এখন পড়ছেন
হোম > অন্যান্য > এই কাজ করেছেন কি? রেজিস্ট্রেশন কিন্তু বাতিল হতে পারে! কড়া পদক্ষেপ কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের

এই কাজ করেছেন কি? রেজিস্ট্রেশন কিন্তু বাতিল হতে পারে! কড়া পদক্ষেপ কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট- করোনা পরিস্থিতিতে সমস্যায় পড়েছিলেন সারা বিশ্বের মানুষ। তবে একদিকে যেমন দেশের অর্থনৈতিক পরিস্থিতিতে টালমাটাল অবস্থা গেছে, তেমনই শিক্ষাক্ষেত্রেও যে বড় রকমের ধাক্কা লেগেছে সে কথা অস্বীকার করা যায় না। সেক্ষেত্রে একদিকে যেরকম স্কুলগুলিতে ফি সংক্রান্ত সমস্যা, অনলাইন ক্লাস করার সমস্যা থেকে গেছিল, তেমনই অন্য জায়গায় কিন্তু বৃহত্তর শিক্ষাক্ষেত্রে সমস্যায় পড়েছেন একাধিক ছাত্র-ছাত্রী।

বস্তুত এপ্রিল মাস থেকে স্নাতক, স্নাতকোত্তর এবং তার পরবর্তী বিভিন্ন শিক্ষাক্ষেত্রে ভর্তি প্রক্রিয়া চলে। সেইসঙ্গে এপ্রিল মাসের মধ্যেই শেষ করে ফেলতে হয় সমস্ত স্নাতক স্নাতকোত্তর এবং অন্যান্য উচ্চতর শিক্ষাক্ষেত্রের পরীক্ষাগুলি। এছাড়াও উচ্চ মাধ্যমিক, মাধ্যমিক ফাইনাল ইয়ারের শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন জায়গায় ভর্তি প্রক্রিয়া চলে এই সময়। সেইসঙ্গে ইঞ্জিনিয়ারিং এবং ডাক্তারিতেও ভর্তি প্রক্রিয়া একই সময় হয়।

তাই বছরের এই সময়টা শিক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ একটি সময় বলেই মনে করা হয়। কিন্তু এবছর মার্চ মাসের শেষ থেকে কড়া লকডাউন শুরু হয়ে যাওয়ায় একেবারে স্তব্ধ হয়ে যায় এই শিক্ষাগত প্রক্রিয়াগুলি। আর সমস্যায় পড়েন একাধিক ছাত্র-ছাত্রী। এমন পরিস্থিতিতে শেষ পর্যন্ত উচ্চ আদালত অনলাইন মাধ্যমে পরীক্ষা নেওয়ার কথা বলে।

ফলত ওপেন বুক এক্সাম হয় সারা রাজ্য জুড়ে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে। তবে এরই মধ্যে স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর বর্ষের ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের। এবং এর পরবর্তী প্রক্রিয়ার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব ওয়েবসাইটে আবেদন করার বিশেষ বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

জানা গেছে, সেখানে যেমন একদিকে নতুন বর্ষের ছাত্রছাত্রীদের ভর্তির কথা বলা হয়েছে, তেমনি তাদের নথি সংক্রান্ত সত্যতা নিয়েও সামনে এসেছে অনেক তথ্য। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজাল্ট বেরোনোর পর অভিযোগ উঠেছিল যে বহু ক্ষেত্রেই নাকি ঢালাও নম্বর দেওয়া হয়েছে শিক্ষার্থীদের। আর যা নিয়ে অধ্যাপকদের একাংশ অভিযোগ করেছিলেন বলেও জানা যায়।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

তবে তা নিয়ে বিচার করার সুযোগ না থাকলেও কলেজগুলিতে যেসমস্ত ছাত্রছাত্রীরা ভর্তি হয়েছেন, তাদের নথি সংক্রান্ত সত্যতা নিয়ে সমস্যা তৈরি হয়েছে বলে জানা গেছে। ইতিমধ্যেই কলেজগুলি অনলাইনে ভর্তি প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেছে। অন্যবারে যেখানে ভর্তি প্রক্রিয়ার সঙ্গে সঙ্গেই মার্কশিট বা শিক্ষার্থীর অন্যান্য নথি যাচাই করে নেওয়া হয়, এবারে সেই সুযোগ পাওয়া যায়নি।

আর ডিসেম্বর পর্যন্ত কলেজ খোলা থাকার সম্ভাবনা খুব একটা বেশি না থাকায় ভবিষ্যতেও সেই সম্ভাবনা দেখা যাবে কিনা সেই নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন কেউ কেউ। অন্যদিকে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় সামনের মাসের মধ্যে সমস্ত কলেজগুলোতে রেজিস্ট্রেশন সেরে ফেলতে বলেছে। আর এই ক্ষেত্রেই সমস্যায় পড়েছে কলেজ কর্তৃপক্ষগুলি।

তাই তাঁদের তরফে সমস্ত ভর্তি হওয়া ছাত্র ছাত্রীদের উদ্দেশ্যে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে, কোন ছাত্র-ছাত্রীর পেশ করা নথি যদি পরবর্তীকালে ভুল প্রমাণিত হয়, তবে তাদের রেজিস্ট্রেশন সম্পূর্ণ বাতিল হবে। তাই তারা যে নথি দিয়েছে সেই নথি সংক্রান্ত সত্যতা সম্পর্কিত সমস্ত তথ্য তাদেরকেই নিতে হবে। কারণ কোনো ছাত্র ছাত্রীদের ব্যক্তিগত নথি সংক্রান্ত সত্যতার দায়ভার বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ নেবে না।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক ও স্নাতকোত্তরের চূড়ান্ত পরীক্ষা হয়েছে অনলাইনের মাধ্যমে। ইতিমধ্যেই সেই সমস্ত পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়েছে। যার মধ্যে ২২শে অক্টোবর বি.কম ষষ্ঠ সেমেস্টার (অনার্স এবং জেনারেল) ও বি.কম পার্ট থ্রি (অনার্স এবং জেনারেল) পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়েছে বলে জানা গেছে।

এর পরেরদিন বিএ, বিএসসি পার্ট থ্রি (অনার্স এবং জেনারেল) পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়। তবে ৩১শে অক্টোবরের মধ্যে ছাত্রছাত্রীরা মার্কশিট হাতে পাবেন বলে জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। কলেজের অধ্যক্ষ অথবা তাঁদের মনোনীত প্রতিনিধিদের বিশ্ববিদ্যালয়ে গিয়ে মার্কশিট সংগ্রহ করতে বলা হয়েছে বলে জানা গেছে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!