এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > নতুন পালক মমতার মুকুটে! বিভিন্ন বিভাগে সেরা বাংলা মেনে নিচ্ছে মোদী সরকারের রিপোর্টই

নতুন পালক মমতার মুকুটে! বিভিন্ন বিভাগে সেরা বাংলা মেনে নিচ্ছে মোদী সরকারের রিপোর্টই



আপনাদের সুবিধার্থে খবরের শেষে বিধানসভা ২০২১ উপলক্ষে আমাদের করা সর্বশেষ সমীক্ষার প্রতিটির লিঙ্ক দেওয়া আছে।

আপনার মতামত জানান -

প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – বাংলার মমতা সরকারের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন অভিযোগ তোলে কেন্দ্রীয় সরকার। কখনো তাঁদের প্রকল্প বাংলার মুখ্যমন্ত্রী গ্রহণ করছে না বলে অভিযোগ ওঠে, কখনও দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে। কিন্তু এবার পশ্চিমবঙ্গের মুকুটে নতুন পালক বা বলা ভাল মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মুকুটে নতুন পালক যোগ হল। কারণ, বিভিন্ন পরিবার পরিকল্পনা বিভাগে বাংলা পাচ্ছে শীর্ষস্থান। আর একথা অন্য কেউ বলছে না, বরং কেন্দ্রীয় সরকারের রিপোর্টেই প্রকাশ পেয়েছে এই কথা। সম্প্রতি দেখা গেছে, পরিবার পরিকল্পনার সূচকে দেশের মধ্যে এক নম্বর স্থান দখল করেছে পশ্চিমবাংলা।

চলতি বছরের অক্টোবর পর্যন্ত যে পরিসংখ্যান পাওয়া গেছে, তা থেকেই এই কথা প্রকাশ্যে এসেছে কেন্দ্রীয় সূত্রে। বিভিন্ন সূচকে পারদর্শীতা দেখিয়ে বাংলা এগিয়ে গিয়েছে। সে ক্ষেত্রে গর্ভনিরোধক ওষুধ বা পিল থেকে শুরু করে বন্ধাত্ব্যকরণ, মেয়েদের আইইউসিডি থেকে শুরু করে ছেলেদের নিরোধ ব্যবহার- অধিকাংশ ক্ষেত্রেই শীর্ষে রয়েছে বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গ। অন্যান্য সূচকেও দ্বিতীয় কিংবা তৃতীয় স্থানে রয়েছে রাজ্য। পরিবার পরিকল্পনায় যে উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ নিয়েছে রাজ্য সরকার তার ফলস্বরূপ দেখা যাচ্ছে, বর্তমানে প্রথম ও দ্বিতীয় সন্তানের মধ্যে ন্যূনতম তিন বছরের ব্যবধান থাকছে।

দেশের মধ্যে সবচেয়ে ভালো ফল করেছে বাংলা বলে জানা যাচ্ছে। রাজ্যের চারভাগের তিনভাগ দম্পতির ক্ষেত্রে প্রথম ও দ্বিতীয় সন্তানের মধ্যে তিন বছরের বেশি ফারাক থাকছে বলে খবর। এ প্রসঙ্গে মঙ্গলবার রাজ্যের স্বাস্থ্য অধিকর্তা ডাঃ অজয় চক্রবর্তী জানিয়েছেন, পরিবার পরিকল্পনা নিয়ে ধারাবাহিকভাবে কাজ করে যাওয়ার সুফল পাওয়া যাচ্ছে। গত তিন চার বছরের মধ্যে অন্তরা, ছায়া সহ বেশ কিছু পরিবার পরিকল্পনা কর্মসূচি শুরু হয়েছে রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে। এই নতুন পদ্ধতিগুলি মানুষকে বুঝিয়ে সেগুলি ব্যবহার করার দিকে ধাপে ধাপে এগিয়ে গিয়ে শীর্ষে পৌঁছেছে এই রাজ্য বলে জানান তিনি।

স্বাস্থ্য ভবন সূত্রে জানা গিয়েছে, পরিবার পরিকল্পনার অন্যতম উপায় হল মেয়েদের ক্ষেত্রে ইন্ট্রাইউটেরাইন কন্ট্রাসেপটিভ ডিভাইস বা আইইউসিডি ব্যবহার। 2017 সাল থেকে এই পদ্ধতি ব্যবহার করে এক নম্বরে রয়েছে রাজ্য। সময়ের সাথে সাথে গর্ভনিরোধক এই মাধ্যমের ব্যবহার বেড়েছে বলে জানা যাচ্ছে। সূত্রের খবর, চলতি বছরের অক্টোবর মাস পর্যন্ত এই ডিভাইস ব্যবহার করার পরিসংখ্যান 2019-20 অর্থবর্ষের পরিসংখ্যানকে ইতিমধ্যেই টপকে গিয়েছে বাংলা। বাংলার পরেই স্থান রয়েছে তামিলনাড়ুর।


ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

পশ্চিমবঙ্গে যেখানে অক্টোবর পর্যন্ত 2 লাখ 32 হাজার 757 টি আইইউসিডি ব্যবহার করা হয়েছে, সেখানে তামিলনাড়ুতে একই সময়ে ব্যবহার হয়েছে 1 লাখ 76 হাজার 614 টি আইইউসিডি। তবে মেয়েদের ক্ষেত্রে এগিয়ে গেলেও পুরুষদের গর্ভনিরোধক কন্ডোম ব্যবহার করার ক্ষেত্রে বাংলা কিন্তু পিছিয়ে। তবে পিছিয়ে থাকলেও খুব একটা বেশি পিছিয়ে নেই। সেক্ষেত্রে এক নম্বরে রাজস্থান রয়েছে, এবং দুই নম্বরে পশ্চিমবঙ্গ। তবে সরকারি সূত্রে জানা যাচ্ছে, 2017 সাল থেকেই এই পর্যায়ক্রম রাজস্থান ও বাংলা এই দুই রাজ্যের ক্ষেত্রে দেখা যাচ্ছে। চলতি বছরেও সেই একই পর্যায়ক্রম থাকবে বলে মনে করা হচ্ছে।

সূত্রের খবর, শীর্ষে থাকা রাজস্থান স্বাস্থ্য দপ্তর পুরুষদের মধ্যে 1,73,12,524 টি কন্ডোম বিলি করেছে। সেখানে বাংলা সরকারিভাবে পুরুষদের মধ্যে কন্ডোম বিলি করেছে 1,69,75,340 টি। তবে মেয়েদের গর্ভনিরোধক পিল বিলি করতে বাংলা যেভাবে এগিয়ে এসেছে, সেক্ষেত্রে পিছিয়ে দিয়েছে অন্যান্য রাজ্যকে। এখনো পর্যন্ত বাংলায় বিলি হয়েছে 46,86,280 টি পিল। মেয়েদের মধ্যে যেখানে মধ্যপ্রদেশে বিলি হয়েছে সরকারিভাবে 24,4,261 টি পিল। সরকারি সূত্রে জানা যাচ্ছে, রাজ্যে পরিবার পরিকল্পনার অন্য একটি নতুন উপায় হল তিন মাস অন্তর ‘অন্তরা’ ইনজেকশন।

3-4 বছর আগে এই পদ্ধতি শুরু হয়েছিল বাংলায়। তখন বাংলা ছিল 13 নম্বরে। 2018-19 সাল নাগাদ বাংলা গিয়ে দাঁড়ায় চার নম্বরে এবং গত অর্থবছরে বাংলার স্থান হয় তিন নম্বরে। তবে জানা যাচ্ছে, চলতি বছরে অন্যান্য প্রতিযোগীদের পিছনে ফেলে শীর্ষ স্থান অধিকার করেছে বাংলা। দ্বিতীয় স্থানে রাজস্থান। একইসাথে সাপ্তাহিক ‘ছায়া’ পিল বিতরণ, গর্ভপাতের 12 দিনের মধ্যে আইইউসিডি ব্যবহারসহ বিভিন্ন গর্ভনিরোধক পদ্ধতি ব্যবহারের ক্ষেত্রে দেশে শীর্ষস্থানে রয়েছে বাংলা। কিন্তু গর্ভধারণের পর বন্ধ্যাত্বকরণের দিক থেকে এখনো পিছিয়ে রয়েছে আমাদের রাজ্য।

সেক্ষেত্রে বাংলা রয়েছে দ্বিতীয় স্থানে। বিশেষজ্ঞদের মতে, বিধানসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে যেভাবে কেন্দ্রীয় সরকারের রিপোর্টে বাংলা পরিবার পরিকল্পনার বিভিন্ন বিষয়ে শীর্ষ স্থান অধিকার করেছে, তা যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ। অন্যদিকে রাজ্যের পরিবার পরিকল্পনার বিভিন্ন বিভাগে সেরা হয়ে বাংলার শীর্ষ শিরোপা পেয়ে খুব স্বাভাবিকভাবেই রাজ্যের স্বাস্থ্য বিভাগে খুশির হাওয়া। মমতা ব্যানার্জির সরকারে যেভাবে রাজ্য শিরোপার মুকুট পেল তাতে গর্বিত অনেকেই।

 

একনজরে দেখে নিন আমাদের সর্বশেষ বিধানসভা ২০২১ ওপিনিয়ন পোল –

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – দ্বিতীয় পর্ব – 

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – প্রথম পর্ব – 

# মালদহ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# উত্তর দিনাজপুরে জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# জলপাইগুড়ি ও কালিম্পঙ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# আলিপুরদুয়ার ও দার্জিলিং জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# কুচবিহার জেলার ওপিনিয়ন পোল –

আপনার মতামত জানান -
আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!