এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > প্রশান্ত কিশোরকে মাত দিতে এবার বড়সড় ঘুটি সাজাচ্ছে বিজেপি, সামনে এলো কয়েকটি তথ্য!

প্রশান্ত কিশোরকে মাত দিতে এবার বড়সড় ঘুটি সাজাচ্ছে বিজেপি, সামনে এলো কয়েকটি তথ্য!



আপনাদের সুবিধার্থে খবরের শেষে বিধানসভা ২০২১ উপলক্ষে আমাদের করা সর্বশেষ সমীক্ষার প্রতিটির লিঙ্ক দেওয়া আছে।

আপনার মতামত জানান -

প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – বাংলাকে টার্গেট করে ইতিমধ্যেই বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব বাংলা দখলে নানা রণকৌশল সাজাতে শুরু করেছে। সর্বভারতীয় ক্ষেত্রে বিস্তার লাভ করা পাঁচ নেতাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে বাংলায়। যেনতেন প্রকারেন তৃণমূল কংগ্রেসকে চাপে রাখা এখন বিজেপির কাছে প্রধান টার্গেট হয়ে দাঁড়িয়েছে। কিন্তু যেখানে প্রতিপক্ষে রয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, সেখানে বিজেপির পক্ষে তৃণমূল কংগ্রেসকে সরিয়ে আদৌ ক্ষমতা দখল করা সম্ভব হবে কিনা, তা নিয়ে বড় প্রশ্ন তৈরি হয়েছে রাজনৈতিক মহলে।

তবে বিজেপি তৃণমূলের রাজনৈতিক পরামর্শদাতা প্রশান্ত কিশোরকে চাপে রেখে এখন বেশ কিছু পদ্ধতি প্রয়োগ করতে উদ্যত হচ্ছে। মূলত, বর্তমানে এই প্রশান্ত কিশোরের বিভিন্ন নীতিকে কেন্দ্র করে তৃণমূলে ব্যাপক বিদ্রোহ তৈরি হয়েছে। দলের দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই প্রশান্ত কিশোর তৃণমূল নেতৃত্বের কাছে সুপারিশ করে বিভিন্ন জেলায় সাংগঠনিক রদবদল করেছে। যার ফলে তৈরি হয়েছে বিক্ষুব্ধ সংখ্যা।

আর সেই সমস্ত বিক্ষুব্ধরা বিধানসভা নির্বাচনের আগে ভারতীয় জনতা পার্টিতে যোগ দিতে পারেন বলে মনে করা হচ্ছে। স্বাভাবিকভাবেই এই সুযোগকে কাজে লাগাতে চলেছে বিজেপি নেতৃত্ব। তাই সেই সমস্ত বিক্ষুব্ধদের এনে তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে আরও লাগাতারভাবে বিধানসভা নির্বাচনের আগে প্রচার করতে উদ্যত হচ্ছে তারা।

এদিকে ইতিমধ্যেই বিজেপির পক্ষ থেকে যে পাঁচ জন নেতাকে বাংলার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে, তাদের বহিরাগত বলে দাবি করতে শুরু করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। তবে তৃণমূলের এই প্রচারকে পাল্টা দমিয়ে দিতে বিজেপির পক্ষ থেকে পাল্টা একটি রণকৌশল নেওয়া হয়েছে। যেখানে প্রশান্ত কিশোরকে তৃণমূলের রাজনৈতিক পরামর্শদাতা।

তাই প্রশান্ত কিশোরকেও বহিরাগত বলে এখন পাল্টা তৃণমূলের বিরুদ্ধে বাঙালির আবেগকে কাজে লাগানোর চেষ্টা করছে পদ্ম শিবির বলে মনে করছেন একাংশ। স্বাভাবিকভাবেই বিজেপি নেতাদের সম্পর্কে তৃণমূল কংগ্রেস প্রশ্ন তুললে বিজেপির পক্ষ থেকে এই প্রশ্ন তুলে তাদের কাছে পাল্টা আক্রমন করা হবে, তা কার্যত পরিষ্কার বিশেষজ্ঞদের কাছে। যার ফলে বিজেপির এই নীতির কাছে ব্যাপকভাবে চাপে পড়তে পারে ঘাসফুল শিবির বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

এদিকে বিজেপির পক্ষ থেকে বর্তমানে তৃণমূলের সরকারের বিরুদ্ধে নানা ইস্যুকে কাজে লাগিয়ে প্রচার করতে শুরু করেছে ভারতীয় জনতা পার্টি। যেখানে রাজ্যের আইন শৃঙ্খলা থেকে শুরু করে নানা বিষয় তুলে ধরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারকে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছে তারা। আর এই পরিস্থিতিতে মানুষের কাছে গিয়ে আরও বেশি করে রাজ্যের নানা বিষয় তুলে ধরে তৃনমূলের বিরুদ্ধে সরব হতে পারে গেরুয়া শিবির। তাই এই সমস্ত বিষয় তুলে ধরে তৃণমূল সম্পর্কে মানুষের মনে আরও খারাপ ভাবমূর্তি তৈরি করতে বিজেপির পক্ষ থেকে লাগাতার প্রচার করে নিজেদের সংগঠন শক্তিশালী করার চেষ্টা হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

তবে বিজেপি যখন এই সমস্ত প্রচারের ওপর নির্ভর করে এগিয়ে যেতে শুরু করেছে, তখন তৃণমূলের পক্ষ থেকে পাল্টা রাজ্যের উন্নয়নের কথা তুলে ধরে মানুষের কাছে পৌঁছে যাওয়া হচ্ছে। তবে বিজেপিও উন্নয়ন ইস্যুতে তৃণমূলকে জায়গা ছাড়তে নারাজ। জানা যাচ্ছে, বর্তমানে কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের পক্ষ থেকে যে সমস্ত উন্নয়নমূলক প্রকল্প চালু করা হয়েছে, তার সুফল কিভাবে মানুষের কাছে পৌঁছেছে, তা বাংলার বিধানসভা নির্বাচনের আগে মানুষের কাছে তুলে ধরবে গেরুয়া শিবির।

অর্থাৎ উন্নয়ন ইস্যুতেও যে তৃণমূলকে তারা বিন্দুমাত্র জায়গা ছেড়ে দেবে না, তা কার্যত স্পষ্ট। একাংশ বলছেন, এই সমস্ত ইস্যুর ওপর নির্ভর করেই একদিকে তৃণমূলের বিদ্রোহী ভোটব্যাংকে কাজে লাগানোর চেষ্টা এবং অন্যদিকে উন্নয়নের মধ্যে দিয়ে মোদি সরকারের সুফল কাদের কাছে পৌঁছেছে, তা তুলে ধরে বাংলায় পরিবর্তন আনতে চাইছে ভারতীয় জনতা পার্টি। আর বিজেপির এই সমস্ত কৌশল আগামীদিনে তৃণমূলকে কতটা চাপে রাখে এবং তার ফলে বিজেপির ভোটব্যাংক কতটা সমৃদ্ধ হয়, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

একনজরে দেখে নিন আমাদের সর্বশেষ বিধানসভা ২০২১ ওপিনিয়ন পোল –

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – দ্বিতীয় পর্ব – 

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – প্রথম পর্ব – 

# মালদহ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# উত্তর দিনাজপুরে জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# জলপাইগুড়ি ও কালিম্পঙ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# আলিপুরদুয়ার ও দার্জিলিং জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# কুচবিহার জেলার ওপিনিয়ন পোল –

আপনার মতামত জানান -
আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!