এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > আমার সবচেয়ে বড় পরিচয় আমি আপনাদের আত্মার আত্মীয়! কালীপূজোর সন্ধ্যেয় জল্পনা বাড়ালেন শুভেন্দু

আমার সবচেয়ে বড় পরিচয় আমি আপনাদের আত্মার আত্মীয়! কালীপূজোর সন্ধ্যেয় জল্পনা বাড়ালেন শুভেন্দু



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – কালী পুজোর উদ্বোধন করতে গিয়ে শুভেন্দু অধিকারী জনসভায় দাঁড়িয়ে নিজের দলগত পরিচয়ের থেকে বড় করে তুললেন তাঁর আত্মিক পরিচয়। কালীপুজোর উদ্বোধন উপলক্ষে বাঁকুড়া সফরে এসেছিলেন তৃণমূল নেতা আর সেখানেই শুভেন্দু অধিকারী ভারত সেবাশ্রম সংঘের একটি অনুষ্ঠানে যোগদান করেন। ভারত সেবাশ্রম সংঘ একটি অতি পরিচিত নাম। বরাবরই ভারত সেবাশ্রম সংঘের পক্ষ থেকে মানুষের জন্য কাজ করা হয়। অন্যদিকে এই মুহূর্তে রাজ্য রাজনীতির সবথেকে আলোচ্য ব্যক্তি হলেন পরিবহণমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী।

শুক্রবার তিনি ঝটিকা সফরে গিয়েছিলেন বাঁকুড়া এবং সেখানেই ভারত সেবাশ্রম সংঘের একটি অনুষ্ঠানে যোগ দেন তিনি। আর সেই অনুষ্ঠানে শুভেন্দু অধিকারী নিজের পরিচয় দেন আত্মার আত্মীয় বলে। একইভাবে এদিন শুভেন্দু অধিকারী বাঁকুড়া শহরের কলেজ রোড গ্লোবাল 29 ক্লাবে 27 তম বর্ষের কালী পুজোর উদ্বোধন করতে গিয়েও একই মন্তব্য করেন তিনি। নিজের প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, ‘আমার পরিচয় যাই হোক না কেন, পদ যাই থাকুক না কেন, আমার সবচেয়ে বড় পরিচয় আমি আপনাদের আত্মার আত্মীয়। আমি সব সময় আপনাদের সঙ্গে থাকার চেষ্টা করবো’।

প্রসঙ্গত শুভেন্দু অধিকারী এদিন বাঁকুড়া শহরে আসার খবর পাওয়ার পর থেকেই দেখা গেছে, বাঁকুড়া শহর থেকে জঙ্গলমহল এমনকি বিষ্ণুপুরের বিভিন্ন এলাকাতেও দাদার অনুগামীদের পোস্টার এবং ফেস্টুন। শুভেন্দু অধিকারীর অনুগামীদের সংখ্যা এই জেলায় ক্রমাগত বেড়ে চলেছে তা কিন্তু আরো স্পষ্ট হলো এদিন। তবে শুভেন্দু অধিকারীর এদিনের সবকটি কর্মসূচিতে জঙ্গলমহল সহ বাঁকুড়া জেলার শীর্ষ তৃণমূল নেতৃত্বকে উপস্থিত থাকতে দেখা গেছে।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

অন্যদিকে জানা গিয়েছে, শুভেন্দু অধিকারী এদিন বাঁকুড়ায় পৌঁছে প্রথমেই শহরের ভারত সেবাশ্রম সংঘের যান। এরপর সেখানে একটি অনুষ্ঠানে তিনি 8000 পরিযায়ী শ্রমিককে শীত বস্ত্র বিতরণ করেন। এরপর শহরের গ্লোবাল টোয়েন্টি নাইন এর 27 তম বর্ষের কালীপুজো উদ্বোধন করেন শুভেন্দু। এরপর রবীন্দ্র সরণি ইউনাইটেড ক্লাবে পৌঁছে যান তিনি, সেখানে প্রস্তর নির্মিত কালী মূর্তির আবরণ উন্মোচন করেন। সবশেষে তিনি পুয়াবাগান পঞ্চবটিতে কালী পুজোর উদ্বোধন করে তাঁর ঝটিকা বাঁকুড়া জেলা সফর শেষ করেন।

অন্যদিকে কালীপুজোর আবহে যেভাবে শুভেন্দু অধিকারী বাঁকুড়া জেলায় গিয়ে নিজের রাজনৈতিক পরিচয় সত্বেও তিনি যেভাবে মানুষের কাছাকাছি যাওয়ার চেষ্টা করলেন, তা যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে। অন্যদিকে জঙ্গলমহলে কিন্তু একুশের বিধানসভা নির্বাচনে তৃণমূল শিবির কর্তৃত্ব ফিরে পেতে আগ্রহী। কিন্তু সে জায়গায় দাঁড়িয়ে দেখা যাচ্ছে, জঙ্গলমহলে তৃণমূল শিবির কিন্তু এই মুহূর্তে ভাগ হয়ে গিয়েছে। আপাতত পরিস্থিতির ওপর কড়া নজর রাখছে রাজ্যের ওয়াকিবহাল মহল।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!