এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > অনুব্রত-গড়ের গোপন কথা ফাঁস মন্ত্রীর? হুগলিতে MLA-MP-দের সাথে তীব্র দ্বন্দ্ব জেলা সভাপতির?

অনুব্রত-গড়ের গোপন কথা ফাঁস মন্ত্রীর? হুগলিতে MLA-MP-দের সাথে তীব্র দ্বন্দ্ব জেলা সভাপতির?



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – একুশের বিধানসভা নির্বাচন যত এগিয়ে আসছে, ততই তৃণমূলের অন্দরে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব প্রবল হয়ে উঠছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। এমনিতেই তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব নিয়মিত খবরের শিরোনামে উঠে আসছে দীর্ঘদিন ধরে। রাজনৈতিক মহলেও এ নিয়ে চলছে তীব্র সমালোচনা। অন্যদিকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি ক্রমাগত গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব বন্ধ করার আবেদন করে চলেছেন দলের নিম্ন স্তর থেকে উচ্চস্তর সর্বত্র। কিন্তু শাসকদলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব বন্ধ হবার কোন লক্ষণ দেখা যাচ্ছেনা।

বরং দিনি দিন তা আরও বেড়ে যাচ্ছে। এবার আবারও বীরভূম জেলার নানুরে তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব নিয়ে প্রকাশ্যে সরব হলেন রাজ্যের মৎস্য মন্ত্রী। কদিন ধরেই শাসক দলের বেশ কিছু নেতা-নেত্রী দলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব নিয়ে সরব হয়েছেন। এবার রাজ্যের মৎস্য মন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিংহ প্রকাশ্যে দলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করলেন। গতকাল আরামবাগের সাংসদ অপরুপা পোদ্দার হুগলি জেলার সভাপতি দিলীপ যাদবের বিরুদ্ধেও প্রকাশ্যে সরব হয়েছিলেন বলে জানা যায়।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

তিনি অভিযোগ করেছিলেন, জেলা সভাপতি দিলীপ যাদব তাঁকে না জানিয়ে এলাকায় সভা করছেন। এর ফলে দলের নিচুস্তরে ভুল বার্তা যাচ্ছে বলে অপরূপা দাবী জানিয়েছেন। অন্যদিকে, এর আগে দিলীপ যাদবের বিরুদ্ধে সরব হয়েছিলেন হুগলি জেলার আর এক তৃণমূল নেতা বেচারাম মান্নাও। সম্প্রতি রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় শাসকদলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব প্রকট হয়ে দেখা যাচ্ছে। ইতিমধ্যে উত্তরবঙ্গের শাসক দলের নেতাদের প্রবল গোষ্ঠীদ্বন্দ প্রকাশ্যে এসেছে। নেত্রী নিজে আসরে নেমেছেন উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জেলার গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব বন্ধের উদ্দেশ্যে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, রাজ্যজুড়ে যেভাবে ক্রমাগত শাসকদলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব বেড়ে চলেছে এবং তা নিয়ে খোদ রাজ্যের মন্ত্রী যখন মুখ খুলেছেন, স্বাভাবিকভাবেই বীরভূমে দলকে চরম অস্বস্তির মুখে দাঁড় করিয়েছে। এব্যাপারে অবশ্য বীরভূমের জেলা পরিদর্শক অনুব্রত মন্ডল কোনো প্রতিক্রিয়া জানাননি। রাজনৈতিক মহলের একাংশের মতে, একুশের বিধানসভা নির্বাচনের আগে দ্রুত গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব বন্ধ করতে না পারলে আগামী দিনে কিন্তু চরম বিপর্যয়ের মুখে পড়তে হবে শাসক দলকে। এবং বলাই বাহুল্য শাসকদলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের সুযোগ অবধারিতভাবে নেবে রাজ্যের বিরোধী দলগুলি।

আপনার মতামত জানান -

ট্যাগড
Top
error: Content is protected !!