এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > প্রধানমন্ত্রীর ঘুম উড়াতে গিয়ে সুপ্রিম কোর্টে এবার বড়সড় ধাক্কা খেলেন সাংসদ মহুয়া মৈত্র!

প্রধানমন্ত্রীর ঘুম উড়াতে গিয়ে সুপ্রিম কোর্টে এবার বড়সড় ধাক্কা খেলেন সাংসদ মহুয়া মৈত্র!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – ভারতের রাজনীতির অঙ্গনে বিজেপির অন্যতম প্রধান বিরোধী দল হলো পশ্চিমবঙ্গের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস। প্রধানমন্ত্রী তথা কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে সর্বদাই যেন খড়গহস্ত রাজ্যের এই শাসকদল। কেন্দ্রের প্রায় সমস্ত প্রকল্প তথা কর্মসূচির তীব্র সমালোচক এই দলটি। তিন তালাক উচ্ছেদ থেকে আরম্ভ করে, সার্জিক্যাল স্ট্রাইক, রাফাল, আয়ুষ্মান ভারত, নয়া শিক্ষানীতি সহ কেন্দ্রের সমস্তকিছুর সমালোচনা করে এই রাজ্য সরকার। কলেবরে কেন্দ্রের শাসকদলের কাছে যাই হোক না কেন তোপ দাগতে কোন অংশে পিছিয়ে নেই রাজ্যের শাসকদলের নেতা-কর্মী-মন্ত্রীরা।

সম্প্রতি, দেশের করোনা পরিস্থিতির মোকাবিলার জন্য প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে গঠন করা হয়েছিল  পিএম কেয়ার্স ফান্ড নাম একটি তহবিল। অন্যদিকে পশ্চিমবঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে গঠন করা হয়েছিল মুখ্যমন্ত্রী ত্রাণ তহবিল। এরপর প্রধানমত্রীর পিএম কেয়ার্স ফান্ড তহবিলটি সিএসআরের আওতা ভুক্ত করা না হলেও মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে গঠিত মুখ্যমন্ত্রী ত্রাণ তহবিলটিকে সিএসআরের আওতাভুক্ত করা হয়।

শেষপর্যন্ত, প্রধানমন্ত্রীর পিএম কেয়ার্স ফান্ড তহবিলকে কর্পোরেট সোশ্যাল রেসপনিবিলিটি বা সিএসআর থেকে বাদ রাখার বিষয়টির তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হন তৃণমূলের জনৈক মহিলা সাংসদ মহুয়া মৈত্র। সম্প্রতি সুপ্রিমকোর্টের জনৈক বিচারপতি  অশোক ভূষণের নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ সাংসদ মহুয়া মৈত্রের অভিযোগ খারিজ করে দিয়েছে।

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

গত মে মাসেও মহুয়া মৈত্র এই বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টে একটি আবেদন রেখেছিলেন, কিন্তু পরবর্তী সময়ে তিনি নিজের ওই আবেদনটি প্রত্যাহার করেও নিয়েছিলেন। সাংসদ মহুয়া মৈত্রকে এবিষয়ে সুপ্রিম কোর্টের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে, কোন আবেদন একবার প্রত্যাহার করে দেবার পর সেটি পুনরায় দাখিল করা অর্থহীন।

একবার প্রত্যাহার করা কোন আবেদন আদালত কোনভাবেই পুনরায় গ্রহণ করতে পারে না, তাই স্বাভাবিক ভাবেই তাঁর আবেদনটি আদালত খারিজ করে দিয়েছে। অন্যদিকে, সুপ্রিম কোর্টের পক্ষ থেকে সংসদকে আরো জানানো হয়েছে যে, প্রধানমন্ত্রী আর মুখ্যমন্ত্রীর তহবিলের মধ্যে বেশকিছু পার্থক্য আছে। একারণেই প্রধানমন্ত্রীর তহবিলটিকে সিএসআর বা কর্পোরেট সোশ্যাল রেসপনিবিলিটি থেকে বাদ রাখা হয়েছে, কিন্তু মুখ্যমন্ত্রীর তাহবিলটি তার আওতাভুক্ত।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!