এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > আন্দোলনে না নামায় শাসকদলের কর্মী-সংগঠনকে তীব্র ভর্ৎসনা হেভিওয়েট তৃণমূল মন্ত্রীর

আন্দোলনে না নামায় শাসকদলের কর্মী-সংগঠনকে তীব্র ভর্ৎসনা হেভিওয়েট তৃণমূল মন্ত্রীর



বেতন বৈষম্যের প্রতিবাদে আন্দোলনের পথে না নামায় তৃণমূল সমর্থিত পুর কর্মচারী সংগঠনের নেতৃত্বকে কড়া ভাষায় আক্রমণ শানালেন তৃণমূল কংগ্রেসের দার্জিলিং জেলা সভাপতি তথা রাজ্যের পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেব। এদিন ছিল আইএনটিটিইউসি অনুমোদিত শিলিগুড়ি পুর কর্মচারী সমিতির ষষ্ঠ ত্রিবার্ষিক সম্মেলন। সেখানেই যোগদান করে নিজের ক্ষোভ ওগড়াতে দেখা গেল গৌতম বাবুকে।

আসানসোল বা দুর্গাপুরের পুরসভার কর্মচারীদের থেকে শিলিগুড়ি পুরসভার অস্থায়ী কর্মচারীরা বেতন অনেক কম পায়। এমনটাই দাবী পর্যটন মন্ত্রীর। এবং এই ইস্যু নিয়ে আন্দোলনে পথে হাঁটা উচিত বলেই মনে করছেন তিনি। পুরসভা যে ভাষা বোঝে,সে ভাষাতেই তাঁদের বোঝাতে হবে বলে বার্তা দিলেন পুরকর্মচারী সমিতিকে। কেন তাঁরা এই বৈষম্যের বিরুদ্ধে আওয়াজ তুলছেন না? এ নিয়ে সমালোচনার পাশাপাশি প্রশ্নও ছুঁড়ে দিলেন তিনি পুরকর্মচারী সমিতির উদ্দেশ্যে।

যদিও এই সমালোচনা মানতে নারাজ সমিতির সদস্যরা। সময়ে সময়ে প্রয়োজন অনুযায়ী আন্দোলনের পথে হেঁটেছেন তাঁরা। তবে লোক দেখানো আন্দোলনকে তাঁরা সমর্থন করেন না,এমনটাই জানালেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক বিশ্বময় ঘোষ।

এদিন গৌতম বাবু শিলিগুড়ি পুরসভার মেয়র অশোক ভট্টাচার্যকে কটাক্ষ করে বললেন, প্রত্যেক মাসে মেয়র তাঁর অনুগামীদের নিয়ে বিমানে চড়ে দিল্লি কোলকাতা ঘুরে বেড়াচ্ছেন সরকারি পয়সায়। ফিরে এসে কয়েকটি সংবাদপত্রে ঘটা করে তার বিবরণও দিচ্ছে আর এদিকে সরকারি কর্মচারীরা অর্থাভাবে ভুগছে, অসুখে মরছে, পরিবারের বেকার ছেলেমেয়ে গুলো চাকরির জন্য রাস্তায় রাস্তায় ঘুরে বেড়াচ্ছে। এগুলো সভ্য সমাজে সহ্য করা যায় না।

এরপর তৃণমূল সমর্থিত সংগঠনের সমিতির নেতৃত্বকে উদ্দেশ্য করে বললেন, কিসের ভয় তাঁরা এই বৈষম্যের বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছেন না? কিসের ভয় তাঁদের? এই প্রশ্ন তুলে গৌতম বাবু তাঁদের বেতন বৈষম্যের বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তোলার পরামর্শ দিলেন। পাশাপাশি এটাও জানালেন, আন্দোলন করার জন্য কারোরই চাকরি খোয়া যাবে না। খুব বড়জোড় এক দপ্তর থেকে অন্য দপ্তরে পোস্ট বদলি করতে পারে বামেরা। এর বেশি কিছু করতে পারবে না। একথা বলেই তাঁদের সাহস দিতে গৌতম বাবু জানান,পাঁচটি বরের মধ্যে তৃণমূল কংগ্রেসেরই তিনজন বরো চেয়ারম্যান রয়েছেন। তাঁরা বিপদ আপদে সাহা্য্যের হাত বাড়িয়ে দেবেন। এবং দল সবসময়ই তৃণমূল সমর্থিত পুরকর্মচারীদের পাশে থাকবে। এমনটা বলেই তাঁদের আন্দোলন করার জন্য উজ্জীবিত করার চেষ্টা করলেন দার্জিলিং জেলার তৃণমূল সভাপতি।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

শিলিগুড়ির মেয়র অশোকবাবু অবশ্য পর্যটনমন্ত্রীর অস্থায়ী কর্মচারীদের বেতন বৈষম্যের দাবীকে একদমই অস্বীকার করেন। পাল্টা দাবীতে তিনি বলেন,রাজ্য সরকারের আর্থিক অসহযোগীতা উপেক্ষা করেও পুরসভার অস্বাস্থী কর্মীদের বেশি বেতন দেওয়া হয়। আর সরকারি পয়সার বিমান চড়ার প্রসঙ্গেও সরব হন মেয়র। জানান,”সরকারি পয়সায় বিমানে চড়ি না। আসলে আমার বিরুদ্ধে বললে যদি গৌতমবাবুর প্রমোশন হয়। তিনি যদি ফের তাঁর পুরনো দপ্তর ফিরে পেয়ে উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী হতে পারেন, এসজেডিএ’র চেয়ারম্যান হতে পারেন তাহলে আমি খুশি হব।” উল্লেখ্য,এদিনের সম্মেলনে সিটু এবং আইএনটিইউ থেকে ৪০ জন সদস্য তৃণমূলের কর্মচারী সমিতিতে যোগ দেন। তাঁদের হাতে দলীয় পতাকা তুলে দেন জেলা সভাপতি গৌতম দেব।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!