এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > বাংলার স্কুলে সরস্বতী পুজো না হওয়া নিয়ে সংসদে তৃণমূলের অস্বস্তি বাড়ালেন লকেট

বাংলার স্কুলে সরস্বতী পুজো না হওয়া নিয়ে সংসদে তৃণমূলের অস্বস্তি বাড়ালেন লকেট



চলতি বছরে বহু স্কুলে সরস্বতী পুজো হয়নি- এই অভিযোগ তুলে এবার সংসদে দাঁড়িয়ে তৃণমূলের বিরুদ্ধে সরব হলেন বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়। এই ঘটনার বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, পশ্চিমবাংলা ক্রমাগত পাকিস্তানের রূপান্তরিত হয়ে যাচ্ছে। বাংলার প্রতিনিধিত্ব করা সত্ত্বেও লোকসভায় দাঁড়িয়ে লকেটের এই মন্তব্যে উঠেছে রাজনৈতিক মহলে সমালোচনার ঝড়। সাধারণত প্রত্যেক স্কুল-কলেজেই নিয়মমাফিক সরস্বতী পুজো হয়। কিন্তু সম্প্রতি হাওড়া ময়দান এর দুটি স্কুলে সরস্বতী পুজো করতে বাধা পায় ছাত্রছাত্রীরা। আর সেই ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিজেপির পক্ষ থেকে আক্রমণ করা হচ্ছে তৃণমূলকে।

এদিন লোকসভায় অধিবেশন চলাকালীন পশ্চিমবঙ্গে সরস্বতী পুজো না হওয়ার প্রসঙ্গটি তুলে বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায় তীব্র আক্রমণ করেন শাসক দল তৃণমূলকে। এদিন সংসদের অধিবেশনের শুরুতেই তৃণমূল এবং বিজেপি বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়ে। শুরুতেই নাগরিকত্ব আইন এর প্রতিবাদে তুমুল শোরগোল শুরু হয় সংসদে। পশ্চিমবঙ্গের শাসকদল সংশোধনী নাগরিকত্ব আইন এর বিরুদ্ধে তীব্র সমালোচনা করেন কেন্দ্রীয় নেতৃত্বকে বিঁধে। অন্যদিকে বিজেপিও ছেড়ে কথা বলেনা।

মঙ্গলবার সরস্বতী পুজো নিয়ে তৃণমূলকে তীব্র কটাক্ষ করেন বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়। তিনি অভিযোগ করেন, বাংলার মানুষকে সরস্বতী পুজো করতে বাধা দেওয়া হচ্ছে। সেই প্রসঙ্গেই তিনি পশ্চিমবঙ্গের সাথে পাকিস্তানের তুলনা টেনেছেন। তিনি এদিন বলেন, দিন দিন পশ্চিমবঙ্গ ক্রমশ পাকিস্তানের মতন হয়ে চলেছে, যেখানে ধর্মীয় আচরণ মানা হচ্ছেনা। অন্যদিকে, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে তিনি তোষণকারী বলে আখ্যা দিয়েছেন। এদিন লকেট চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘পশ্চিমবঙ্গে এমনই অবস্থা যে, সেখানে মানুষকে সরস্বতী পূজা করতে দেওয়া হয় না। ঠিক পাকিস্তানের মত পরিস্থিতি। সেখানেও হিন্দুদের পূজা করতে দেওয়া হয় না। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তোষণের রাজনীতি করছেন।’


দেশে যে কোনো দিন ব্যান হয়ে যেতে পারে হোয়াটস্যাপ। তাই এখন থেকে আমরা শুধুমাত্র টেলিগ্রাম ও সিগন্যাল অ্যাপে। প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার নিউজ নিয়মিতভাবে পেতে যোগ দিন –

টেলিগ্রাম গ্রূপটাচ করুন এখানে

সিগন্যাল গ্রূপটাচ করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

সূত্রের খবর, এর আগেও বিজেপি পশ্চিমবঙ্গে এহেন অভিযোগ তুলেছে। বিজেপি শীর্ষ নেতারা সংসদে দাঁড়িয়ে পশ্চিমবঙ্গের বিরুদ্ধে ধর্মীয় অভিযোগ তুলেছেন। এ প্রসঙ্গে অমিত শাহ লোকসভা ভোটের আগে প্রচারে এসে বলেছিলেন, ‘বাংলায় যদি সরস্বতী পূজা আর দুর্গা পূজা না হয়, তাহলে কি পাকিস্তানে গিয়ে করতে হবে? আমরা ক্ষমতায় এলে সাড়ম্বরে হবে দুর্গা পূজার বিসর্জন।’ অন্যদিকে বরাবরই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিজেপির এই অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন। তিনি অমিত শাহকে সরাসরি চ্যালেঞ্জ জানিয়ে বলেছিলেন, ‘সরস্বতী পূজা হয় কি হয় না? দুর্গা পূজা হয় কি হয় না?’ তিনি আরো বলেন, ‘গুন্ডাবাজরা বলছে বাংলায় দুর্গাপুজো, সরস্বতী পুজো হয়না। প্রমাণ করে দেখান নাহলে রাজনীতি ছেড়ে দিন। উলটো হলে আমি রাজনীতি ছেড়ে দেব।’

তবে এবার সরস্বতী পূজা বন্ধের ঘটনাতে লাগলো রাজনীতির রং। লকেট চট্টোপাধ্যায়ের মন্তব্যকে ঘিরে ইতিমধ্যেই রাজনৈতিক মহলে চলছে জোর গুঞ্জন। ধর্ম নিয়ে রাজনীতি হচ্ছে বলেও কানাঘুষো আলোচনা করছেন রাজনৈতিক মহলের একাংশ। তৃণমূলের পক্ষ থেকে অবশ্য এখনো পর্যন্ত পাল্টা প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। তবে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায় বাংলার প্রতিনিধিত্ব করা সত্ত্বেও কিভাবে লোকসভায় দাঁড়িয়ে এই ধরনের মন্তব্য করলেন। আপাতত সম্পূর্ণ বিষয়টির ওপর নজর রাখছে রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকগণ।

আপনার মতামত জানান -

Top
Facebook Friends
error: Content is protected !!