এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > নজরবন্দি থাকলেও বীরভূমের ভোট পরিচালনা নিজের মতোই করলেন হেভিওয়েট তৃণমূল নেতা, নির্দিষ্ট সময়ে ভোটও দিলেন

নজরবন্দি থাকলেও বীরভূমের ভোট পরিচালনা নিজের মতোই করলেন হেভিওয়েট তৃণমূল নেতা, নির্দিষ্ট সময়ে ভোটও দিলেন



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – অষ্টম দফার নির্বাচনের প্রথম থেকেই নজরে ছিল বীরভূম। ইতিমধ্যেই কমিশনের নির্দেশে নজরবন্দি হয়েছেন বীরভূমের তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল। যদিও নজরবন্দি থেকেও গতকাল হঠাৎ করেই উধাও হয়ে যান তিনি। ফলস্বরূপ কমিশন থেকে ম্যাজিস্ট্রেট সর্বত্র হৈচৈ শুরু হয়ে গিয়েছিল। অবশেষে তাঁকে তারাপীঠে পাওয়া যায়। অবশ্য নজরবন্দি থেকেও অনুব্রত মণ্ডলের কাজে কোনো রকম অসুবিধা যে হচ্ছেনা তা তিনি পরিষ্কার করে দিয়েছেন। জেলার প্রতিটি বুথে ভোট পরিচালনা করতে কোন সমস্যা যে নেই তা বুধবার বোঝা গিয়েছে। আজ বোলপুরের নিচুপট্টি এলাকায় নিজের বাড়ির অফিসে বসে ভোট পরিচালনা করছিলেন অনুব্রত মণ্ডল।

এবং দুপুরে গিয়ে নিজের ভোটও দিলেন। তবে কমিশনের ভূমিকা নিয়ে যথারীতি অনুব্রত মণ্ডল তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করলেন। বুধবার নির্বাচন কমিশনকে কার্যত ভেলকি দেখিয়ে দিয়েছিলেন বীরভূমের ডাকসাইটে তৃণমূল নেতা। অবশেষে তারাপীঠ মন্দিরে গিয়ে কমিশনের প্রতিনিধিরা তাঁকে খুঁজে পান। কিন্তু রাজনীতির অঙ্গনে কান পাতলে শোনা যাচ্ছে, এই সামান্য সময়ের মধ্যে যা করার আর যেখানে যেখানে যাওয়ার তা অনুব্রত মণ্ডল নির্দ্বিধায় করে ফেলেছেন। গতকাল উধাও হওয়ার পর থেকেই অনুব্রত মণ্ডলের ওপর কড়া নজর রেখেছে কেন্দ্রীয় বাহিনী এবং নির্বাচন কমিশনের প্রতিনিধিরা। যেহেতু বাড়ির ভেতরে ঢোকা যাবেনা, তাই পাহাড়া দিতে তাঁদের বাইরে কাটফাটা রোদের মধ্যে দাঁড়িয়ে থাকতে হচ্ছে।

এদিন বাড়ি থেকে বেরিয়ে দুপুর বারোটা নাগাদ দলীয় কর্মীর বাইকে করে ভগবত নিম্ন বুনিয়াদী বিদ্যালয়ে ভোট দিতে যান অনুব্রত। এবার তাঁর সাথে ছিল তাঁর মেয়ে। যথারীতি নজরবন্দি থাকার কারণে নির্বাচন কমিশনের প্রতিনিধিরাও তাঁর সাথে যান। ভোট দিয়ে বেরিয়ে অন্যবার সাংবাদিকদের সঙ্গে অনুব্রত কথা বলেন। কিন্তু এবার আর সে সুযোগ দিলনা কমিশন ও কেন্দ্রীয় বাহিনী। এরপর বোলপুরে দলের কার্যালয়ে তিনি ফিরে যান। সেখান থেকেই এগারটি বিধানসভা এলাকায় দলীয় কর্মীদের থেকে বুথ ভিত্তিক রিপোর্ট নেন বীরভূমের তৃণমূল সভাপতি। সাকুল্যে কয়েক মিনিট ভোট দেওয়ার জন্য তিনি থাকলেও বুথের বাইরে কিন্তু তার মধ্যেই প্রচুর মানুষ ভিড় জমিয়েছিলেন।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

তাঁদের দাবি অনুব্রত মণ্ডল মানুষের উপকার করেন তাই তাঁকে দেখতে চান।  অন্যদিকে বীরভূমের বিভিন্ন জায়গা থেকে ভোটের দিন অশান্তি এবং নানা দুর্নীতির কথা উঠে এসেছে। পাশাপাশি বিরোধীদের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, বীরভূমের মানুষ তৃণমূলের বিপক্ষে, তাই ভোট দেবে বিজেপিকে। এমনকি কিছু বিজেপি সমর্থক দাবি করেছেন, এগারটি বিধানসভার মধ্যে বীরভূমের সাতটি বিধানসভাই জিতবে গেরুয়া শিবির। অমিত মালব্য ভোটের দিন সকালে বিজেপি নেতা অমিত মালব্য টুইট করেন।

তিনি দাবি করেন, সাঁইথিয়া ময়ূরেশ্বরের মতন বেশকিছু জায়গায় ক্যাম্প অফিসে তৃণমূল কর্মী নেই। যদিও বিজেপির সমস্ত অভিযোগ একদিকে সরিয়ে রেখে অনুব্রত মণ্ডল তাঁর স্বাভাবিক ছন্দে জানিয়েছিলেন গতকালই ‘খেলা হবে’ এবং ভয়ঙ্কর ‘খেলা হবে’। তাই নিয়ে বিরোধীরা যথারীতি প্রতিক্রিয়া দিয়েছিলেন। এখন দেখার, আগামী দিনে বীরভূমের তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলের দাবি অনুযায়ী বীরভূমে কি খেলা হতে চলেছে? এই খেলায় কে জিতবে, তা জানার জন্য অবশ্যই চোখ থাকবে আগামী 2 রা মের উপর।

আপনার মতামত জানান -

ট্যাগড
Top
error: Content is protected !!