এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মালদা-মুর্শিদাবাদ-বীরভূম > প্রণববাবুর মৃত্যুতে রাষ্ট্রীয় শোক! অথচ বাংলার বুকেই একাধিক উদ্বোধন অনুষ্ঠান! শুরু বিতর্ক

প্রণববাবুর মৃত্যুতে রাষ্ট্রীয় শোক! অথচ বাংলার বুকেই একাধিক উদ্বোধন অনুষ্ঠান! শুরু বিতর্ক



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – তিনি শুধু দেশের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি নন, বাংলার বাসিন্দা। তাই তাঁর প্রয়াণের পর যেমন শোকস্তব্ধ হয়ে পড়েছিল ভারতবর্ষ, ঠিক তেমনই শোকাচ্ছন্ন হয়ে পড়েছিল গোটা বাংলা। প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের প্রয়াণের পর সাত দিন কেন্দ্রের পক্ষ থেকে রাষ্ট্রীয় শোকের কথা ঘোষণা করা হয়েছে। অন্যদিকে মঙ্গলবার সরকারি ছুটির কথা ঘোষণা করেছে রাজ্য সরকার। তবে শোকস্তব্ধ পরিবেশের মধ্যেও রাজ্যে নানা উদ্বোধন মূলক কাজকর্ম হওয়ায় তৈরি হয়েছে প্রশ্ন। জানা গেছে, যখন রাষ্ট্রীয় শোক চলছে, ঠিক তখনই ব্রাহ্মণী নদীর উপর দেবগ্রাম ঘাটে কজওয়ে এবং টোল ট্যাক্সের উদ্বোধন করল নলহাটি 1 নম্বর ব্লক প্রশাসন।

যা নিয়ে এখন তীব্র বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে। কেন প্রণব মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যুতে যখন শোকের পরিবেশ চলছে, তখনই এই উদ্বোধন করতে হল প্রশাসনকে? প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, সম্প্রতি নলহাটি 1 পঞ্চায়েত সমিতির উদ্যোগে কয়েক লক্ষ টাকা ব্যায়ে নদীর ওপর হিউম পাইপ কোথায় গিয়ে একটি করে নির্মাণ করা হয়। কিন্তু আশ্চর্যজনক ভাবে রাষ্ট্রীয় শোকের মধ্যেই এদিন সকালে সেই কজওয়ের উদ্বোধন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়। যেখানে সেই ফলকে বিডিও, পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি উপস্থিত থাকলেও উদ্বোধক নলহাটি পৌরসভার চেয়ারম্যান রাজেন্দ্রপ্রসাদ সিং কার্যত অনুপস্থিত ছিলেন। তাহলে কি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের প্রয়ানের কারণে এদিন উদ্বোধনের কর্মসূচি থাকলেও, সেখান থেকে বিতর্ক এড়াতে সেই অনুষ্ঠানে অনুপস্থিত থাকলেন উদ্বোধক?


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

এদিন এই প্রসঙ্গে পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি বলেন, “আমি ও বিডিও সাহেব শোক পালন করেই চলে এসেছিলাম। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা উদ্বোধন করেছেন।” অন্যদিকে এই ব্যাপারে ভিডিও বলেন, “অফিশিয়ালি তো উদ্বোধন করা যায় না। কিন্তু এর আগে বেশ কয়েকবার উদ্বোধনের দিন ঠিক করে লকডাউন ও অতিবৃষ্টির কারণে বাতিল হয়। পরে এই দিনটি ঠিক করা হয়। যেহেতু আগামী দিন ধার্য ছিল, তাই লোকজন উপস্থিত হয়েছিলেন। তাই স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা উদ্বোধন করেছেন।” তবে তিনি উদ্বোধনে যাননি।

তাই অনিচ্ছাকৃত ভুলের জন্য সকলের কাছে তিনি ক্ষমা চেয়ে নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন পৌরসভার চেয়ারম্যান রাজেন্দ্র প্রসাদ সিং। আর এখানেই বিশেষজ্ঞদের প্রশ্ন, কেন প্রণব মুখোপাধ্যায়ের মত ব্যক্তিত্বের প্রয়াণের পরে যখন সর্বত্র রাষ্ট্রীয় শোক চলছে, তখন তা জেনে শুনেও এই উদ্বোধন কর্মসূচি পালন করল প্রশাসন? এই ঘটনার মধ্যে দিয়ে কি সেই প্রণব মুখোপাধ্যায়কে শেষ বেলাতেও অসম্মান করা হল না! এখন সেই প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছে সমালোচক মহল।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!