এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > বিজেপি > নির্বাচনের এই ফলাফল পরাজয় নয়, ঐতিহাসিক উত্থান! দাবি বিজেপির রাজ্য সভাপতির

নির্বাচনের এই ফলাফল পরাজয় নয়, ঐতিহাসিক উত্থান! দাবি বিজেপির রাজ্য সভাপতির



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – বিধানসভা নির্বাচনে ২০০ টি আসনের লক্ষ্যমাত্রা রেখেছিল বিজেপি, তবে তা পূরণ হয়নি। ১০০ টি আসনেও পৌঁছতে পারেনি বিজেপি। ৭৮ টি আসন নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে গেরুয়া শিবিরকে। বিজেপির এই ব্যর্থতায় প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে নানা মহল থেকে। বারবার প্রধানমন্ত্রী, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজ্যে আসার পরও কেন এমন ব্যর্থতার মুখ দেখতে হল বিজেপিকে? এই পরিস্থিতিতে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ জানালেন যে, ৫ বছরের মধ্যে ৩ থেকে ৭৮ এ পৌঁছে গেছে বিজেপি, যাকে তিনি ঐতিহাসিক উত্থান বলেই বর্ণনা করলেন।

প্রসঙ্গত, বিজেপির হয়ে প্রচারে বারবার রাজ্যে এসেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ সহ একাধিক বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তীও স্থানে স্থানে প্রচারে নেমেছেন। কিন্তু এরপরও আশানুরূপ ফলাফল আসেনি। বিজেপির এই ব্যর্থতার দায়ভার অনেকেই তুলেছেন প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর উপরে। কিন্তু বিজেপির এই পরাজয়ের জন্য প্রধানমন্ত্রী বা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে দায়ী করেন নি বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। এ প্রসঙ্গে তিনি জানান, গত ৫ বছর সময়ের মধ্যে ৩ থেকে ৭৮ এ পৌঁছে গেছে বিজেপি। বাংলার রাজনৈতিক ইতিহাসে এই ধরনের উত্থানকে ঐতিহাসিক বলে দাবি করেছেন তিনি।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ জানালেন যে, বামপন্থীরা ৪৬, ৪৭ সাল থেকে লড়াই করেছিলেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও বহুবার হারতে-হারতে জয়ী হয়েছেন। সেখানে ৫ বছরে বিজেপির এই উত্থান ঐতিহাসিক। এখানে ব্যর্থতার কোন প্রশ্ন থাকতে পারে না। যাদের সাহস আছে, তারা সবসময় বড় টার্গেট রেখে থাকে। বিজেপিও তাই করেছিল। আর বিজেপিকে পরিচালনা করবেন বিজেপির সর্বভারতীয় নেতৃত্ব, এটাই স্বাভাবিক। বিজেপির রাজ্য সভাপতি আরও জানালেন, এই পরাজয়কে তিনি ব্যর্থতা বলে মনে করছেন না। গত পাঁচ বছরে বাংলাতে ৩ থেকে ৭৮ এ পৌঁছে গেছে বিজেপি। এমন সাফল্য আগে কে বা কারা পেয়েছে? তিনি দাবি করেছেন ২৬ গুন্ শক্তি বাড়িয়ে নিয়েছে বাংলায় বিজেপি।

তবে, বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ যে বুথের ভোটার সেখানেই তৃণমূলের কাছে অনেকটা পিছিয়ে গেছে বিজেপি। নয়াগ্রাম বিধানসভার অন্তর্গত কুলিয়ানা গ্রামে বিজেপির রাজ্য সভাপতির পৈতৃক বাড়ি। এখানেই তিনি ভোট দিয়েছেন। আর তাঁর বুথেই বিজেপিকে অনেকটা পেছনে ফেলে এগিয়ে গেছে তৃণমূল। খোদ রাজ্য সভাপতির বুথেই বিজেপির পরাজয় নিয়ে কটাক্ষ করতে ছাড়েনি রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!