এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > এবারে শহীদ দিবস না হলেও, পরেরবার থাকছে বড় চমক! বড় বার্তা দিলেন মমতা!

এবারে শহীদ দিবস না হলেও, পরেরবার থাকছে বড় চমক! বড় বার্তা দিলেন মমতা!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট- 1993 সালের একুশে জুলাই দিনটিকে স্মরণ করে আজও মহাসমারোহে তৃণমূলের পক্ষ থেকে পালন করা হয় শহীদ দিবস। কিন্তু গত বছরের মতো এই বছরেও ধর্মতলায় সেই শহীদ দিবস পালন করা সম্ভব হচ্ছে না। যার প্রধান কারণ করোনা ভাইরাস। যার জেরে তৃণমূল নেতাকর্মীদের মন অনেকটাই খারাপ। বছরের একটা মাত্র দিন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বক্তব্য শোনার জন্য সামনাসামনি অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করেন তার দলের নেতাকর্মীরা। কিন্তু করোনা ভাইরাস এই পরিস্থিতি কেড়ে নিয়েছে। তাই ভার্চুয়ালি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বক্তব্য শুনতে হবে দলের সকলকে।

সেদিক থেকে তৃণমূলের কর্মী সমর্থক থেকে শুরু করে শহীদ পরিবার সকলেরই মন খারাপ। সরাসরি কেউ ধর্মতলার সমাবেশে উপস্থিত থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কথা শুনতে পারবেন না। একদিকে তৃতীয়বারের জন্য বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে রাজ্যের ক্ষমতায় আসা এবং অন্যদিকে ভবিষ্যতের জন্য কি বার্তা দেবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, সেই নিয়ে এবারের একুশে জুলাই অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তবে সরাসরি বড় মাপের কর্মসূচি না হওয়ার কারণে মন খারাপ হওয়ায় শহীদ পরিবার থেকে শুরু করে তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীদের জন্য বড় বার্তা দিলেন তৃণমূল নেত্রী তথা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

সূত্রের খবর, এদিন শহীদ পরিবারগুলোর উদ্দেশ্যে একটি চিঠি লেখেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর সেখানেই শহীদ সমাবেশে সরাসরি দেখা না হওয়ার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেন তিনি। তবে আগামী বছর যে বৃহৎ সমাবেশ করে এই একুশে জুলাই পালন করা হবে, সেই কথা জানিয়ে দিয়েছেন বাংলার প্রশাসনিক প্রধান। অর্থাৎ এই বছরের জন্য তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীদের কাছে শহীদ দিবস পালন না হওয়ার কারণে মন খারাপ হলেও, যাতে পরের বছর বড় করে শহীদ দিবস পালন করা যায়, তার জন্য যে তৃণমূল কংগ্রেস উদ্যোগ নিতে শুরু করেছে, তা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই চিঠির মধ্যে দিয়ে পরিষ্কার হয়ে গেল বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

একাংশ বলছেন, এবারের একুশে জুলাই রাজনৈতিক দিক থেকে অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কি বার্তা দেন, তার দিকে নজর রয়েছে সকলের‌। তবে সেই একুশে জুলাই এবার যাতে সামনাসামনি দর্শন করতে পারেন সকলে, তা আশা করেছিলেন শহীদ পরিবারগুলো। কিন্তু করোনা পরিস্থিতি তা কেড়ে নিয়েছে। যার জেরে হতাশা তৈরি হয়েছে নানা মহলে। তাই সেই হতাশা কাটাতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পরের বারের একুশে জুলাই আরও বিশদভাবে হবে বলে জানিয়ে দিয়ে সকলের মনে কিছুটা হলেও আশা যোগানোর চেষ্টা করলেন বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!