এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > নতুন মন্ত্রীসভার হাত ধরে স্বপ্নসন্ধান! তবুও তাড়া করছে করোনার দুঃস্বপ্ন? মমতার বার্তায় জল্পনা

নতুন মন্ত্রীসভার হাত ধরে স্বপ্নসন্ধান! তবুও তাড়া করছে করোনার দুঃস্বপ্ন? মমতার বার্তায় জল্পনা



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – তৃণমূলের অনেক নেতাকর্মীরাও আশা করেননি এবার তাদের দল এত বেশি আসন নিয়ে তৃতীয়বারের জন্য রাজ্যের ক্ষমতা দখল করবে যেভাবে বিজেপির পক্ষ থেকে রাজ্যের পরিবর্তনের ব্যাপারে কার্যত নিশ্চিত বক্তব্য রাখতে শুরু করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তাতে তৃণমূলের ক্ষমতায় ফেরা নিয়ে নানা মহলে তৈরি হয়েছিল সংশয় তবে তৃণমূল নেত্রী প্রথম থেকেই জানিয়ে দিয়েছিলেন তার দল ক্ষমতায় আসছে।

তবে তৃণমূল কংগ্রেস যদিও বা ক্ষমতায় আসে তাহলে বেশি আসন নিয়ে ক্ষমতায় আসতে পারবে না বলেই দাবি করেছিলেন একাংশ এই ক্ষেত্রে অনেকেই বলতে শুরু করেছিলেন তৃণমূল তৃতীয়বারের জন্য ক্ষমতায় আসলেও সেই সরকারের ঘাড়ে বিরোধী দল হিসেবে নিঃশ্বাস ফেলতে পারে ভারতীয় জনতা পার্টি। তবে এই সমস্ত জল্পনা-কল্পনাকে কার্যত ধুলোয় মিশিয়ে দিয়ে দুশোর বেশি আসন নিয়ে তৃতীয় বার বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে ক্ষমতায় এসেছে তৃণমূল কংগ্রেস কবে ফলাফল প্রকাশের দিনেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়ে দিয়েছিলেন, তার প্রধান লক্ষ্য করোনা ভাইরাস আটকানো।

নির্বাচনের সময়ে গোটা ভারতবর্ষে করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ প্রবেশ করেছিল। স্বাভাবিক ভাবেই নির্বাচন চলার কারণে বাংলায় তা ভয়াবহ আকার ধারণ করে। আর এই পরিস্থিতিতে তৃতীয়বারের জন্য তৃণমূল সরকার প্রতিষ্ঠিত হলেও, নেতাকর্মীদের বিজয় উৎসব করতে বারণ করে দিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে এত আসন নিয়ে সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করলেও করোনা ভাইরাসের দুঃস্বপ্ন এখন যে সব থেকে বড় কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়েছে তৃণমূল সরকার এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে, তা বলাই যায়।

বস্তুত, আজ রাজভবনে রাজ্য মন্ত্রিসভার সমস্ত সদস্য শপথগ্রহণ করেন। আর তারপরই নবান্নে একটি সাংবাদিক বৈঠক করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর সেখানেই করোনা ভাইরাস নিয়ে সচেতনতার বার্তা শোনা যায় তার গলায়। লকডাউন না হলেও, এখন যে সকলকেই লকডাউনের মত করে আচরণ করতে হবে, তা জানিয়ে দেন মুখ্যমন্ত্রী।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

তিনি বলেন, “রাজ্যে এখন কোনো লকডাউন হচ্ছে না। কিন্তু লকডাউন ঘোষণা না করে লকডাউনের মত সাধারন মানুষকে আচরণ করতে হবে। কারণ লকডাউন ঘোষণা করা হলে সাধারণ মানুষের অসুবিধা হবে।” অর্থাৎ এক বছর আগে এই লকডাউনের কারণে মানুষের রুজি-রুটি কার্যত প্রশ্নের মুখে পড়ে গিয়েছিল। তাই দ্বিতীয়বার করোনা ভাইরাস ভয়ঙ্কর আকার ধারণ করলেও, লকডাউনের রাস্তায় যাতে হাঁটা না হয়, তার জন্য প্রথম থেকেই চেষ্টা করেছে কেন্দ্রীয় সরকার থেকে রাজ্য সরকার। শপথগ্রহণ পর্বের পর করোনা ভাইরাস নিয়ে আশঙ্কার কথা শুনিয়ে সকলকে সচেতন থাকার বার্তা দিয়ে লকডাউনের মত যাতে সকলে আচরণ করেন, তার অনুরোধ জানালেন মুখ্যমন্ত্রী।

একাংশ বলছেন, ক্ষমতায় আসা এবার তৃণমূলের কাছে বড়সড় চ্যালেঞ্জ ছিল। কিন্তু সেই চ্যালেঞ্জে ভালোভাবেই উত্তীর্ণ হয়েছে ঘাসফুল শিবির। তবে ক্ষমতায় আসার চ্যালেঞ্জে উত্তীর্ণ হওয়ার পরেই এখন করোনা ভাইরাস নতুন চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখা দিয়েছে তৃণমূল সরকারের কাছে। এক্ষেত্রে রাজ্যের মানুষকে বাঁচানো এখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং তার মন্ত্রিসভার যে প্রধান কাজ, তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

আর তাই করোনা ভাইরাসকে প্রধান গুরুত্ব দিয়ে মন্ত্রিসভার শপথগ্রহণের পর থেকেই আরও বেশি করে মানুষকে সচেতন থাকার বার্তা দিলেন রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধান। সব মিলিয়ে দায়িত্ব গ্রহণের সাথে সাথেই করোনা ভাইরাস রোধ করতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং তার মন্ত্রিসভা কতটা সাফল্য পান, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!