এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মালদা-মুর্শিদাবাদ-বীরভূম > পৌরভোটের আগে উত্থান হেভিওয়েট প্রাক্তন মন্ত্রীর, খুশির হাওয়া জেলাজুড়ে!

পৌরভোটের আগে উত্থান হেভিওয়েট প্রাক্তন মন্ত্রীর, খুশির হাওয়া জেলাজুড়ে!



এককালে মালদহ জেলায় শেষ কথা বলতেন কৃষ্ণেন্দু নারায়ণ চৌধুরী। ইংরেজবাজার পৌরসভার চেয়ারম্যানের পাশাপাশি গত 2011 সালে বিধায়ক হয়ে রাজ্যের গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রীর দায়িত্ব সামলেছেন তিনি। কিন্তু তারপর যত দিন গেছে, ততই কোণঠাসা হতে শুরু করেন এই কৃষ্ণেন্দু নারায়ণ চৌধুরী। মালদহ জেলায় গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব এবং 2016 সালে নির্বাচনের পরাজয়ের পর দলে সেভাবে গুরুত্ব পাচ্ছিলেন না তিনি‌। সম্প্রতি নানা ঘটনায় কৃষ্ণেন্দু নারায়ণ চৌধুরী বিজেপিতে যোগ দিতে পারেন বলে জল্পনা ছড়িয়ে পড়ে মালদহ জেলা জুড়ে।

কিন্তু বুধবার পুরাতন মালদহের দলীয় কর্মীসভায় কৃষ্ণেন্দু নারায়ণ চৌধুরীকে একাধিক দায়িত্ব মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দেওয়ায়, রীতিমতো খুশির হাওয়া তৈরি হয়েছে সেই কৃষ্ণেন্দুবাবুর অনুগামীদের মধ্যে। একাংশের মতে, ইংরেজবাজার পৌরসভা নির্বাচনে কৃষ্ণেন্দু নারায়ণ চৌধুরী ছাড়া যে জয় কার্যত অসম্ভব, তা বুঝতে পেরেছেন তৃণমূলের শীর্ষ নেতৃত্ব। আর তাই দীর্ঘদিন ধরে পাত্তা না পাওয়া কৃষ্ণেন্দুবাবুকে এবার বাড়তি দায়িত্ব দিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বুঝিয়ে দিলেন যে, পৌরসভা নির্বাচনে তিনিই হলেন তৃণমূলের জয়ের সারথি।

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

কখনও সাবিত্রী মিত্রের সঙ্গে তার দ্বন্দ্ব, আবার কখনও বা সাম্প্রতিককালে ইংরেজবাজার পৌরসভার বর্তমান চেয়ারম্যান নীহার রঞ্জন ঘোষের সঙ্গে কৃষ্ণেন্দু নারায়ণ চৌধুরীর দ্বন্দ্ব রীতিমতো আলোড়ন তুলেছে মালদহে। আর এই পরিস্থিতিতে যখন কৃষ্ণেন্দু নারায়ণ চৌধুরী রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ নিয়ে নানা মহলে জল্পনা চলছিল, তখন মালদহের কর্মীসভা থেকে তাকে হবিবপুর, গাজোলের দায়িত্ব দেওয়ার পাশাপাশি ইংরেজবাজার পৌরসভার দায়িত্ব দিয়ে দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিকে এদিন কৃষ্ণেন্দু নারায়ণ চৌধুরী দায়িত্ব পাওয়ার সাথে সাথেই তার ব্যক্তিগত কার্যালয়ে ভিড় বাড়তে শুরু করে অনুগামীদের।

এদিন এই প্রসঙ্গে তাঁর ঘনিষ্ঠ এক তৃণমূল কর্মী বলেন, “দল অবশেষে বুঝতে পারল যে, পৌরসভা ভোট কৃষ্ণেন্দুকে ছাড়া সহজ নয়। সেই কারণেই হয়ত তার গুরুত্ব বাড়িয়ে দেওয়া হল। এতে আমরা উজ্জীবিত।” অন্যদিকে এই ব্যাপারে কৃষ্ণেন্দু নারায়ণ চৌধুরীর ঘনিষ্ঠ এক তৃণমূল কাউন্সিলর বলেন, “কৃষ্ণেন্দুর গুরুত্ব অবশেষে দল বুঝতে পারায় আমরা খুশি।” কিন্তু যাকে নিয়ে এত কিছু, সেই কৃষ্ণেন্দু নারায়ণ চৌধুরী কি বলছেন! এদিন এই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “দলনেত্রী যে নির্দেশ ও দায়িত্ব দিয়েছেন, তা আমি সর্বতভাবে পালনের চেষ্টা করব।” সব মিলিয়ে এবার দীর্ঘদিন ধরে তাহলে ব্যাকফুটে থাকার পর নেত্রীর নির্দেশে সামনের সারিতে আসা কৃষ্ণেন্দু নারায়ণ চৌধুরী দলকে কতটা সাফল্য দিতে পারেন, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

ট্যাগড
Top
error: Content is protected !!