এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > সংরক্ষণের জেরে সব দল থেকেই প্রার্থী হতে চাইছেন হেভিওয়েট নেতাদের স্ত্রী, জানুন বিস্তারিত!

সংরক্ষণের জেরে সব দল থেকেই প্রার্থী হতে চাইছেন হেভিওয়েট নেতাদের স্ত্রী, জানুন বিস্তারিত!



এখনও পর্যন্ত পৌরসভা নির্বাচনের দিনক্ষণ ঘোষণা হয়নি। কিন্তু কোন ওয়ার্ডে, কাকে প্রার্থী করা যাবে, তা নিয়ে সব দলের অন্দরেই চলছে চুলচেরা বিশ্লেষণ। তবে সংরক্ষণের জন্য বালুরঘাটের 25 টি ওয়ার্ডের মধ্যে নয়টি ওয়ার্ডের সমস্ত রাজনৈতিক দলকে মহিলা প্রার্থী দিতে হবে। আর এতেই তীব্র সমস্যায় পড়েছে শাসক দল থেকে বিরোধী দল। কেননা যে সমস্ত ওয়ার্ডে বিদায়ী কাউন্সিলররা ছিলেন, তারা যদি এবার তৃণমূলের টিকিট না পান, তাহলে সেক্ষেত্রে তারা চেষ্টা করছেন, তাদের স্ত্রীকে সেই ওয়ার্ডে টিকিট পাইয়ে দিতে।

অন্যদিকে বিজেপিও নিজেদের অন্তর্কোন্দল যাতে বৃদ্ধি না পায়, তার জন্য নেতাদের স্ত্রীদের বিভিন্ন ওয়ার্ডে প্রার্থী করতে চাইছে। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা বলছেন, গত পঞ্চায়েত ভোটে মহিলা প্রার্থী নিয়ে বিজেপির অন্দরে সমস্যা তৈরি হয়েছিল। অনেক নেতার স্ত্রী টিকিট না পাওয়ায় দলের বিরুদ্ধে সরব হতে শুরু করেছিলেন। এমনকি অনেকে তৃণমূলে যোগ দিতেও শুরু করেছিলেন। তাই এবার পরিস্থিতি যাতে বেগতিক না হয়, তার জন্য নেতাদের স্ত্রীদের পৌরসভা ভোটে টিকিট দেওয়ার চিন্তাভাবনা করছে ভারতীয় জনতা পার্টি।

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

এদিন এই প্রসঙ্গে বিজেপির বালুরঘাট টাউন মন্ডলের সভাপতি সুমন বর্মন বলেন, “পঞ্চায়েত ভোটে নেতাদের স্ত্রীদের প্রার্থী না করার কারণে দলের অন্দরে একটু সমস্যা হয়েছিল। পৌরভোটে আমরা স্বচ্ছ মুখকে প্রার্থী করতে চাইছি। সেক্ষেত্রে নেতাদের স্ত্রীদের যেমন প্রাধান্য দেওয়া হবে, তেমনই মহিলা মোর্চার নেত্রীরাও প্রাধান্য পাবেন। যেভাবেই হোক, বালুরঘাট পৌরসভা আমরা দখল করবই।” একইভাবে তৃণমূলের তরফে যে সমস্ত ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ছিলেন, সেই সমস্ত ওয়ার্ডের মধ্যে বেশ কিছু ওয়ার্ড মহিলা সংরক্ষিত হয়ে যাওয়ায়, কারা টিকিট পাবেন, তা নিয়েও তৈরি হয়েছে চাঞ্চল্য। জানা গেছে, ইতিমধ্যেই অনেক বিদায়ী কাউন্সিলার তাদের স্ত্রীদের প্রার্থী করবার জন্য উঠেপড়ে লেগেছেন।

তবে শেষ পর্যন্ত নেতাদের স্ত্রীদের প্রার্থী করা আদৌ সম্ভব হয় কিনা, তা নিয়ে তৃণমূলের অন্দরে তৈরি হয়েছে গুঞ্জন। এদিন এই প্রসঙ্গে বালুরঘাট টাউন তৃণমূলের সভাপতি সুভাষ চাকী বলেন, “আমরা এখনও প্রার্থী নিয়ে সেভাবে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করিনি। অনেক কাউন্সিলর ও নেতারা এবার সংরক্ষণের কোপে পড়ে নিজেদের ওয়ার্ডে লড়াই করতে পারবেন না। তাই নিজেদের স্ত্রীদের প্রার্থী করার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন। তবে তারা ইচ্ছা প্রকাশ করলেও, এই ব্যাপারে দল যা সিদ্ধান্ত নেবে, সেটাই চূড়ান্ত বলে গণ্য হবে।” এখন শেষ পর্যন্ত বালুরঘাট পৌরসভায় শাসক-বিরোধী রাজনৈতিক দলের প্রার্থী তালিকায় নেতাদের স্ত্রীরা বেশি প্রাধান্য পায়, নাকি খেটেখাওয়া কর্মীরা বেশি প্রাধান্য পান, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!