এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > পুরুলিয়া-ঝাড়গ্রাম-বাঁকুড়া > পঞ্চায়েতে পালা বদল হতেই সরকারি ভবনের রং বদল,বিতর্ক তুঙ্গে

পঞ্চায়েতে পালা বদল হতেই সরকারি ভবনের রং বদল,বিতর্ক তুঙ্গে



জোড়াফুলের দাপটকে সরিয়ে এবার গেরুয়া-সবুজ রং- জায়গা করে নিল বাঁকুড়ার রাইপুরের মন্ডলকুলি গ্রাম পঞ্চায়েতের কার্যালয়ে। তৃণমূল সরকার ক্ষমতায় আসার পরই তাঁদের অবস্থান বোঝাতে নীল-সাদায় ঢেকে দিয়েছে সমস্ত সরকারি দপ্তর এবং অধিকৃত এলাকাগুলো। ঠিক একইভাবে রাইপুরের মন্ডলকুলি গ্রাম পঞ্চায়েতের কার্যালয়ে এতোদিন ছিল নীল-সাদা রং। জোড়া ফুলের পতাকা জানান দিচ্ছিল তৃণমূলের অধিকারের। কিন্তু এবারের ত্রিস্তরীয় পঞ্চায়েত নির্বাচনের পর এ এলাকায় পালাবদল ঘটেছে ক্ষমতার। বিজেপি তাঁদের সংখ্যাগরিষ্ঠতার ক্ষমতা বুঝিয়ে দিয়েছে। আর তারপরই বিজেপি অধিকৃত গ্রাম পঞ্চায়েতের অফিসটি সাদা-নীল রং হটিয়ে রাঙিয়ে দেওয়া হল গেরুয়া সবুজ রং-এ। আর এই রং বদলের পরই টনক নড়ে গিয়েছে স্থানীয় তৃণমূল নেতাদের। হইচই পড়ে গিয়েছে রাজনৈতিকমহলে। রাজনৈতিক বিতর্ক তুঙ্গে বাঁকুড়া জেলায়।

জেলা সূত্রের খবর থেকে জানা গিয়েছে, গত কয়েক বছর ধরেই রাইপুরের মন্তলকুলী গ্রাম পঞ্চায়েতটি তৃণমূলের দখলে ছিল। কিন্তু এবারের পঞ্চায়েত নির্বাচনের পর ক্ষমতা চলে এল বিজেপির হাতে। প্রধান এবং উপপ্রধান নির্বাচিত হলেন বিজেপির বন্দনা মন্ডল এবং হিন্দুলাল কিস্কু। আর তারপরই রাতারাতি সাদা-নীল রং বদলে ফেলা হল পঞ্চায়েত কার্যালয়ের। তবে রং বদলের জেরে তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে রাইপুর ব্লক তৃণমূল নেতৃত্ব। দাবীতে তাঁরা জানান,নতুনভাবে গঠিত এই পঞ্চায়েতের পদাধিকারীরা সরকারি নিয়ম নীতিকে অবজ্ঞা করে নিজেদের মর্জি খাটিয়ে রং পাল্টে দিয়েছে পঞ্চায়েত অফিসের। তাঁদের যুক্তি,যে কোনো সরকারি অফিসেই নীল-সাদা রং করা বাধ্যতামূলক। বিজেপি সম্পূর্ণ রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে নিজেদের দলীয় পতাকার রং পঞ্চায়েত অফিসে করেছে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এ প্রসঙ্গে নব নির্বাচিত পঞ্চায়েত প্রধান বন্দনা মন্ডলকে ফোন করা হলে তিনি এ ব্যাপারে কোনো প্রতিক্রিয়া জানাতে চাইলেন না। তবে বিজেপির রাইপুর অঞ্চলের যুব সভাপতি সুব্রত মন্ডল বলেন, তৃণমূল অযথাই গন্ডোগোল করছে। আসলে তৃণমূল এটাই ইস্যু করে বিতর্ক সৃষ্টি করতে চাইছে। তাঁর যুক্তি,পঞ্চায়েত কার্যালয়ের রং নষ্ট হয়ে গিয়েছিল তাই নতুন রং করা হয়েছে কার্যালয়ে। তাছাড়া এটা নিয়ে কোনো সরকারি নির্দেশিকা নেই বলেই দাবী করলেন তিনি। উল্লেখ্য,রং বদল নিয়প বহুবার বিতর্কে জড়িয়েছে তৃণমূল। নিজেদের মর্জি খাটিয়ে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে বা সম্পত্তিতে নীল-সাদা রং করেছে রাজ্যের শাসকদল। এবার বিজেপি তৃণমূলের রং অদল-বদল করল। আসলে এ বিষয়ে তৃণমূল এবং বিজেপি একই মুদ্রারই এপীঠ এবং ওপীঠ এমনটাই মনে করছে সিপিএম এবং কংগ্রেসের মতো বিরোধী দল গুলো। এ নিয়ে রাজ্য রাজনীতির অন্দরে জোর চর্চা চলছে আপাতত।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!