এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > নদীয়া-২৪ পরগনা > রাজ্যে বিজেপি হেভিওয়েট নেত্রীর পদ হারানোর নেপথ্যে কে? তীব্র জল্পনা শুরু দলের অন্দরেই!

রাজ্যে বিজেপি হেভিওয়েট নেত্রীর পদ হারানোর নেপথ্যে কে? তীব্র জল্পনা শুরু দলের অন্দরেই!



গত লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূলের টিকিট না পেয়ে, ভারতীয় জনতা পার্টিতে যোগ দিয়েছিলেন ভাটপাড়ার প্রাক্তন বিধায়ক অর্জুন সিংহ। পরবর্তীতে ব্যারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি থেকে দাঁড়িয়ে তিনি। বর্তমানে তিনি বিজেপির হেভিওয়েট সাংসদ। তবে বিজেপিতে যোগ দেওয়ার সময়, তার সাথে ব্যারাকপুর জেলা বিজেপির সভানেত্রী ফাল্গুনী পাত্রের সুসম্পর্ক থাকলেও, যতদিন এগিয়েছে, ততই অর্জুন সিংহের সঙ্গে তার দূরত্ব তৈরি হয়েছে। কখনও পরিস্থিতি এমন তৈরি হয়েছিল যে, অর্জুন সিংহের সঙ্গে ফাল্গুনী পাত্রের দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে চলে আসে।

আর এবার অবশেষে সেই ফাল্গুনী পাত্রকে ব্যারাকপুর জেলা বিজেপির সভাপতির পদ থেকে সরে যেতে হল। যার কারণ নিয়ে এখন নানা মহলে তৈরি হয়েছে ধোঁয়াশা। অনেকে বলছেন, বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিংহের সঙ্গে ঠিকঠাক বনিবনা না হওয়ার কারণেই, বিজেপির এই হেভিওয়েট নেত্রীকে তার পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হল। কিন্তু ফাল্গুনীদেবী দায়িত্ব নেওয়ার সময় তো দলের শ্রীবৃদ্ধি হয়েছে। সেদিক থেকে তাকে সরিয়ে দেওয়ায় দল কি সুদিন দেখতে পারবে! এখন তা নিয়ে নানা মহলে উঠতে শুরু করেছে প্রশ্ন।

একাংশ বলছেন, লোকসভা নির্বাচনের পরবর্তী সময়কালে তৃণমূলের প্রচুর নেতাকর্মী ভারতীয় জনতা পার্টিতে যোগদান করেন। তখন বিজেপির অনেক পুরনো কর্মীরা নবাগত কর্মীদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে এই ফাল্গুনী পাত্রের কাছে তাদের নানা অভিযোগ জানাতে শুরু করেছিলেন। যা নিয়ে তৃণমূল থেকে আসা ব্যারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিংহের সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করেন ফাল্গুনীদেবী। তবে এতে পরিস্থিতি আরও জটিল আকার নেয়।

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

পরবর্তীতে কিছুদিন আগে মন্ডল এবং বুথ সভাপতি নির্বাচনে ফাল্গুনী পাত্র নিজের অনুগামীদের বসিয়েছেন বলে বিজেপির অভিযোগ উঠতে শুরু করে। এমনকি একটি ঘটনায় ফাল্গুনীদেবীর বাড়ি ভাঙচুর করা হয় বলেও অভিযোগ ওঠে। আর এই ঘটনায় ফাল্গুনীদেবী এবং তার অনুগামীরা অভিযোগ তোলেন বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিংহের বিরুদ্ধে। আর এমত পরিস্থিতিতে যত দিন যায়, ততই বিজেপির অন্দরে অর্জুন সিংহের প্রভাব বাড়তে শুরু করে। যার ফলে কার্যত কোণঠাসা হয়ে যান ফাল্গুনী পাত্র।

কিন্তু এবার সেই ফাল্গুনী পাত্রকে সরিয়ে ব্যারাকপুর সাংগঠনিক জেলা বিজেপির সভাপতি করা হল প্রবীণ নেতা উমাশঙ্কর সিংহকে। যা দেখে অনেকে মনে করছেন, অর্জুন বনাম ফাল্গুনীর লড়াইয়ে শেষ পর্যন্ত জয় হল অর্জুন সিংহেরই। এদিন জেলা সভাপতির দায়িত্ব পেয়ে উমাশঙ্করবাবু বলেন, “দল আমাকে বড় দায়িত্ব দিয়েছে। আমি সেই দায়িত্ব ভালোভাবে পালন করতে চাই।” কিন্তু দায়িত্ব থেকে সরে গিয়ে কি বলছেন ফাল্গুনী পাত্র! এদিন তিনি বলেন, “দল যেটা ভালো বুঝেছে, করেছে। এতে দলের নিশ্চয়ই ভালো হবে।” কিন্তু ফাল্গুনী পাত্রকে সরানোর পেছনে তার কি কোনো হাত রয়েছে!

এদিন এই প্রসঙ্গে অর্জুন সিংহকে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, “আমি সাংসদ, জনপ্রতিনিধি। দলের সাংগঠনিক সিদ্ধান্তে আমার কোনো হাত নেই। দল যাকে সভাপতি করবে, আমি তার অধীনেই কাজ করব।” তবে অর্জুনবাবু বাইরে যে কথাই বলুন না কেন, ফাল্গুনী পাত্রকে সরানোর পেছনে তার যে নিঃসন্দেহে অবদান রয়েছে, সেই ব্যাপারে নিশ্চিত বিজেপির একাংশ। এখন ফাল্গুনী পাত্র সভাপতি পদ থেকে সরে যাওয়ায় বিজেপিতে কোনো এফেক্ট পড়ে কিনা, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!