এখন পড়ছেন
হোম > অন্যান্য > স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে মিলনে অনীহা বাড়ছে? ক্রমশ ডুবে যাচ্ছেন বিষাদে? সহজে মুক্তি পাওয়ার উপায়!

স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে মিলনে অনীহা বাড়ছে? ক্রমশ ডুবে যাচ্ছেন বিষাদে? সহজে মুক্তি পাওয়ার উপায়!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট- মানুষের জীবনে শারীরিক মিলনের যে একটা গুরুত্ব আছে, সেটা প্রায় সকলেই স্বীকার করে নেবেন। শুধু মাত্র সন্তান উৎপাদনের জন্যই নয়, ব্যক্তিগত জীবনে নিজের জীবন সঙ্গীকে খুশি করতে এবং নিজে খুশি থাকতেও শারীরিক মিলনের প্রয়োজন লক্ষ্য করা যায়। ডাক্তারদের মতে, শারীরিক মিলনের ফলে মন ভালো থাকে, কাজে মন লাগে এবং দাম্পত্য সম্পর্ককে এগিয়ে নিয়ে যেতে সুবিধে হয়। কিন্তু চিকিৎসকদের মতে এমন অনেক ঘটনা সম্পর্কে তাঁরা জানতে পারেন যেখানে শারীরিক সম্পর্ক ভালো না হওয়ায় অনেক সমস্যার সৃষ্টি হয়, এমনকি বিবাহ বিচ্ছেদ পর্যন্ত ঘটতে পারে বলেও জানা যায়।

বস্তুত, চিকিৎসকদের মতে দেখা যায় স্বামী স্ত্রীর মধ্যে একে অপরের সঙ্গে শারীরিক মিলনে অনেকের অনীহা দেখা দেয়। সেক্ষেত্রে অপর মানুষটি নিজেই অস্বস্তিতে পড়েন। আবার কখনও বা জোর করে ঘনিষ্ঠ হতে হয়। আবার কখনও নিজের সমস্যাগুলোকে সেই ব্যক্তি নিজেই অস্বীকার করতে দেখা যায়। তবে পার্টনারের সঙ্গে কেন শারীরিক মিলনে অনীহা রয়েছে সে সম্পর্কে জানতে গিয়ে সামনে এসেছে অনেক গুলো সম্ভাব্য তথ্য। বস্তুত প্রতিটি সম্পর্কই আলাদা। তাই সেই সম্পর্কের চাহিদাও আলাদা। তাই চিকিৎসকদের মতে, শারীরিক মিলনের ক্ষেত্রে অনেক কারণেই সমস্যা দেখা দিতে পারে।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

এক্ষেত্রে সবার প্রথমেই আসে বহু মানুষের লো সেক্স ড্রাইভের কথা। মনে করা হয়, এর কারণেও শারীরিক মিলনে অনীহা দেখা দেয়। ফলে দৈনন্দিন অন্য কাজে উৎসাহ থাকলেও যৌনতার ক্ষেত্রে অনীহা আসে। ফলত পার্টনারের সঙ্গে সম্পর্কের অবনতি হয়। সেক্ষেত্রে সরাসরি চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়ারই পরামর্শ দেওয়া হয়। আর সেক্ষেত্রে আপনার সবার প্রথমে আপনার চাহিদা সম্পর্কে যথেষ্ট ধারণা থাকাটাই জরুরি বলে মনে করা হয়। এর সঙ্গে আরো একটি গুরুত্বপূর্ণ কারণ হল ভয়। স্বাভাবিক ভাবেই সঠিক ধারণা থাকলে ভয় হওয়াটা স্বাভাবিক। সেক্ষেত্রে শারীরিক মিলনের সময় এনজয় না করে ব্যথা পাওয়ার ভয়ে ওই মুহূর্তগুলো কোনও রকমে পেরিয়ে যেতে চান চাইলে সমস্যা দেখা দিতে পারে। তাই শারীরিক মিলন যদি আপনার কাছে ভয়ের কারণ হয়, তা হলে এর সমাধান হিসেবে আপনার পার্টনারের সঙ্গে প্রাথমিক ভাবে কথা বলতে পারেন। সেরকম প্রয়োজন হলে দু’জনেই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতেও পারেন।

জীবনে এখন প্রতিটি মানুষের ব্যস্ততা চরমে। তাই আপনার কর্মব্যস্ততা আপনার শারীরিক মিলনে অনীহার তৈরি করছে কিনা সেই দিকে নজর রাখতে হবে। সারা দিন কাজ নিয়ে ব্যস্ত থাকার পর আপনার পার্টনারের সঙ্গে সময় কাটানোর সময়, আপনি ক্লান্ত হয়ে পড়লে বা পরের দিনের কাজের চিন্তায় ব্যস্ত থাকলেও, আপনার মিলনের ইচ্ছে নষ্ট হয়ে যায় বলে জানা যায়। তাই এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে জীবনে প্রায়োরিটি সেট এবং টাইম ম্যানেজমেন্ট অত্যন্ত জরুরি বলেই মনে করা হয়। এছাড়া ব্যস্ততা মানেই স্ট্রেস। তবে স্ট্রেসের কারণেও আপনার যদি শারীরিক মিলনে সমস্যা দেখা যায়, তাহলেও এই উপায়গুলি অবলম্বন করে দেখা যেতে পারে।

এছাড়া, কোনওরকম শারীরিক অসুস্থতারও প্রভাব যৌন জীবনে পড়তে পারে বলে মনে করা হয়। যার ফলে ফিজিক্যালি ফিট না হলে তা হলে সেই অসুস্থতা আপনার পার্টনারের সঙ্গে শারীরিক মিলনে অনীহা তৈরি করে। তবে এক্ষেত্রে মুক্তি পেতে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে পারেন। শারীরিক অসুস্থতার সঙ্গে মানসিক অসুস্থতাও কিন্তু আপনার যৌন জীবনে প্রভাব ফেলতে পারে বলে মনে করা হয়। এটি বেশি জটিল কারণ, শারীরিক অসুস্থতার বিষয়টা উপর থেকে দেখে বোঝা গেলেও মানুষের মন বোঝা অত সহজ না। অনেক সময়ই বোঝা যায়। কিন্তু মনের অসুস্থতা? মন খারাপ? না! এটা সব সময় বোঝা সম্ভব না। তাই এই পরিস্থিতিকে অবহেলা না করে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতেই পরামর্শ দেওয়া হয়। এছাড়া ওষুধের প্রভাবেও অনেক সময় শারীরিক মিলনে অনীহা দেখা যায়। তবে এগুলি ছাড়াও সেক্সুয়াল ট্রমা বা আপনার অতীতের কোনও খারাপ ঘটনাও আপনাকে পার্টনারের সঙ্গে শারীরিক মিলনের ক্ষেত্রে সহজ বাঁধা দিতে পারে বলে মনে করা হয়। তাই এই বিষয়ে নিজে সচেতন হয়ে অবিলম্বে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতেই বলা হয়।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!