এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > ক্রমশ কোণঠাসা হচ্ছেন রাহুল প্রিয়াঙ্কা, বাংলার পরে এই রাজ্যেও জোট হচ্ছে না কংগ্রেসের

ক্রমশ কোণঠাসা হচ্ছেন রাহুল প্রিয়াঙ্কা, বাংলার পরে এই রাজ্যেও জোট হচ্ছে না কংগ্রেসের



আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে কেন্দ্রের বিজেপিকে সরাতে প্রথম থেকেই একজোট হয়ে লড়ার কথা বলে আসছিল সমস্ত বিজেপি বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো। এমনকি যে দল যে রাজ্যে বেশি শক্তিশালী সেখানে তারা বেশি সংখ্যক আসনে লড়াই করবে বলেও বিরোধী মহাজোট অংশগ্রহণকারী রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে আলোচনা হয়েছিল।

কিন্তু এবার সেই বিরোধী মহাজোটে অংশগ্রহণকারী মূল বিরোধী দল কংগ্রেসকে বিভিন্ন রাজ্যে কার্যত একাই লড়তে হচ্ছে। ইতিমধ্যেই বাংলায় হাতে হাত ধরে লড়ার কথা হলেও রায়গঞ্জ ও মুর্শিদাবাদ আসন নিয়ে বাম এবং কংগ্রেসের মধ্যে খুব একটা সন্তোষজনক আলোচনা না হওয়ায় দু’পক্ষের মধ্যেকার জোট ভেস্তে গিয়েছে।

অন্যদিকে উত্তরপ্রদেশে বিজেপির বিরুদ্ধে অখিলেশ যাদবের সমাজবাদী পার্টি, মায়াবতীর বহুজন সমাজবাদী পার্টি এবং আরএলডির মধ্যে জোট হলেও সেই জোটে অংশগ্রহণ করতেই দেখা যায়নি কংগ্রেসকে। জানা গেছে,‌ এখানে কংগ্রেসের পক্ষ থেকে সমাজবাদী পার্টি এবং বহুজন সমাজবাদী পার্টির জন্য 7 টি আসন ছেড়ে রাখায় পরবর্তীতে সেই বহুজন সমাজবাদী পার্টির সুপ্রিমো মায়াবতী এবং সমাজবাদী পার্টি সুপ্রিমো অখিলেশ যাদব জানিয়ে দিয়েছেন, তারা জোট করলেও কংগ্রেসের সঙ্গে তাদের কোনো জোট নেই।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

তাই কংগ্রেস চাইলে উত্তরপ্রদেশের 80 টি আসনেই প্রার্থী দিতে পারে। ফলে সেই দিক থেকে উত্তরপ্রদেশে আখিলেশ এবং মায়াবতী দলের সঙ্গে জোট করে বিজেপিকে হঠানোর চিন্তাভাবনা করলেও কার্যত সেখানেও ব্যাকফুটে চলে গেছে কংগ্রেস। আর এবার বাংলা, উত্তরপ্রদেশের মত বিহারেও সেই কংগ্রেসের করুন অবস্থা।

অন্যদিকে 40 আসন বিশিষ্ট বিহার বিধানসভায় কংগ্রেসের পক্ষ থেকে 11 টি আসনের জন্য দাবি করা হলেও সেখানে আরজেডির পক্ষ থেকে কংগ্রেসকে আটটির বেশি আসন না দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। এদিন এই প্রসঙ্গে আরজেডি নেতা শিবানন্দ তিওয়ারি বলেন, “কংগ্রেস কিসের ভিত্তিতে 11 টি আসন চাইছে?

নিজেদের অবস্থা বিবেচনা করে ওদের সমস্ত দাবি করা উচিত।” এদিকে কংগ্রেসের থেকে তারা খুব একটা পিছিয়ে নেই। তাই কংগ্রেসের অর্ধেক তাদের প্রাপ্য বলে জানিয়েছেন বিহারের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জিতনরাম মাঝি। সব মিলিয়ে এবার পরপর তিন রাজ্যে মহাজোটের স্বপ্নকে ধুলিস্যাৎ করে কার্যত একা লড়ার পথেই হাঁটতে হচ্ছে হাত শিবিরকে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!