এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > রাজনৈতিক হিংসার দায়ে গ্রেপ্তার একাধিক প্রভাবশালী তৃণমূল নেতা, বড়সড় আশঙ্কা মানবাধিকার কর্মীদের

রাজনৈতিক হিংসার দায়ে গ্রেপ্তার একাধিক প্রভাবশালী তৃণমূল নেতা, বড়সড় আশঙ্কা মানবাধিকার কর্মীদের



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট –ফের রাজনৈতিক হিংসার ঘটনা শুরু হয়েছে বাংলায়। শাসক-বিরোধী সংঘর্ষ ও খুনের ঘটনায় এখন রীতিমতো উত্তপ্ত এলাকা। সম্প্রতি এসইউসি কর্মী বলে পরিচিত সুধাংশু জানার ওপর তৃণমূলের পক্ষ থেকে হামলার ঘটনায় ব্যাপক উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। আর এর পরে সেই সুধাংশুবাবুর মৃত্যু হওয়ায় এই ঘটনার প্রতিবাদে সোমবার কুলতলি বন্ধের ডাক দিয়েছে এসইউসিআই।

পাশাপাশি গোটা রাজ্যজুড়ে প্রতিবাদ দিবস পালন করা হবে বলে জানিয়েছে তারা। ইতিমধ্যে এই এসইউসিআই কর্মী খুনের ঘটনায় যুব তৃণমূলের অঞ্চল সভাপতি, দুই পঞ্চায়েত সদস্য সহ মোট 13 জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আর এতে গুঞ্জন আরও ছড়িয়ে পড়েছে।

আর এসইউসিআই কর্মীকে মারধরের ঘটনায় যেভাবে যুব তৃনমূলের অঞ্চল সভাপতি পিন্টু প্রধান সহ তৃণমূলের একাধিক নেতা-কর্মী গ্রেপ্তার হলেন, তাতে রীতিমত গুঞ্জন বাড়ছে। ইতিমধ্যেই শনিবার রাত পর্যন্ত যে 13 জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ, তাদের রবিবার বারুইপুর আদালতে তোলা হলে বিচারক 14 দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছেন। তাহলে কি এসইউসিআইয়ের অভিযোগ সত্যি?

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

শেষ পর্যন্ত কি এসইউসিআই কর্মী খুনের ঘটনায় প্রকৃতই তৃণমূল জড়িত? আর তাই পুলিশের পক্ষ থেকে তৃণমূলের হেভিওয়েট নেতাদের গ্রেফতার করা হল? এদিন এই প্রসঙ্গে কুলতলী ব্লক যুব তৃনমূলের সভাপতি গণেশ মণ্ডল বলেন, “এসইউসিআই বরাবর খুনের রাজনীতি করে এসেছে। ওদের ডাকে মানুষ সাড়া দেবে না। সুধাংশু জানাকে খুনের অভিযোগে পিন্টুকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

কিন্তু সুধাংশু জানা আত্মহত্যা করেছেন। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট এলেই তা পরিষ্কার হয়ে যাবে।” এদিকে কুলতলিতে যেভাবে খুনের রাজনীতি শুরু হয়েছে, তাতে রীতিমত হতবাক মানবাধিকার কর্মীরা। যেভাবে দিনকে দিন এখানে সংঘর্ষ বাড়ছে এবং খুনের ঘটনা ঘটতে দেখা যাচ্ছে, তাতে এদিন এলাকায় গিয়েছিলেন মানবাধিকার সংগঠনের কর্মীরা।

এদিন এই প্রসঙ্গে সংগঠনের জেলা কমিটির সম্পাদক আলতাফ আহমেদ বলেন, “খুন, পাল্টা খুনের রাজনীতি ফিরে এসেছে কুলতলিতে।” বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সামান্য একটি রাজনৈতিক গন্ডগোলকে কেন্দ্র করে যেভাবে সত্যি সত্যিই কুলতলিতে খুনের ঘটনা ঘটছে, তা নিঃসন্দেহে চিন্তা বাড়াচ্ছে প্রত্যেকের। তবে প্রশাসনের পক্ষ থেকে এই ব্যাপারে কড়া পদক্ষেপ নিলেও, এখন পরিস্থিতি কতটা শান্ত হয়, তার দিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!