এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > বিজেপি > নির্বাচনে পরাজয়ের পর নৈরাশ্য পীড়িত বিজেপিকে নতুন পথনির্দেশ বিশ্ব হিন্দু পরিষদের

নির্বাচনে পরাজয়ের পর নৈরাশ্য পীড়িত বিজেপিকে নতুন পথনির্দেশ বিশ্ব হিন্দু পরিষদের



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির কাঙ্ক্ষিত সাফল্য আসেনি। সর্বশক্তি প্রয়োগ করেও মাত্র ৭৭ টি আসনে আটকে গেছে বিজেপির বিজয়রথ। শোচনীয় পরাজয়ের পর নিরাশা গ্রাস করেছে গেরুয়া শিবিরকে। তারমধ্যে ব্যাপক হারে ভাঙ্গন, গোষ্ঠী কোন্দল শুরু হয়েছে দলে। এই পরিস্থিতিতে দলকে আবার নতুন করে উঠে দাঁড়াতে বিশেষ পথনির্দেশ দিল বিশ্ব হিন্দু পরিষদ। বিশ্ব হিন্দু পরিষদের পক্ষ থেকে জানানো হলো, হিন্দুত্ব ও জাতীয়তাবাদী আদর্শকে সঙ্গে নিয়ে এগিয়ে যেতে হবে বিজেপিকে। আদর্শ নির্ভর নিচুতলার কর্মীদের মধ্যে থেকেই তৈরি করতে হবে নেতা।

বিশ্ব হিন্দু পরিষদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে, দল ভাঙিয়ে অথবা অন্য কোন দল থেকে যেসব নেতা-নেত্রীরা বিজেপিতে এসেছিলেন, তাঁরা অনেকেই বিজেপির জাতীয়তাবাদী আদর্শের সঙ্গে পরিচিত নন। ফলে তাঁরা যদি পুরনোদল বা অন্য কোন রাজনৈতিক দলে ফিরে যান, তাতে অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না। তাই অন্য দলের নেতা দিয়ে নয়, বিজেপির কর্মীদের মধ্যে থেকেই বিজেপির নেতা তৈরি করতে হবে। সেইসাথে হিন্দুত্ববাদী আদর্শে বিজেপিকে পথ চলার নির্দেশ দিল বিশ্ব হিন্দু পরিষদ।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

বিশ্ব হিন্দু পরিষদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে, হিন্দুত্ব ও জাতীয়তাবাদী ভাবধারাতে যদি বিজেপি এগিয়ে যায়, তবে একদিন না একদিন বিজেপির সাফল্য আসবেই। পরিষদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, চলতি বছরের বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফল থেকে বিজেপির শিক্ষা নেওয়ার প্রয়োজন আছে। এখনো সময় আছে। বিজেপির বোঝা প্রয়োজন যে, নিচুতলার কর্মীদের মধ্যে থেকে যদি নেতা তৈরি না করা যায়, তবে কখনোই ক্ষমতায় আসা সম্ভব হবে না। প্রসঙ্গত, কিছুদিন আগেই রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের ঘনিষ্ঠ নেতা রন্তিদেব সেনগুপ্ত জানিয়েছিলেন যে, ভাড়া করা সেনা দিয়ে কখনই যুদ্ধে জেতা যায় না।

রাজ্য বিজেপিতে দলের নিচুতলার কর্মীদের মধ্যে থেকেই নেতা তৈরি করার দাবি একাধিকবার করা হয়েছে। এই দাবি মেনেই চলছিল রাজ্য বিজেপি। কিন্তু পঞ্চায়েত নির্বাচনের পর থেকে বিজেপির উত্থান শুরু হলে, অন্য দল থেকে আসা নেতা-নেত্রীরা চলে আসেন দলের প্রথম সারিতে। যাদের মধ্যে অনেকেই এখন পুরনো দলে ফিরে যাবার চিন্তা করেছেন। এই পরিস্থিতিতে দলের নিচুতলার আদর্শ নির্ভর কর্মীদের বিশেষ গুরুত্ব দেওয়ার পরামর্শ দিল বিশ্ব হিন্দু পরিষদ। দলের এই কর্মীদের মধ্যে থেকেই নেতা তৈরির পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

অন্যদিকে, আজ দলবদল প্রসঙ্গে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ জানালেন যে, শরীরে বেশি চর্বি জমে গেলে দেখতে ভালো লাগে না, চর্বি ঝরে যাচ্ছে, এটা ভালো। বিজেপির ভাঙ্গন প্রসঙ্গে তিনি জানালেন, নির্বাচনের আগে বিজেপিতে ১০০ জন বিধায়ক আসবে বলে গুজব ছড়ানো হয়েছিল, এবার বিজেপি থেকে ৩৫ জন বেরিয়ে যাচ্ছে, এমন একটা গুজব ছড়ানো হয়েছে। অন্য দল থেকে বিজেপিতে যোগদান প্রসঙ্গে তিনি জানালেন, তাঁরা এক্সপেরিমেন্ট করেছিলেন খানিকটা সফল হয়েছেন, আর খানিকটা কাজে লাগেনি। সেটা বোঝা প্রয়োজন।

 

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!