এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > নিজের বিবাহিত জীবন নিয়ে এবার কার্যত বোমা ফাটালেন হেভিওয়েট তৃণমূল সাংসদ, সমালোচনার ঝড় রাজনৈতিক মহলে

নিজের বিবাহিত জীবন নিয়ে এবার কার্যত বোমা ফাটালেন হেভিওয়েট তৃণমূল সাংসদ, সমালোচনার ঝড় রাজনৈতিক মহলে



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – সংবাদ জগতে এখন একটাই খবর আলোড়ন ফেলেছে এবং তা হলো নুসরত জাহান মা হতে চলেছেন। আর এই মাতৃত্বের খবরের সূত্র ধরে এবার এমন এক বিস্ফোরক খবর সামনে আসছে, যা চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে টলি মহল থেকে রাজনৈতিক মহল সর্বত্র। নুসরতের মাতৃত্বের খবর সামনে আসার পরেই নুসরতের স্বামী নিখিলের সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে আবারও টানাপোড়েন শুরু হয়। আর তাই নিয়ে এবার বিস্ফোরক বিবৃতি দিলেন বসিরহাটের তৃণমূল সাংসদ তথা অভিনেত্রী নুসরত জাহান।

বেশ কয়েকমাস যাবৎ নুসরত আলাদা থাকতে শুরু করেছিলেন তাঁর স্বামী বলেই এতদিন পরিচিত নিখিল জৈনের থেকে। তার মধ্যেই টলি অভিনেতা যশের সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক গতি পেয়েছিল। তারপরেই সামনে আসে নুসরতের সন্তান সম্ভাবনার কথা। যথারীতি এই সন্তানের পরিচয় নিয়ে আরেকবার আলোড়ন তৈরী হয়। আর এসবের মধ্যেই নিজের বিবাহসম্পর্কিত বিস্ফোরক দাবী করলেন নুসরত। তিনি স্পষ্ট জানিয়ে দিলেন, নিখিল জৈনের সঙ্গে তিনি শুধুমাত্র সহবাস করেছেন, বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হননি।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

আর এখান থেকেই শুরু হয়েছে নতুন রাজনৈতিক বিতর্ক। কারণ লোকসভা নির্বাচনের ওয়েবসাইটে দেখা যাচ্ছে পশ্চিমবঙ্গ থেকে বসিরহাট অঞ্চলের সাংসদ নুসরত জাহানের যাবতীয় তথ্য রয়েছে। দেখা যাচ্ছে, সেই তথ্য অনুসারে 2019 এর 19 শে জুন নুসরত বিবাহিত হয়েছেন এবং সেখানে তাঁর স্বামীর নাম রয়েছে নিখিল জৈন। সেক্ষেত্রে প্রশ্ন উঠেছে, আইনসিদ্ধ বিবাহ না হওয়া সত্ত্বেও সাংসদের দেওয়া তথ্যে জানা যাচ্ছে তিনি বিবাহিত। সেক্ষেত্রে কি তিনি মিথ্যাচার করেছেন? যদিও জানা যাচ্ছে, ভোটের আগে লোকসভা নির্বাচনে যে হলফনামা জমা করেছিলেন নুসরত তাতে কিন্তু তিনি নিজেকে অবিবাহিত জানিয়েছিলেন।

এবং লোকসভার ওয়েবসাইটের যে তারিখ রয়েছে বিবাহের, তা নির্বাচনের পরের। খুব স্বাভাবিক ভাবেই নুসরত জাহানের বিবৃতি এবার রাজনৈতিক মহলেও আলোড়ন তৈরি করল। বিবাহ বিচ্ছেদ নিয়ে প্রশ্ন ওঠায় নুসরত স্পষ্ট জানিয়েছেন, যে বিয়ে হয়নি তার বিবাহ বিচ্ছেদ হওয়ারও কোনো প্রশ্ন নেই। অন্যদিকে প্রশ্ন উঠেছে, নুসরাত যদি বিবাহিত না হয়ে থাকেন তাহলে লোকসভার ওয়েবসাইটে কি ভুল লেখা রয়েছে? আর এই নিয়েই জোর শোরগোল শোনা যাচ্ছে রাজনৈতিক মহলের অন্দরেও। আপাতত এই বিতর্কের রেশ যে বহুদূর যেতে চলেছে সে ব্যাপারে নিশ্চিত রাজ্যের ওয়াকিবহাল মহল।

আপনার মতামত জানান -

ট্যাগড
Top
error: Content is protected !!