এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > পুর নির্বাচনের আগে শাসক শিবিরের কাউন্সিলরদের প্রকল্প উদ্বোধনের হিড়িক

পুর নির্বাচনের আগে শাসক শিবিরের কাউন্সিলরদের প্রকল্প উদ্বোধনের হিড়িক



পশ্চিমবঙ্গে আবার বেজে উঠল নির্বাচনী দামামা। আগামী কয়েক মাসের মধ্যেই পশ্চিমবঙ্গে শুরু হতে চলেছে পুরনির্বাচন আর তারপরেই আসতে চলেছে বিধানসভা নির্বাচন। আপাতত পুরনির্বাচনের দিকে সম্পূর্ণ মনোনিবেশ করে রাজনৈতিক দলগুলো নিজেদের রণকৌশল তৈরি করছে। সূত্রের খবর সামনের পুরনির্বাচন জেতার জন্য কোনো রাজনৈতিক দলই খামতি রাখতে চাইছেন না। ইতিমধ্যে শাসক দলের পক্ষ থেকে কাউন্সিলরদের বলা হয়েছে, পুরনির্বাচনের টিকিট পেতে গেলে প্রতিটি ওয়ার্ডে কাজ সম্পূর্ণ করতে হবে। সে কথা মাথায় রেখেই এবার শুরু হয়েছে বিভিন্ন প্রকল্পের শিলান্যাস ও উদ্বোধন।

পুরো নির্বাচনের আগে সম্প্রতি কালীঘাটে পুরো কমিউনিটি হলে শাসকদলের কাউন্সিলরদের একটি বৈঠক করা হয়েছিল। সেই বৈঠকে প্রতিটি কাউন্সিলরকে বলা হয়েছিল, তাঁদের ওয়ার্ডের জনসংযোগ বাড়াতে নিয়মিত মনোযোগ দিতে হবে কাউন্সিলরদের। এই নিয়ে গত সপ্তাহেও একটি বৈঠক করা হয় সুব্রত বক্সী ও ফিরহাদ হাকিম এর তত্ত্বাবধানে। সেই বৈঠকে কাউন্সিলরদের প্রত্যেককে নিজের নিজের ওয়ার্ডের বাকি কাজ সম্পূর্ণ করতে বলা হয়। সাথে এও বলা হয়, ওয়ার্ডের পুরপরিষেবা যদি না পাওয়া যায় তাহলে তার দায়ভার নিতে হবে কাউন্সিলরকেই।

আর তারপর থেকেই শুরু হয়েছে বিভিন্ন প্রকল্পের শিলান্যাস এবং উদ্বোধন। পুরসভার ভেতরের খবর, শাসকদলের কাউন্সিলররা নিজেদের কাজের হিসাব মেলানোর জন্য উঠে পড়ে লেগেছেন। কারণ প্রত্যেককেই বলা হয়েছে, মুখ্যমন্ত্রীর নজরে আসতে গেলে কাজ করতে হবে এবং তবেই পুরনির্বাচন লড়ার জন্য হাতে টিকিট পাওয়া যাবে। যা শোনার পর কাউন্সিলররা কোমর বেঁধে ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে কাজ করতে নেমেছেন। এর সাথেই চলছে ‘দিদিকে বল’ কর্মসূচি রূপায়ণ। যা করতে গিয়ে বিভিন্ন প্রকপ্লের শিলান্যাস ও উদ্বোধনের ঘটা বেড়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।


দেশে যে কোনো দিন ব্যান হয়ে যেতে পারে হোয়াটস্যাপ। তাই এখন থেকে আমরা শুধুমাত্র টেলিগ্রাম ও সিগন্যাল অ্যাপে। প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার নিউজ নিয়মিতভাবে পেতে যোগ দিন –

টেলিগ্রাম গ্রূপটাচ করুন এখানে

সিগন্যাল গ্রূপটাচ করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

ইতিমধ্যে, পুরসভা সূত্রের খবর অনুযায়ী জানা গেছে, প্রকল্প উদ্বোধনের তালিকায় স্থান পেয়েছে জল সরবরাহ, স্বাস্থ্য, জঞ্জাল অপসারণ এবং নিকাশি। প্রত্যেক কাউন্সিলর নিজ এলাকায় উদ্বোধন করছেন পাম্পিং স্টেশন, জাতীয় স্বাস্থ্য মিশন এর সহায়তা স্বাস্থ্য কেন্দ্র, কম্প্যাক্টর স্টেশন এবং নিকাশি প্রকল্প। এগুলি উদ্বোধনের পাশাপাশি কাউন্সিলররা জনসংযোগ বাড়াতে জোর দিচ্ছেন। সম্প্রতি জৈব ও অজৈব বর্জ্য পৃথকীকরণ নিয়ে সচেতনতা শিবির করা হচ্ছে জেলাজুড়ে।

আর কয়েক মাস পরেই রাজ্যের পুরসভা নির্বাচন। যা নিয়ে ইতিমধ্যে সাজো সাজো রব রাজনৈতিক শিবিরগুলির মধ্যে। রাজনৈতিক লড়াইয়ে নামার জন্য প্রতিটি দল নিজেদের মতন করে তৈরি হচ্ছে। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে 2021 এর বিধানসভা নির্বাচনের আগেই 2020 পুরসভা নির্বাচন হওয়ায় আগামী দিনের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটের ছবি বেশ কিছুটা হলেও স্পষ্ট হয়ে উঠবে। আর তাই পশ্চিমবঙ্গের রাজনৈতিক দলগুলি তৎপর হয়ে উঠেছেন। আপাতত সম্পূর্ণ পরিস্থিতির ওপর নজর থাকছে রাজনৈতিক মহলের।

আপনার মতামত জানান -

ট্যাগড
Top
error: Content is protected !!