠানে আবশ্যিকভাবে তাঁকে হাজির থাকতে হবে। কারণ, রাজ্যের একজন গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রীর পদ তিনি অধিকার করে আছেন।

সংবাদসূত্রের খবর মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শুভেন্দু অধিকারী কে জানিয়ে দিলেন যে, তিনি যেন যথাযথভাবে নিজের মন্ত্রীত্বের সমস্ত দায়িত্ব ও কর্তব্য সুচারু ভাবে পালন করেন। খোদ মুখ্যমন্ত্রীর তরফ থেকে শুভেন্দু অধিকারীর প্রতি এই বার্তাটি অত্যন্ত তাৎপর্যবাহী বলেই রাজনৈতিক মহলের ধারণা। মুখ্যপমন্ত্রীর কাছে থেকে পাওয়া এমন নির্দেশের পর শুভেন্দু অধিকারী আগামী দিনে কি করতে চলেছেন সে দিকেই নজর রাজনৈতিক মহলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!