এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > উত্তরবঙ্গে বুথকমিটির রদবদল নিয়ে বড়সড় সিদ্ধান্ত শাসকদলের – জানুন বিস্তারিত

উত্তরবঙ্গে বুথকমিটির রদবদল নিয়ে বড়সড় সিদ্ধান্ত শাসকদলের – জানুন বিস্তারিত



লোকসভা নির্বাচনকে টার্গেট করে কোচবিহারের বুথ কমিটিগুলোকে আরো শক্তিশালী করে তুলতে ২৫ জনের নামের তালিকা তৈরি করার কাজ শুরু হয়েছে সম্প্রতি। যারা দলে থেকেও দলের কাজে মনোযোগী নয়। নিজেদের দায়িত্ব ঠিকভাবে পালন করছে না তাদেরকে এবার বুথ কমিটি থেকে বাদ দেওয়া হবে।এর বদলে যাঁরা দলের কাজে সক্রিয় রয়েছেন বা যাঁরা নিজেদের দায়িত্ব সম্পর্কে সচেতন,সেসব কর্মীদের বাছাই করেই বুথকমিটিগুলোকে ঢেলে সাজানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ।

এই কাজের জন্যে দিনকয়েকের মধ্যে একটি বৈঠক করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলেও জানা গিয়েছে দলীয় সূত্রের খবরে। এ প্রসঙ্গে জেলা পর্যবেক্ষক রবীন্দ্রনাথ ঘোষ জানালেন,’বুথ কমিটিগুলিকে ঢেলে সাজানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হচ্ছে। দলে যাঁরা সক্রিয় রয়েছেন তাঁদেরকেই বুথ কমিটিতে স্থান দেওয়া হবে। এব্যাপারে প্রতিটি বুথে ২৫ জনের নামের তালিকা তৈরি করা হচ্ছে।’

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

দলীয় সূত্রের খবর,বুথকমিটিতে রয়েছেন অথচ দলে সময় দিচ্ছেন না এমন কর্মীদের ইতিমধ্যেই চিহ্নিত করার কাজ শুরু হয়ে গিয়েছে। এদেরকে তালিকাবদ্ধ করেই নির্দিষ্ট সময়ের পর কমিটি থেক বহিষ্কার করা হবে। অন্যদিকে,সাংসারিক কাজের ব্যস্ততার জন্যে সময় দিতে না পারা সদস্যদেরও চিহ্নিত করা হচ্ছে।

তাদেরকেও দল থেকে সরে যাওয়ার অনুরোধ করা হয়েছে। এদের যায়গায় সক্রিয় ও দক্ষ কর্মীদের বুথ কমিটিতে আনা হবে। এর যাতে যেকোনো পরিস্থিতিতে বুথরক্ষার কাজটা সুন্দরভাবে সামলাতে পারে সেটা নিশ্চিত করাই এই মুহূর্তে দলের প্রধান লক্ষ্য।

দলের একাংশের মতে,পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে থেকেই যুব বনাম মাদারের লড়াইয়ে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে। যুব গোষ্ঠীর প্রতিনিধিত্ব করেন নিশীথ প্রামাণিক। এর জেরে তাঁর সূত্র ধরেই দলের একাধিক নেতারা দল বিরোধী মানসিকতা সামনে এনেছেন। নিশীথবাবু নিজেও একজন গেরুয়াশিবিরে রয়েছেন। তবে তাঁর অনুগামীরা এখনও দলে রয়ে গিয়েছেন। এক্ষেত্রে এবারের লোকসভা ভোটে নিশীথবাবুর অনুগামীরা দলে থাকবেন কিনা সেটা নিয়েও প্রশ্ন তৈরি হয়েছে।

এ ব্যাপারে জেলার নেতারা মুখে কুলুপ এঁটে থাকলেও অনেককেই দায়িত্ব থেকে সরিয়ে ফেলা হবে বলেও ইঙ্গিত দিয়েছেন কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। আর সেজন্যেই জেলায় দলের একেবারে তৃণমূল স্তর থেকে উপরমহল পর্যন্ত যাবতীয় নিয়ন্ত্রণকে ঐক্যবদ্ধ করতে উদ্যোগ নিয়েছেন কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব।

অন্যদিকে,রাজনৈতিক মহলের মতে,গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে দলের একাধিক বুথ কমিটির নিয়ন্ত্রণ দলের জেলা সভাপতি রবীন্দ্রনাথ ঘোষের হাতে না থাকায় এবারে নির্বাচন পরিচালনা করতে তাকে যথেষ্ট বেগ পেতে হচ্ছে। তাই দলের রাশ নিজের হাতে রাখার জন্যে চেষ্টায় কোনো খামতি রাখছেন না তিনি। সেক্ষেত্রে দলের সর্বস্তরে রবীন্দ্রনাথ অনুগামীরা বেশি সুবিধা পাবেন কিনা সে প্রশ্নকে নিয়েও গুঞ্জন শুরু হয়েছে দলীয় অন্দরে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!