এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > রাজ্যের অস্বস্তি বাড়িয়ে বড়সড় পদক্ষেপ মুকুলের! জেনে নিন

রাজ্যের অস্বস্তি বাড়িয়ে বড়সড় পদক্ষেপ মুকুলের! জেনে নিন



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট –বিধানসভা নির্বাচনের সময় যত এগিয়ে আসছে, ততই রাজনৈতিক উত্তেজনা ক্রমশ বাড়তে শুরু করেছে। বিভিন্ন জায়গায় শাসক বনাম বিরোধীদের সংঘর্ষ এখন নিত্যনৈমিত্তিক আকার ধারণ করেছে। আর এই পরিস্থিতিতে বিজেপির পক্ষ থেকে যেখানে যেখানে সভা করা হচ্ছে, ঠিক তার আগেই সেখানে তৃণমূলের পক্ষ থেকে হামলা করা হচ্ছে বলে অভিযোগ ভারতীয় জনতা পার্টির। দক্ষিণ কলকাতার চারু মার্কেটের পর মঙ্গলবার নন্দীগ্রাম খেজুরিতে বিজেপির মিছিলে হামলার ঘটনা ঘটেছে। আর এই পরিস্থিতিতে রাজ্যের আইন শৃঙ্খলা ভেঙে পড়েছে সেই অভিযোগ করে রাজ্যপালের সঙ্গে দেখা করলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি মুকুল রায়। যেখানে বাংলায় রাষ্ট্রপতি শাসনের দাবি তুলতে দেখা গেল তাকে।

স্বাভাবিকভাবেই বঙ্গ বিজেপির গলায় এই ধরনের মন্তব্যকে কেন্দ্র করে এবার জল্পনা ক্রমশ বাড়তে শুরু করেছে। এককালে তৃণমূল কংগ্রেসে থাকার সময় তৎকালীন বাম সরকারের বিরুদ্ধে আইন শৃঙ্খলা ভেঙে পড়েছে বলে সরব হতেন মুকুল রায়। আর এবার ঠিক একইভাবে নিজের প্রাক্তন দল তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে বিজেপি নেতা হিসেবে সেই একই অভিযোগ করে ঘাসফুল শিবিরকে ব্যাকফুটে ফেলে দেওয়ার চেষ্টা করছেন তিনি বলেই মত একাংশের।

সূত্রের খবর, মঙ্গলবার রাজভবনে গিয়ে রাজ্যপাল জাগদীপ ধনকরের সঙ্গে দেখা করেন বিজেপির সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি। জানা গেছে, দুজনের মধ্যে বেশ কিছুক্ষণ রাজ্যের আইন শৃঙ্খলা সহ অন্যান্য বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে। আর তারপরেই রাজ্যপালের সঙ্গে আলোচনার পর বাইরে বেরিয়ে এসে সরব হন মুকুল রায়। রাজ্যের আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি যে সম্পূর্ণরূপে ভেঙে পড়েছে, তা নিজের বক্তব্যের মধ্য দিয়ে বুঝিয়ে দেন এই হেভিওয়েট নেতা।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

মুকুল রায় বলেন, “রাজ্যের আইন শৃঙ্খলা ভেঙে পড়েছে। জেপি নাড্ডা, দিলীপ ঘোষ সহ বিজেপির নেতা মন্ত্রীদের ওপর হামলা হচ্ছে। 356 ধারা জারি ছাড়া উপায় নেই। আজ খেজুরিতে কি হয়েছে, তা শুনেছেন রাজ্যপাল। তাকে সব বলেছি।” আর মুকুল রায়ের এই মন্তব্যকে কেন্দ্র করে রাজনৈতিক মহলে ব্যাপক শোরগোলে সৃষ্টি হয়েছে। হঠাৎ করে কেন 356 ধারা জারির কথা বললেন মুকুল রায়, এখন তা নিয়ে তৈরি হয়েছে প্রশ্ন।

পর্যবেক্ষকদের অনেকে বলছেন, আসলে মুকুল রায় একথা বলে তৃণমূল সরকারের চাপ আরও বাড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা করলেন। অতীতে রাজ্যে নানা বিক্ষিপ্ত অশান্তির ঘটনা ঘটার পর বিজেপির নানা নেতার মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে রাজ্যে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি হতে পারে বলে জল্পনা ছড়িয়েছিল। তবে কোনোভাবেই যে তারা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারকে শহীদ হতে দেবেন না, তা নিজেদের বক্তব্যের মধ্য দিয়ে বুঝিয়ে দিয়েছিলেন বিজেপির হেভিওয়েট নেতারা।

এমনকি মুকুল রায়ের কথার মধ্যে দিয়েও পরিস্কার হয়ে গিয়েছিল যে, রাজ্যে রাষ্ট্রপতি শাসন আপাতত জারি হচ্ছে না। কিন্তু বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গের আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি সম্পূর্ণরূপে ভেঙে পড়েছে বলে এবার সেই মুকুল রায় রাষ্ট্রপতি শাসন জারি পক্ষে সওয়াল করলেন। যা রাজ্য রাজনীতিতে বর্তমান সময় অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। সব মিলিয়ে গোটা পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

 

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!