এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > প্রতীক্ষার অবসান, তৃণমূল নেত্রী মমতা ব্যানার্জ্জী প্রকাশ করলেন একুশের সেনাদের নাম

প্রতীক্ষার অবসান, তৃণমূল নেত্রী মমতা ব্যানার্জ্জী প্রকাশ করলেন একুশের সেনাদের নাম



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – অবশেষে প্রতীক্ষার অবসান। একুশের বিধানসভা নির্বাচনের পরিপ্রেক্ষিতে তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ। এবারের বিধানসভা নির্বাচন যেহেতু অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, তাই প্রার্থী তালিকায় কারা কারা স্থান পাচ্ছেন তা নিয়ে ছিল ব্যাপক জল্পনা। সমস্ত জল্পনা ও কৌতুহলকে দূরে সরিয়ে রেখে দিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা সাংবাদিক বৈঠকের মাধ্যমে প্রকাশ করে দিলেন। সূত্রের খবর, শেষ মুহূর্তে প্রার্থী তালিকায় কিছুটা কাটাছেঁড়া হয়।

প্রার্থী তালিকা প্রকাশের অনুষ্ঠানে সংবাদমাধ্যমের সামনে তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাশাপাশি ছিলেন ফিরহাদ হাকিম, সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়, সুব্রত বক্সী, পার্থ চট্টোপাধ্যায়সহ বিশিষ্ট নেতারা। 294 টি আসনের মধ্যে 291 টি আসনের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনটি আসনে বিমল গুরুংয়ের প্রার্থীরা লড়াই করবেন বলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়ে দেন। সেক্ষেত্রে তৃণমূল নেত্রী এবার জানিয়েছেন, 291 টি আসনের মধ্যে মহিলাদের জন্য 50 টি আসন, মুসলিমদের জন্য 42 টি আসন ছাড়া হয়েছে।


ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

পাশাপাশি এসসি প্রার্থীদের জন্য 79 টি এবং এস টি প্রার্থীদের জন্য 17 টি আসন ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। একইসাথে যারা বয়স্ক এবং আশির ওপরে যাদের বয়স, সেসব বিধায়ক বা বর্ষীয়ান নেতাদের এবার নির্বাচন থেকে দূরে সরিয়ে রাখা হয়েছে করোনা পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে। মুখ্যমন্ত্রী  অমিত মিত্র, মণীশ গুপ্ত, রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য্য, ব্রজ মজুমদার, জটু লাহিড়ীর মতন বর্ষীয়ান নেতাদের জন্য বিধান পরিষদের আসনের ইঙ্গিত দিয়েছেন। একইসাথে তৃণমূল নেত্রী অফিশিয়ালী জানিয়ে দিলেন, ভবানীপুর থেকে দাঁড়াচ্ছেন শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়।

এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজে দাঁড়াবেন নন্দীগ্রাম থেকে। রাসবিহারী থেকে দাঁড়াবেন দেবাশিস সেন। অন্যদিকে বিশেষজ্ঞদের মতে, তৃণমূল নেত্রীর প্রার্থী তালিকা সবাইকে খুশি করতে পারবে কিনা তা নিয়ে সন্দেহ থাকছে। তার কারণ, ইতিমধ্যেই জটু লাহিড়ী নিজেই নিজেকে মনোনীত করেছিলেন বিধানসভা নির্বাচনের প্রার্থী হিসেবে। আপাতত দেখার, প্রার্থী তালিকা ঘোষণার পর তৃণমূল শিবিরের ভাঙন কি আরও বাড়ে, নাকি দলের কথা ভেবে তৃণমূল সুপ্রিমোর কথা মেনে নিয়ে একজোট হয়ে লড়াইতে নামে সবাই!

 

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!