এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > প্রথম দিনেই লোকাল ট্রেনের ভিড় দেখে চোখ কপালে রেল ও প্রশাসনিক কর্তাদের

প্রথম দিনেই লোকাল ট্রেনের ভিড় দেখে চোখ কপালে রেল ও প্রশাসনিক কর্তাদের



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – করোনার প্রাথমিক পর্ব থেকেই লোকাল ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। কারণ, লকডাউন শুরু হয়ে গিয়েছিল। নিউ নর্মাল চালু হলেও এতদিন পর্যন্ত লোকাল ট্রেন চলাচল বন্ধ ছিল। কিছু স্পেশাল ট্রেন চলত ঠিকই কিন্তু তা রেলকর্মীদের জন্য। দীর্ঘদিন লোকাল ট্রেন বন্ধ থাকার কারণে বিভিন্ন স্টেশনে যাত্রী বিক্ষোভের আঁচ পেয়ে রেল ও রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে লোকাল ট্রেন চালানোর সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। আর সেই অনুযায়ী গতকাল দীর্ঘ আট মাস পর লোকাল ট্রেন চালানো শুরু হয়েছে রাজ্যে। তবে ট্রেন চালু হওয়ার প্রথম দিন দিনেই যেভাবে ভিড় চোখে পড়ল, তা রীতিমতো চিন্তার ভাঁজ ফেলেছে রেলকর্তা থেকে শুরু করে প্রশাসনিক কর্তাদের কপালে।

খুব স্বাভাবিক ভাবেই চিন্তিত বিশেষজ্ঞরাও। প্রসঙ্গত, শিয়ালদা শাখায় 46% লোকাল ট্রেন চলেছে গতকাল। যথারীতি 100% ট্রেন চালু থাকলেও যেখানে ভীড় কন্ট্রোল করা যায়না, সেখানে 46% ট্রেনে যে অতিরিক্ত মাত্রায় ভিড় হবে তা বলাই বাহুল্য। এবং ট্রেনের সংখ্যা আরো না বাড়ালে এই পরিস্থিতির যে বদল হবেনা তাও বোঝা গিয়েছে। আর তাই লোকাল ট্রেনের সংখ্যা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিতে বৃহস্পতিবার আবারও রেল এবং রাজ্য প্রশাসন বৈঠকে বসতে চলেছেন ভবানী ভবনে। এবং এই বৈঠকেই 100% ট্রেন চালানো হবে কিনা তা নিয়েও আলোচনা হতে পারে বলে জানা যাচ্ছে। লোকাল ট্রেন চালানোর প্রাথমিক শর্ত হিসেবে ছিল, শিয়ালদহ ও হাওড়া মিলিয়ে মোট 695 টি ট্রেন চলবে।

শুধু তাই নয়, প্রতিটি ট্রেনে যাত্রী সংখ্যা 600 র মধ্যে বাঁধা থাকবে। অফিসের ব্যস্ত সময়ে অবশ্য দুটি ট্রেনের মধ্যে ব্যবধান বাড়ানো হবে। স্টেশনের অতিরিক্ত ভিড় এড়াতে বলা হয়েছিল স্টেশনের নিয়ন্ত্রণ থাকবে আরপিএফ, রাজ্য পুলিশের ওপর। কিন্তু লোকাল ট্রেন চলার প্রথমদিন পরিকল্পনামতো ট্রেন চালিয়ে দেখা গেল, কোন নিয়মই আর ধোপে টিকছে না। ভিড়ের সেই পরিচিত দৃশ্য ফিরে এসেছে। যথারীতি ভিড়ের চাপে ট্রেনের মধ্যে আর শারীরিক দূরত্ববিধি মানার কোনো প্রশ্নই থাকছে না। যথারীতি এই ছবি দেখে আশঙ্কিত হয়েছেন স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী। তিনি নিজেই রেলের কাছে আবেদন জানিয়েছেন, ট্রেনের সংখ্যা আরও বাড়ানোর জন্য। তাতে ভিড় কিছুটা নিয়ন্ত্রণ হবে বলে মনে করা হচ্ছে।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

অন্যদিকে এই পরিস্থিতি দেখে রেল কর্তারাও এবার ট্রেনের সংখ্যা বাড়ানোর কথা ভাবছেন বলে জানা যাচ্ছে। হয়তো চলতি সপ্তাহেই রেলের পক্ষ থেকে লোকাল ট্রেনের সংখ্যা বাড়তে পারে। না হলে উৎসবের মরসুম কাটলে হয়তো পুরোপুরি 100% ট্রেনই চলবে। নিত্যযাত্রীরা এদিন জানিয়েছেন, হাওড়া শিয়ালদা শাখায় যেখানে দৈনিক দেড় হাজার ট্রেন চলে, সেখানে মাত্র 695 ট্রেন চালিয়ে ভিড় নিয়ন্ত্রণ করা একটি অবাস্তব কল্পনা। কারণ, এত কম ট্রেন প্রথমত, দ্বিতীয়তঃ, একটি ট্রেন যাবার পর দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করলে তবে আরেকটি ট্রেন আসছে। সুতরাং যে ট্রেনটি সামনে পাচ্ছে, তাতেই ভিড় হলেও মানুষ চেপে পড়ছে।

আপাতত এই পরিস্থিতি সামাল দিতে প্রস্তুত হচ্ছে রেল বলে জানা গেছে। অন্যদিকে লোকাল ট্রেন চলার ফলে এতদিনে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছে মানুষ। ট্রেনে ভিড়ের মধ্যে উঠলেও কিন্তু বেশিরভাগ মানুষকেই দেখা গিয়েছে মাস্ক ব্যবহার করতে। বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, সাধারণ মানুষও চাইছে করোনা বিধি মানতে। কিন্তু ট্রেন চালানোর পরিকল্পনায় কিছু গলদ থাকার দরুন নিত্য যাত্রীদের ভোগান্তি হলো প্রথম দিন। আপাতত 100% রেল চলার অপেক্ষায় সাধারণ মানুষ। তাহলে হয়তো পরিস্থিতির কিছুটা বদল ঘটতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!