এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > সংখ্যালঘু সেলেও বড়োসড়ো ভাঙ্গন তৃণমূলের, বাড়ছে জল্পনা, জানুন বিস্তারিত

সংখ্যালঘু সেলেও বড়োসড়ো ভাঙ্গন তৃণমূলের, বাড়ছে জল্পনা, জানুন বিস্তারিত



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – আগামী বিধানসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে ক্রমাগত ভাঙ্গনের ছবি চোখে পড়ছে শাসকদল তৃণমূলের। দলের ক্রমাগত ভাঙ্গন ব্যতিব্যস্ত করে রেখেছে দলের শীর্ষ নেতৃত্বকে। এবার তৃণমূলের সংখ্যালঘু সেলেও ঘটে গেল বড়সড় ভাঙ্গন। নদীয়া জেলায় ২৫০ জন সংখ্যালঘু তৃণমূল কর্মী তৃণমূল ছেড়ে যোগদান করলেন বিজেপিতে। এরা সকলেই দলের সক্রিয় সদস্য। তবে, ঘঁটনাটিকে খাটো করেই দেখছে শাসকদল তৃণমূল।

গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় নদীয়া জেলার চাকদা ব্লকের ঘেটুগাছি গ্রাম পঞ্চায়েতের অন্তর্গত বনমালীপাড়াতে বিজেপির পক্ষ থেকে আর নয় অন্যায় কর্মসূচির আয়োজন করা হয়েছিল। এই আর নয় অন্যায় কর্মসূচির সভাতে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করলেন তৃণমূলের ৩০০ জন সক্রিয় কর্মী। যাদের মধ্যে ২৫০ জন হলেন সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষ। গতকাল বিজেপির আর নয় অন্যায় কর্মসূচি ও যোগদান মেলায় উপস্থিত ছিলেন রানাঘাটের বিজেপি সাংসদ জগন্নাথ সরকার, রাজ্য বিজেপির মুখপাত্র শমীক ভট্টাচার্য, বাগদার বিধায়ক দুলাল বর সহ একাধিক বিজেপি নেতৃত্ব।

গতকাল রানাঘাটের বিজেপি সাংসদ জগন্নাথ সরকারের নেতৃত্বে বনমালী পাড়া এলাকা থেকে ৩০০ জন সক্রিয় তৃণমূল কর্মী তৃণমূল ছেড়ে যোগদান করলেন বিজেপিতে। রানাঘাটের বিজেপি সাংসদ জগন্নাথ সরকার জানিয়েছেন যে, বনমালী পাড়াতে ৩০০ জন যোগদান করেছেন বিজেপিতে। যারা সকলে তৃণমূলের কর্মী ও সমর্থক। তাদের মধ্যে ২৫০ জন হলেন সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষ।


ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

গতকাল, সদ্য তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেওয়া প্রাক্তন তৃণমূল কর্মী বাহার আলী শেখ জানিয়েছেন যে, তিনি বনমালী পাড়াতে তৃণমূলের জন্মলগ্ন থেকেই তৃনমূল সদস্য ছিলেন। কিন্তু তৃণমূলের একজন সক্রিয় কর্মী হওয়ার পরেও, সমস্ত রকম সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন তিনি। তাই বাধ্য হয়েই তিনি তৃণমূল ছেড়ে যোগদান করলেন বিজেপিতে। আজ বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ জানিয়েছেন, সংখ্যালঘুদের কোন উন্নতি করেনি তৃণমূল। শুধু নিজের স্বার্থে তাদেরকে ব্যবহার করেছে।

গতকাল ৩০০ জন তৃণমূল কর্মী বিজেপিতে যোগ দেওয়ায় উচ্ছ্বসিত হলো বিজেপি শিবির। তবে গতকালের এই ঘটনাকে তেমন গুরুত্ব দেয়নি স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব। এ প্রসঙ্গে চাকদা ব্লক তৃণমূল সভাপতি দিলীপ সরকার জানান যে, গতকাল বিজেপিতে যারা যোগদান করেছেন, তারা কেউই তৃণমূলের সদস্য নন। এরা কখনো সিপিএম, কখনো কংগ্রেস দলের সদস্য ছিলেন। তাই এরা বিজেপিতে যোগদান করায় তৃণমূল কংগ্রেসের কোন ক্ষতি হয়নি।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!