এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > পুরুলিয়ায় অভিষেক ব্যানার্জির পা পড়তেই বিরোধী দল থেকে তৃণমূলে যোগ শুরু হয়ে গেল

পুরুলিয়ায় অভিষেক ব্যানার্জির পা পড়তেই বিরোধী দল থেকে তৃণমূলে যোগ শুরু হয়ে গেল



পঞ্চায়েত নির্বাচনে রাজ্যজুড়ে ঘাসফুলের দাপট থাকলেও কয়েকটি জেলায় বিজেপির উত্থান বেশ লক্ষ্যণীয় ছিল। এর মধ্যে অন্যতম পুরুলিয়া, আর যেহেতু শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে এই জেলার দায়িত্ত্বে আছেন দলের অঘোষিত দুনম্বর নেতা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়, তাই বিজেপির এই উত্থান আরো যেন বেশি করে সবার নজর টানছে। যদিও পঞ্চায়েত নির্বাচনের ফল ঘোষণার দিন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নবান্নে দাঁড়িয়ে জানিয়েছিলেন পুরুলিয়া জেলাতে বিজেপি-শিবির প্রচুর টাকা ছড়িয়েছে এবং বাইরের রাজ্য থেকে লোক ঢুকিয়ে গন্ডগোল করে জিতেছে। অন্যদিকে কিছুদিন আগেই অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এক দলীয় সভায় দাঁড়িয়ে ঘোষণা করেন, ১ লা জুন আমি পুরুলিয়া যাব, সব বিরোধীশূন্য করে চলে আসব।

সেই কথামত তিনি পুরুলিয়া পৌঁছান ও দলীয় নেতাদের সঙ্গে অভ্যন্তরীণ বৈঠক করেন। যদিও এর মাঝেই পুরুলিয়াতে দু-দুজন বিজেপি কর্মী খুন হওয়াতে তা সাড়া দেশের রাজনীতিতে শোরগোল ফেলে দিয়েছে। কাকতালীয়ভাবে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কেও এবারের পুরুলিয়া সফরে সেভাবে কোনো রাজনৈতিক পদক্ষেপ নিতে দেখা যায় নি। কিন্তু তৃণমূল যুব কংগ্রেস সভাপতি জেলা ছাড়তেই বিরোধী শিবির ছেড়ে শাসকদলের উন্নয়নে শামিল হওয়া শুরু হয়ে গেল। পুরুলিয়া জেলার রঘুনাথপুর ১নং ব্লকের নূতনডি অঞ্চলের ৭ নং পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য মমতা মন্ডল ও আড়রা অঞ্চলের ১৬ নং পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য টুম্পা বাউরি, নতুনডি গ্রাম পঞ্চায়েতের নমিতা বাউরি, বেরো গ্রাম পঞ্চায়েতের সেখ আতাউল্লা বিজেপি ছেড়ে তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দিলেন। রঘুনাথপুর বিধানসভার বিধায়ক পূর্ণচন্দ্র বাউরীর নেতৃত্বে পুরুলিয়া জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি তথা মন্ত্রী শান্তিরাম মাহাতোর হাত থেকে দলীয় পতাকা নিয়ে এই দলবদল ঘটে। তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদানের পর দলবদল করা পঞ্চায়েত প্রতিনিধিরা জানান, মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উন্নয়নে শামিল হওয়ার জন্যই তাঁরা এই দলবদল করেন।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!