এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > পিকে-র টিম এর ভয়ে একের পর এক কর্মসূচিতে বড়োসড়ো জমায়েত তৃণমূলের, ভাঙছে স্বাস্থ্যবিধি!

পিকে-র টিম এর ভয়ে একের পর এক কর্মসূচিতে বড়োসড়ো জমায়েত তৃণমূলের, ভাঙছে স্বাস্থ্যবিধি!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – গত ২০১৯ এর লোকসভা নির্বাচনে রাজ্যে আশানুরূপ ফল লাভে সমর্থ হয়নি রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস। এরপর আগামী ২০২১ এর বিধানসভা নির্বাচনে মসনদ ধরে রাখতে ভোট কুশলী প্রশান্ত কিশোরকে রাজ্যে তলব করে আনে শাসক দল তৃণমূল। আগামী ২০২১ এর বিধানসভা নির্বাচনে শাসক দল তৃণমূলকে জয়যুক্ত করতে একাধিক পদক্ষেপ যেমন নিয়েছে প্রশান্ত কিশোর ও তাঁর টিম পিকে। তেমনি শাসকদল তৃণমূলের উপর যথেষ্ট ভাবে নজরদারিও চালাচ্ছেন তিনি।

সম্প্রতি দলের গণসমর্থন ও গণভিত্তি পর্যবেক্ষণ করতে শাসক দলের বিভিন্ন কর্মসূচিতে কেমন লোক সমাগম হচ্ছে সে বিষয়টির উপরেও নজর রাখছে পিকে টিম। এ কারণেই শাসক দলের বিভিন্ন কর্মসূচিগুলোতে বেশি লোক জমায়েত করবার চেষ্টা চলছে দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে।

গতকাল রবিবার সকালে ঝাড়গ্রাম জেলায় গোপীবল্লভপুর ১ ব্লক তৃণমূল এর উদ্যোগে ছাতিনাশোল থেকে কেন্দুয়াবাঁধি পর্যন্ত পর্যন্ত এক বিরাট বাইক মিছিলের আয়োজন করা হয়েছিল। কেন্দ্রীয় কৃষি বিলের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে এর আয়োজন। সদ্য দায়িত্বপ্রাপ্ত গোপীবল্লভপুর-১ ব্লক তৃণমূল সভাপতি হেমন্ত ঘোষ জানিয়েছেন যে, গতকালের এই বাইক ৱ্যালিতে ২০০০ জন বাইক আরোহী ছিল। এই বাইক ৱ্যালির পর শাসড়া অঞ্চলের বিরসা চকে এক বিরাট পথসভার আয়োজন করা হয়েছিল। সেখানেও বিপুল জন সমাগম ঘটেছিল।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

অন্যদিকে সদস্য দায়িত্বপ্রাপ্ত ঝাড়গ্রাম ব্লক সভাপতি নরেন মাহাতোও গতকাল বিরাট জমায়েত ঘটালেন। প্রসঙ্গত পূর্বের মাওবাদী নেতা ও সম্প্রতি তৃণমূল নেতা ছত্রধর মাহাতোর বিশেষ অনুগামী হিসেবে পরিচিত আছেন তিনি। গতকাল কেন্দ্র প্রণীত নয়া কৃষি বিলে ও হাথরাসের গণধর্ষণের ঘটনার প্রতিবাদে কয়েক হাজার তৃনমূল সদস্যকে নিয়ে একটি মিছিলের আয়োজন করেছিলেন তিনি লোধাশুলিতে । মিছিলের পর লোধাশুলি চকে একটি বিরাট পথসভার আয়োজনও করেছিলেন তিনি। এ প্রসঙ্গে নরেন বাবু জানালেন, ” এলাকার মানুষের সঙ্গে আমার নিবিড় যোগাযোগ। দলে দলে লোক তাই কর্মসূচিতে আসছেন।’’

গতকালের এই দুই সমাগম প্রসঙ্গে ঝাড়গ্রাম তৃণমূল জেলা সভাপতি দুলাল মুর্মুর দাবি, ” সভা-মিছিলে ভিড় হলেও যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে।” তবে করোনা সংক্রমণ কালে শাসকদল তৃণমূলের একাধিক কর্মসূচিতে বিপুল জনসমাগমের ঘটনা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে বিভিন্ন মহলে। বিরোধীদের অভিযোগ, তাঁরা কোনো কর্মসূচি বা অনুষ্ঠানের আয়োজন করলে তাঁদের কাজে বাধা দান করে পুলিশ। অথচ শাসক দল তৃণমূল সেখানে নির্বিঘ্নে সমাবেশ ঘটিয়ে চলেছে। এমন জনসমাবেশ থেকে করোনা সংক্রমণে যে ছড়াতে পারে সে বিষয়ে সংশয়িত অনেকেই।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!