এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > বিজেপি > শাসকদল তৃণমূলের ‘দুয়ারে দুয়ারে সরকারকে’ তীব্র কটাক্ষ দিলীপ ঘোষের

শাসকদল তৃণমূলের ‘দুয়ারে দুয়ারে সরকারকে’ তীব্র কটাক্ষ দিলীপ ঘোষের



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – যতই এগিয়ে আসছে আগামী ২০২১ এর বিধানসভা নির্বাচন, ততোই রাজ্যের শাসক-বিরোধী তরজা প্রবল হয়ে উঠেছে। আজ এক জনসভাতে বক্তব্য রাখার সময় রাজ্যসরকারের ‘দুয়ারে দুয়ারে সরকার’ কর্মসূচিকে ‘যমের দুয়ারে তৃণমূল সরকার’ বলে কটাক্ষ করলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তিনি অভিযোগ করেছেন যে, একসময় অন্যের বাড়ি ভেঙে বাড়ি বানিয়েছিল তৃণমূল। এখন সেই বাড়ি ভেঙে দিচ্ছে বিজেপি।

সম্প্রতি তৃণমূলে চলছে ভাঙ্গন পর্ব। তৃণমূলের একাধিক নেতা, বিধায়ক তৃণমূল ছাড়তে শুরু করেছেন। তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করেছেন কোচবিহার দক্ষিণের বিধায়ক মিহির গোস্বামী। সম্প্রতি শুভেন্দু অধিকারী, শীলভদ্র দত্ত প্রমুখের বিজেপিতে যোগদানের জল্পনা তীব্র। এ প্রসঙ্গে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ জানালেন যে, তৃণমূলের অত্যাচার থেকে বাঁচতে বহু মানুষ যোগদান করছেন বিজেপিতে। তৃণমূলের যে নেতাদের সকালে বোঝানো হচ্চে, বিকেলে তারাই তৃণমূল ছেড়ে চলে যাচ্ছেন। এ কারণে তৃণমূল সরকারকে ‘যমের দুয়ারে তৃণমূল সরকার’ বলে কটাক্ষ করেছেন তিনি।

এর সঙ্গে সঙ্গেই বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ জানালেন যে, এক সময় অন্যের বাড়ি ভেঙে বাড়ি বানিয়েছিল তৃণমূল, এখন সেই বাড়ি ভাঙছে বিজেপি। তিনি অভিযোগ করেছেন যে, বিজেপির নেতা কর্মীদের একসময় তুলে নিয়ে গিয়ে, জোর করে তাদের তৃণমূলের পতাকা দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু এখন তৃণমূলের লোকেরা দলে দলে যোগদান করছেন বিজেপিতে। এটাই বিজেপির বদলা। এর জন্য মারধর করতে হয় না। তিনি জানালেন যে, বাংলায় বদল যেমন হবে, তেমনি বদলাও হবে।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

এরপর রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে একাধিক ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন তিনি। তিনি অভিযোগ করেছেন রাজ্য সরকারের সিদ্ধান্তের কারণে কেন্দ্রীয় প্রকল্পর সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয়েছে রাজ্যবাসী। তিনি অভিযোগ করেছেন যে, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্যই কেন্দ্রীয় সরকারের আয়ুষ্মান ভারত প্রকল্প থেকে রাজ্যবাসী বঞ্চিত। যতদিন না মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শাসন ক্ষমতা থেকে অপসারিত হচ্ছেন , ততদিন কেন্দ্রীয় প্রকল্পের টাকা এ রাজ্যে ঢুকতে পারবে না বলে জানালেন তিনি।

কৃষক আন্দোলন নিয়েও বক্তব্য রাখলেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। এ প্রসঙ্গে তিনি জানালেন যে, দেশের কৃষকরা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গেই আছেন মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে তাঁরা নেই। তিনি অভিযোগ করেছেন যে, কৃষকেরা এতদিন ধরে শোষণের শিকার ছিলেন। কৃষকদের স্বার্থের কথা চিন্তা করেই নতুন কৃষি আইন প্রবর্তন করেছে কেন্দ্রীয় সরকার।

বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ অভিযোগ করেছেন যে, ৫ টাকা কেজি দরে আলু কিনে এনে তা ৪৫ টাকায় বিক্রি করছে রাজ্য সরকার। তিনি অভিযোগ করেছেন যে, আলু পিয়াজ এগুলির থেকেও কাটমানি নিচ্ছে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল। এদেশের কৃষকরা নয়া কৃষি আইনের পক্ষে আছেন, এর একমাত্র বিপক্ষে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, দাবি করলেন তিনি।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!