এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > পাকিস্তান থেকে পাঠানো জঙ্গিদের কোটি কোটি টাকা ‘সামলানো’ 7 অবশেষে পুলিশের জালে, খোদ কলকাতার বুকে!

পাকিস্তান থেকে পাঠানো জঙ্গিদের কোটি কোটি টাকা ‘সামলানো’ 7 অবশেষে পুলিশের জালে, খোদ কলকাতার বুকে!



এবার রাজ্যের 45 টি অ্যাকাউন্টে জঙ্গিদের সাহায্যে 54 কোটি টাকার বেশি জমা হওয়ার রহস্য উন্মোচনে নামল পুলিশ। সূত্রের খবর, এই ব্যাপারে ইতিমধ্যেই সাতজনকে গ্রেপ্তার করেছে হাওড়ার গোলাবাড়ি থানার পুলিশ। জানা গেছে, ধৃতদের প্রত্যেকেরই বাড়ি বিহারের সিওয়ান জেলায়।

এরা প্রত্যেকেই হাওড়া স্টেশন দমদম ও রাজাবাজার এলাকায় বাড়ি ভাড়া নিয়ে থাকত। বিভিন্ন লোকজনকে কমিশনের মাধ্যমে ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট খুলিয়ে দিত। আর তারপর সেই গ্রাহকদের এটিএম কার্ড ও পিন নম্বর নিয়ে রাখত তারা। জানা গেছে, সেই অ্যাকাউন্ট গুলিতে 50 হাজার টাকার নিচে জমা পড়ত। আর সেই টাকা 1 জন নির্দিষ্ট ব্যক্তির হাতে তুলে দিত তারা। তবে ঠিক কার হাতে এই টাকা তুলে দেওয়া হবে তা হোয়াটসঅ্যাপে একটি নির্দিষ্ট কোড দিয়ে জানিয়ে দিত পাকিস্থানে থাকা এজেন্টরা।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, কিছুদিন আগেই হাওড়ার গোলাবাড়ি থানায় এক রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকে 6 লক্ষ 30 হাজার টাকার একটি চেক জমা করেন এক ব্যক্তি। এদিকে যার চেক তার ফোনে 6 লক্ষ 30 হাজার টাকা তোলা হয়েছে বলে হঠাৎই মেসেজ চলে যায়। আর তার ফলেই আঁতকে ওঠেন সেই ব্যক্তি। এদিকে এরপরই সেই প্রতারিত ব্যক্তি স্থানীয় শাখায় যোগাযোগ করেন। তদন্ত করে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ জানায়, ওই টাকা অন্য একজনের অ্যাকাউন্টে জমা হয়েছে।

অন্যদিকে ব্যাংকের তরফে এই একাউন্টটি ব্লক করে দেওয়া হলেও তার আগেই প্রায় দুই লক্ষ টাকা ওই অ্যাকাউন্ট থেকে গায়েব হয়ে গিয়েছে। এদিকে এই ঘটনার পরই গোলাবাড়ি থানায় একটি অভিযোগ দায়েরের পর পুলিশের পক্ষ থেকে তদন্ত শুরু করা হয়।

মূল অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ জানতে পারে যে, কমিশনের বিনিময়ে তার নামে অন্য একজন এই অ্যাকাউন্ট খুলেছে। আর এরপরই পুলিশ একে একে বাকিদেরও গ্রেপ্তার করে। এদিকে ধৃতদের জেরা করে পুলিশ আরও জানতে পেরেছে যে, এই ঘটনার সঙ্গে জঙ্গিদেরও যোগ রয়েছে। তবে অন্য কোথাও পাচারের জন্য এই রাজ্যকে ব্যবহার করা হচ্ছে কিনা তা নিয়েও তদন্ত শুরু করতে চাইছে পুলিশ।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

সূত্রের খবর, ইতিমধ্যে গোলাবাড়ি থানা ও হাওড়া সিটি পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ এই ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। এদিন এই প্রসঙ্গে হাওড়া পুলিশ কমিশনার তন্ময় রায়চৌধুরী বলেন, “এই চক্রের শিকার অনেক দূর পর্যন্ত বিস্তৃত। তদন্ত শুরু হয়েছে। তদন্তের স্বার্থে এর থেকে বেশি কিছু বলা সম্ভব নয়।” সব মিলিয়ে এখন এই ঘটনায় মুল পান্ডাকে গ্রেফতার করাই বড় চ্যালেঞ্জ প্রশাসনের কাছে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!