এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > প্রকাশ্যেই অনুব্রত-স্বপনদের এনকাউন্টারের হুমকি বিজেপি নেতার! পুলিশের সাহায্য নেবে তৃণমূল!

প্রকাশ্যেই অনুব্রত-স্বপনদের এনকাউন্টারের হুমকি বিজেপি নেতার! পুলিশের সাহায্য নেবে তৃণমূল!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – একুশের বিধানসভা নির্বাচনের দোরগোড়ায় দাঁড়িয়ে ক্রমাগত একে অপরের বিরুদ্ধে বিষোদগার করে চলেছে রাজ্যের দুই প্রধান বিরোধী শিবির তৃণমূল এবং বিজেপি। একদিকে যেমন তৃণমূল দাবি করছে, বিজেপির পক্ষ থেকে ক্রমাগত কটাক্ষ, হুমকি চলছে। ঠিক সেভাবেই পাল্টা বিজেপি শিবির থেকে অভিযোগ জানানো হয়েছে, বিনা কারণে তাঁদের দলের নেতাকর্মীদের খুন করা হচ্ছে, জেলে ভরা হচ্ছে, মামলা করা হচ্ছে তাঁদের নামে। এই পরিস্থিতিতে আরেকবার উত্তপ্ত হয়ে উঠল কালনা শহর।

সম্প্রতি কালনা শহরে দলীয় কর্মী খুনের ঘটনায় দোষীদের গ্রেপ্তার এবং শাস্তির দাবিতে কালনা থানা ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখায় বিজেপি। এই কর্মকান্ডের পুরোধা ছিলেন বিজেপি রাজ্য সহ-সভাপতি রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়। আর এই বিক্ষোভ কর্মসূচি থেকেই রাজু বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ এবং বীরভূমের জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলকে এনকাউন্টারের হুমকি দিয়েছেন বলে অভিযোগ তৃণমূলের। প্রসঙ্গত জানা গেছে, উত্তর প্রদেশের গ্যাংস্টার বিকাশ দুবের এনকাউন্টারের ঘটনা টেনে এনে রাজু বন্দ্যোপাধ্যায় হুমকি দেন।

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

বুধবার কালনা শহরের তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি দেবপ্রসাদ বাগ থানায় অভিযোগ করেন। অন্যদিকে রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়ের মন্তব্য ঘিরে শুরু হয় তীব্র বিতর্ক। তৃণমূলের অভিযোগ, শান্তিপূর্ণ এলাকাকে ইচ্ছাকৃতভাবে অশান্ত করার চেষ্টা চালাচ্ছে বিজেপি। এই প্রসঙ্গে এলাকার তৃণমূল সভাপতি দেবপ্রসাদ বাগ জানিয়েছেন, বিজেপি যে কারণে বিক্ষোভ, ঘেরাও করেছে সেই খুনের ঘটনায় আদৌ বিজেপির লোক মারা যায়নি। একজন অরাজনৈতিক ব্যক্তিকে নিয়ে রাজনীতি করছে গেরুয়া শিবির। অন্যদিকে তিনি আরো জানিয়েছেন, বিজেপির পক্ষ থেকে তৃণমূলের নেতাকর্মীদের ক্রমাগত খুনের হুমকি দেওয়া হচ্ছে।

অন্যদিকে মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ জানিয়েছেন, উন্নয়নের সূত্রে রাজ্যের মানুষ তৃণমূলের সঙ্গে। বিজেপি এলাকায় উত্তেজনা সৃষ্টি করতে চাইছে। একইভাবে বিজেপির কাটোয়া সাংগঠনিক জেলার সভাপতি কৃষ্ণ ঘোষ জানিয়েছেন রাজনৈতিকভাবে তৃণমূলের মোকাবিলা করবে গেরুয়া শিবির। রাজ্য জুড়ে আগামী বিধানসভা নির্বাচনের জন্য ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে তোড়জোড়। রাজ্যের সবকটি রাজনৈতিক দল এই মুহূর্তে চূড়ান্ত ব্যস্ত। কিন্তু তার মধ্যেও একে অপরকে কোণঠাসা করার কাজ চলছে পুরোদমে। সেক্ষেত্রে তৃণমূল এবং বিজেপি এগিয়ে আছে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। তবে বাংলার বুকে কে এগিয়ে থাকবে, সে কথা জানতে গেলে অপেক্ষা করতে হবে আরো বেশ কয়েক মাস।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!