এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠন – শীর্ষনেতৃত্ত্ব জানাচ্ছে শান্তিপূর্ণ – নীচুতলার কর্মীরা অশান্তির আশঙ্কায় কাঁপছেন!

পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠন – শীর্ষনেতৃত্ত্ব জানাচ্ছে শান্তিপূর্ণ – নীচুতলার কর্মীরা অশান্তির আশঙ্কায় কাঁপছেন!



ত্রিস্তর পঞ্চায়েত নির্বাচনের দ্বিতীয় দফায় হুগলির বেশ কয়েকটি ব্লকে দলীয় নির্দেশ অমান্য করে ভোটাভুটি এবং ঝামেলা পাকানোর আশঙ্কায় রয়েছেন নির্বাচিত সদস্য ও নীচুতলার কর্মীরা। এর জন্য তাঁরা দায়ী করছেন জেলা নেতৃত্বের দ্বিচারী মনোভাবকে। প্রথম পর্যায়ে রিষড়া গ্রাম পঞ্চায়েতে দলীয় নির্দেশকে অবজ্ঞা করার জেরে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হয়েছিল ব্লক সভাপতির। এবং জানানো হয়েছিল দলের নির্দেশ অমান্য করলেই শাস্তির মুখে পড়তে হবে দলের কর্মী সমর্থকদের। কিন্তু বলাগড় ও সিঙ্গুরের বেশ কিছু জায়গায় দলের নির্দেশ অমান্য করলেও তাঁদের কোনো শাস্তি হয়নি। এমনটাই অভিযোগ জানিয়েছেন নীচু তলার কর্মীদের একাংশ।

এবং এই প্রেক্ষিতে এটাও আশঙ্কা করছেন তাঁরা,পঞ্চায়েত বোর্ড গঠনের দ্বিতীয় পর্যায়ে দলীয় নির্দেশ অমান্য করার প্রবণতা আরো বাড়বে। দাবীতে তাঁরা জানালেন,এবার যে নির্বাচনগুলো হবে সেখানে কোনো বিরোধী নেই কিন্তু প্রতিটি জায়গাতেই তৃণমূলেরই একাধিক গোষ্ঠী তৈরি হয়েছে। এর জেরে গোষ্ঠী কোন্দল তো হবেই,এমনকী ক্ষমতা প্রদর্শনের নাম করে ভোটাভুটিতে মারামারি হওয়ারও আশঙ্কাকেও উড়িয়ে দিচ্ছেন না তাঁরা। তাঁদের আশঙ্কা যে কতটা খাঁটি তার প্রমাণ দিতে সামনে এসেছে প্রশাসনের দেওয়া রিপোর্ট। সেখানে সাফ কথায় বোর্ড গঠনকে নিয়ে তারকেশ্বর,পুরশুড়া,আরামবাগ,গোঘাট ও জঙ্গিপাড়া ব্লকো গন্ডোগোলের আশঙ্কার কথা জানানো হয়েছে।

ওদিকে,প্রশাসন ও তৃণমূল কংগ্রেস সূত্রে জানা গিয়েছে,হুগলি জেলার ২০৭টি গ্রাম পঞ্চায়েতের মধ্যে প্রথম দফায় ১০০ শতাংশ প্রতিদ্বন্দ্বিতা হওয়া ৮১ টি গ্রাম পঞ্চায়েতের ৮০ টিতে বোর্ড গঠনের প্রক্রিয়া শেষ হয়েছে। ১৮ টি পঞ্চায়েত সমিতির মধ্যে ৬ টি পঞ্চায়েত সমিতিতে ১০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে বোর্ড গঠন হয়ে যাবে। অন্যদিকে, বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী হওয়া ১২৬ টি গ্রাম পঞ্চায়েতের ১৩ থেকে ২৬ সেপ্টেম্বরের মধ্যে বোর্ড গঠনের নির্দেশ রয়েছে। ১৮ থেকে ২৮ সেপ্টেম্বরের মধ্যে পঞ্চায়েত সমিতি ও ২০ থেকে ২৮ সেপ্টেম্বরের মধ্যে জেলা পরিষদ গঠনের নির্দেশিকা জারি করেছে রাজ্য পঞ্চায়েত দপ্তর।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

প্রাথমিক পর্যায়ে বোর্ডগঠনের ক্ষেত্রে বেশ কয়েকটি জায়গা দখলে ছিল সিপিএম এবং বিজেপির। সেসময় দলের নির্দেশকে পাত্তা না দিয়ে বিরোধীদের সঙ্গে এক ছাতার তলায় এসে ভোটাভুটি করে শাসকদলেরই অন্য গোষ্ঠী রিষড়া, বলাগড়ের ডুমুরদহ-নিত্যানন্দপুর, খামারগাছি ও সিঙ্গুর ২, বেড়াবেড়ি, বারুইপাড়া- পলতাগড় সহ বেশ কয়েকটি পঞ্চায়েত  নিজেদের দখলে এনেছে। যা নিয়ে রীতিমতো ঠান্ডা লড়াই চলছে তৃণমূলের দলীয় অন্দের। তার সঙ্গে জুড়েছে নীচু তলার কর্মীদের গন্ডোগোলের আশঙ্কা। সবমিলিয়ে দ্বিতীয় পর্যায়ের পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠন নিয়ে চাপান উতোর তুঙ্গে রয়েছে হুগলিতে। তবে গোলমাল বা দলের নির্দেশ অমান্য হওয়ার আশঙ্কা মানতে নারাজ জেলা তৃণমূল নেতৃত্ব। দলীয় নির্দেশকে মান্যতা দিয়েই শান্তিপূর্ণ ভাবেই পঞ্চায়েত বোর্ড গঠন হবে,এমনটাই দাবীতে জানালেন তাঁরা।

 

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!