এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > প্রার্থী হতে না পেরে মালদহ জেলা পরিষদে উলটপুরাণ, তৃণমূলের প্রতি আস্থা!

প্রার্থী হতে না পেরে মালদহ জেলা পরিষদে উলটপুরাণ, তৃণমূলের প্রতি আস্থা!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – কিছুদিন আগেই মালদহ জেলা পরিষদের সভাধিপতি সহ একাধিক সদস্য যোগদান করেছিলেন ভারতীয় জনতা পার্টিতে। কিন্তু বিজেপির চতুর্থ দফার প্রার্থী তালিকা প্রকাশের কিছু সময়ের মধ্যেই সেই মালদহ জেলা পরিষদে ভিন্ন চিত্র সামনে এল। যেখানে একসময় বিজেপিতে যাওয়া তিন সদস্য চিঠি দিয়ে জানিয়ে দিলেন, তাঁরা তৃণমূল কংগ্রেসেই রয়েছেন। স্বাভাবিক ভাবেই এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে কার্যত আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে মালদহ জেলা রাজনীতিতে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, মালদহ জেলা পরিষদের মোট 38 টি আসনের মধ্যে 30 টি তৃণমূলের দখলে ছিল। এছাড়াও ছটি বিজেপি এবং দুটি কংগ্রেসের দখলে ছিল। কিন্তু কংগ্রেস এবং বিজেপি ছেড়ে একজন করে সদস্য তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দেওয়ার ফলে তৃণমূলের আসন সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে 32 টি। অন্যদিকে বিজেপি এবং কংগ্রেসের একটি করে আসন কমতে থাকে।

আর এই পরিস্থিতিতে কিছুদিন আগেই মালদহ জেলা পরিষদের সভাধিপতি গৌরচন্দ্র মণ্ডল সহ 14 জন তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করায় বিজেপির আসন সংখ্যা 19 জনে দাঁড়িয়ে যায়। অন্যদিকে তৃণমূলের আসন সংখ্যা হয় 18 টি। আর এই পরিস্থিতিতে বিজেপির পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, তারা মালদহ জেলা পরিষদ দখল করছে। কিন্তু চতুর্থ দফার প্রার্থী তালিকা ঘোষণার সাথে সাথেই বিজেপিতে যাওয়া তিন সদস্য জানিয়ে দিলেন, তারা তৃণমূল কংগ্রেসে রয়েছেন।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

স্বাভাবিক ভাবেই এই পরিস্থিতিতে বিজেপিতে মালদহ জেলা পরিষদ দখল করার দাবি যে অনেকটাই ব্যাকফুটে পড়ে গেল, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। এদিন এই প্রসঙ্গে কিছুদিন আগেই বিজেপিতে যাওয়া পরিষদের কর্মাধ্যক্ষ সন্তোষ চৌধুরী বলেন, “আমরা চিঠি দিয়ে দলকে জানিয়েছি, আমরা তৃণমূলে ছিলাম, তৃণমূলেই আছি।” অন্যদিকে এই ব্যাপারে কিছুটা উজ্জীবিত তৃণমূল কংগ্রেসের মালদহ জেলা কো-অর্ডিনেটর হেমন্ত শর্মা বলেন, “বিজেপির দাবি ভিত্তিহীন। অনেকে আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করছে। আমরা খুব তাড়াতাড়ি দেখিয়ে দেব, মালদহ জেলা পরিষদ তৃণমূলের দখলে ছিল, আছে এবং থাকবে।”

যদিও বা তৃণমূলকে পাল্টা চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছে ভারতীয় জনতা পার্টি। এদিন এই প্রসঙ্গে মালদহ জেলা বিজেপির সভাপতি গোবিন্দ্র চন্দ্র মন্ডল বলেন, “অনাস্থা নিয়ে আসুন। তাতে আমাদের আপত্তি নেই। আমরা সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণ করব। তৃণমূলের সংখ্যাগরিষ্ঠতা থাকলে প্রমাণ করুক।” স্বাভাবিক ভাবেই গোটা পরিস্থিতিকে কেন্দ্র করে এখন কার্যত আলোড়ন সৃষ্টি হয়ে গিয়েছে মালদহ জেলা রাজনীতিতে। সব মিলিয়ে এখন দেখার বিষয়, মালদহ জেলা পরিষদ কোন দলের দখলে থাকে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!