এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > ভোটের বাহিনী নিয়ে খোদ নির্বাচন কমিশন অন্ধকারে, বাড়ছে রাজনৈতিক জল্পনা

ভোটের বাহিনী নিয়ে খোদ নির্বাচন কমিশন অন্ধকারে, বাড়ছে রাজনৈতিক জল্পনা



সোমবার কমিশনের দফতরে রাজ্য পুলিশের ডিজি সুরজিত্‍ কর পুরকায়স্থ, স্বরাষ্ট্রসচিব অত্রি ভট্টাচার্য ও এডিজি আইনশৃঙ্খলার সঙ্গে বৈঠক করেন কমিশনার অমরেন্দ্রকুমার সিং। এদিন নির্বাচন কমিশন নির্দেশ দিলেন প্রতিবেশী রাজ্য থেকে অতি সত্বর পুলিশ বাহিনী আনার জন্যে। সূত্রের খবর অনুয়ারী, এদিন নির্বাচন কমিশনার রাজ্য পুলিশের ডি জি কে বলেন, “রাজ্য যত বুথ আছে তত বাহিনী নেই। আপনি তাড়াতাড়ি বাইরে থেকে বাহিনী নিয়ে আসুন।” যদিও বিশেষজ্ঞ মহলের মতে এদিনের বৈঠকে নির্বাচনের পুলিশি নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিষয়ে এখনও বেশ সংশয়ে রয়েছে নির্বাচন কমিশন।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

উল্লেখ্য ওডিশা, অন্ধ্রপ্রদেশ, তেলেঙ্গানা, পঞ্জাব ও অসম সহ মোট পাঁচ টি রাজ্যে বাহিনী চেয়ে চিঠি দিয়েছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার। এই রাজ্যগুলির মধ্যে অসম রাজ্য ছাড়া বাকি চার টি রাজ্যই অবিজেপি শাসিত। জানা গিয়েছে, এ দিন নিরাপত্তা সংক্রান্ত বৈঠকে রাজ্য নির্বাচন কমিশনের তরফে প্রশাসনিক আধিকারিকদের সামনে বিরোধী দলগুলোর বক্তব্য তুলে ধরা হয়। জানতে চাওয়া হয়, নির্বাচনে বুথভিত্তিক নিরাপত্তা কী হবে। এর পরই রাজ্যের তরফে একটি রিপোর্ট তুলে দেওয়া হয়েছে নির্বাচন কমিশনের কাছে। তবে সূত্র মারফত জানা গিয়েছে ঐ রিপোর্ট অসম্পূর্ণ। এমনকী, বুথভিত্তিক পুলিশের বিন্যাসও পরিষ্কার নয়। সিভিক ভলান্টিয়াররা নির্বাচনে ডিউটি করবেন কি না সেই বিষয়েও এখন স্পষ্ট ভাবে কিছু ঘোষনা করা হয়নি রাজ্য সরকারের তরফ থেকে। এ দিন ডিজি জানিয়েছেন, সব ভোট কেন্দ্রে দু’জন করে সশস্ত্র পুলিশ দেওয়া হবে। কতগুলো বুথে ভোট হবে এ দিন ডিজি তার হিসাব চেয়েছে কমিশনের থেকে। সূত্রের খবর, ভোট হবে ৪৭,৪৬৭টি বুথে। অন্যদিকে নবান্নের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে কমিশনের রিপোর্ট দেখেই নিরাপত্তা বাহিনীর বিন্যাস চূড়ান্ত করা হবে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!