এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > স্কুলে পুলিশের গুলিতে ছাত্রদের মৃত্যু, প্রতিবাদে ‘শিক্ষক ঐক্য মুক্ত মঞ্চ’ নিলো একগুচ্ছ প্রতিবাদ কর্মসূচি

স্কুলে পুলিশের গুলিতে ছাত্রদের মৃত্যু, প্রতিবাদে ‘শিক্ষক ঐক্য মুক্ত মঞ্চ’ নিলো একগুচ্ছ প্রতিবাদ কর্মসূচি



স্কুলে পুলিশের গুলিতে ছাত্রদের মৃত্যু, প্রতিবাদে ‘শিক্ষক ঐক্য মুক্ত মঞ্চ’ নিলো একগুচ্ছ প্রতিবাদ কর্মসূচি। উত্তর দিনাজপুরের ইসলামপুর ব্লকের ছাত্র আন্দোলনকে ঘিরে অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতি তৈরী হয় দাড়িভিট হাইস্কুলে। বাংলা মাধ্যমের শিক্ষক নিয়োগের দাবী তুলে স্কুলের ছাত্ররা বিক্ষোভ করলে পুলিশের লাঠিচার্জ ও গুলি চালানোর ঘটনায় পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে।কয়েকজন প্রাক্তন ছাত্রের মৃত্যুও হয়েছে পুলিশের গুলিতে।

কিন্তু কি কারণে এই অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতি হলো দাড়িভিট স্কুল?
জানা যাচ্ছে ওই স্কুলে বাংলা মাধ্যমে শিক্ষক কম থাকার দীর্ঘদিন ধরেই পড়াশুনোতে ব্যাঘাত ঘটছে। তাই বেশ কয়েকবার বাংলা মাধ্যমের শিক্ষক নিয়োগের দাবী জানানো হচ্ছিল। কর্তৃপক্ষ তাদের দাবী মেনে নেবে এমনটাই প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলো। কিন্তু এদিন প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করে বাংলার বদলে উর্দু এবং হিন্দি শিক্ষক নিয়োগ করতে গেলে ধৈর্যের বাঁধ ভাঙে পড়ুয়াদের। আন্দোলনে পথে নামেন ছাত্রছাত্রীরা। স্কুলের গেটেই তালা ঝুলিয়ে দেয় তারা।পাশাপাশি স্থানীয় পথ অবরোধ করে তারা।

স্কুলের প্রধান তালা ভেঙে ভেতরে ঢোকার চেষ্টা করলে তাতে মদত দেয় ইসলামপুর থানার পুলিশ। বিক্ষোভকারীদের কোনো অনুরোধেই কর্ণপাত করেনি পুলিশ। এরপর পুলিশ তালা ভাঙতে গেলে ছাত্র-পুলিশে ধস্তাধস্তি শুরু হয়। উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ছাত্রদের মারধোর শুরু করলে স্থানীয়রা পুলিশকে লক্ষ্য করে পাথর, ইট ছুঁড়তে শুরু করে। ভাঙচুর হয় স্কুলের
আসবাব,দরজা,মটরবাইক। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ প্রথম কাঁদানে গ্যাস ছোঁড়ে। তাতেও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না এলে বাধ্য হয়ে গুলি চালাতে শুরু করে তারা।এর ফলে কয়েকজন ছাত্র গুলিবিদ্ধ হয়। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথেই মৃত্যু হয় স্কুলের প্রাক্তণ ছাত্র রাজেশ সরকারের (১৯), পরে মারা যায় তাপস বর্মন ১৭, আশঙ্কাজনক অবস্থায় রয়েছেন বাড়িদ চৌধুরী নামে আর এক ছাত্র।

কিন্তু প্রশ্ন একটাই যে একটা ছাত্রদের বিক্ষোভ মেটাতে কি প্রশাসন এতটাই ব্যর্থ যে গুলি চালিয়ে তাদের মুখ বন্ধ রাখতে হবে ?এই নিন্দনীয় ঘটনার প্রতিবাদে গর্জে উঠেছে সব মহল। পিছিয়ে নেই ‘শিক্ষক ঐক্য মুক্ত মঞ্চ’ও। এই ঘটনার প্রতিবাদে নিহতদের পরিবারের পাশে আর্থিক ভাবে দাঁড়ানো থেকে আইনি লড়াই ও সমস্ত রকম ভাবে সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে ‘শিক্ষক ঐক্য মুক্ত মঞ্চ’ ।

এই নিয়ে ‘শিক্ষক ঐক্য মুক্ত মঞ্চ’-র মইদুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান যে ওই নিহত ছাত্রদের পরিবারের পাশে তাঁরা আছেন। এর জন্য আগামী সোমবার ‘শিক্ষক ঐক্য মুক্ত মঞ্চ’-র একটি প্রতিনিধি দল যাচ্ছেন ইসলামপুর। সেই প্রতিনিধিদলে আছেন মইদুল ইসলাম,অশোক কুমার সুর,জয়ন্ত মুখার্জি,শাশ্বত ঘোষ প্রমুখ।সাথেই যাচ্ছেন কবি মন্দাক্রান্তা সেন। সেখানে গিয়ে নিহত ছাত্রদের পরিবারের হাতে কিছু আর্থিক সাহায্যের পাশাপাশি আইনি লড়াই ও রাস্তার লড়াইয়ে সব রকমের সাহায্য করার কথা জানাবেন। আর আটকে পক্ষ থেকে যত কিছু করা সম্ভব তা করবেন। সাথেই ওই স্কুলে দেখা করে সেখানকার পরিবেশকে ফের যাতে সুস্থ স্বাভাবিক করা যায় তার জন্যও কথা বার্তা বললেন এবং সমস্ত প্রকার সাহায্য করবেন স্কুলে পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে। এছাড়াও উত্তর দিনাজপুরের এসপির কাছে ‘শিক্ষক ঐক্য মুক্ত মঞ্চ’-র পক্ষ থেকে একটি ডেপুটেশন জমা দেওয়া হবে যাতে আসামিদের দ্রুত চিহ্নিত করে তাদেরকে শাস্তি দেওয়া হয়।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

অন্যদিকে ওই ঘটনায় ওই স্কুলেরই রাষ্ট্রবিজ্ঞানের শিক্ষক আশারুল হক্ -এর মাথায় চোট লাগে বর্তমানে তিনি হাসপাতালে ভর্তি আছেন। তাঁর সিটি স্ক্যান হয়েছেন। মঈদুলবাবু জানান যে ওই আহত শিক্ষকের সাথেও তাঁর কথা হয়েছে। তাঁর সাথেও দেখা করা ও তাঁর পাশে দাঁড়ানোর পরিকল্পনা করছে ‘শিক্ষক ঐক্য মুক্ত মঞ্চ’। ‘শিক্ষক ঐক্য মুক্ত মঞ্চ’-র এই প্রয়াসকে সাধুবাদ জানিয়েছেন সমস্ত শিক্ষকমহল সমেত রাজনৈতিকমল।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!